1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইউনূসের রিট আবেদনের শুনানি শেষ

কাল রায় দেয়া হবে৷ ড. মুহাম্মদ ইউনূসের আইনজীবী ব্যারিস্টার রোকনউদ্দিন মহমুদ ন্যায় বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করছেন৷ আর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, ড. ইউনূসকে বাংলাদেশ ব্যাংক সঠিক আইনি পথেই অপসারণ করেছে৷

default

আদালতে ড. ইউনূস (ফাইল ছবি)

গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের পক্ষে দুটি রিট আবেদনের শুনানি শেষ হল মোট তিন দিনে৷ হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মমতাজ উদ্দিন আহমেদ এবং বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুরের আদালতে ড. ইউনূসের পক্ষে পর্যায়ক্রমে যুক্তি-তর্ক তুলে ধরেন ড. কামাল হোসেন, ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ এবং সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল মাহমুদুল ইসলাম৷

তাঁরা বলেন, গ্রামীণ ব্যাংকের পরিচালনা পরিষদ ড. ইউনূসকে অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে নিয়োগ দিয়েছে৷ এই নিয়োগ আইন কানুন মেনেই দেয়া হয়েছে৷ গ্রামীণ ব্যাংকের বিধি অনুযায়ী ৬০ বছর চাকিরর বয়স ড. ইউনূসের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়৷ তাই ড. ইউনূসকে অপসারণ বেআইনি এবং অবৈধ৷ ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, তাঁরা শুনানির শুরুতেই রুল চেয়েছিলেন৷ কিন্তু আদালত রুল না দিয়ে শুনানি করেছে৷ তাই স্বাভাবিক কারণেই তাঁর মনে ন্যায় বিচার নিয়ে শঙ্কা রয়েছে৷

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, ব্যাংকিং নীতিমালা লংঘন করে বয়স ৬০ বছর বয়স হওয়ার পরও ড. ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে বহাল থাকেন৷ তাঁকে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থানা পরিচালক পদে অনির্দিষ্ট মেয়াদে নিয়োগের ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদনও নেয়নি পরিচালনা পর্ষদ৷ আর একই প্রতিষ্ঠানে দুই নিয়ম চলতে পারেনা৷ সাধারণ কর্মচারীদের জন্য চাকরির বয়স সীমা ৬০ বছর আর ড. ইউনূসের জন্য বয়সের কোন সীমা থাকবে না - এটি ন্যায় নীতির পরিপন্থি৷

বিকেলে দু'পক্ষের শুনানি শেষে কাল দুপুর ২টা পর্যন্ত আদালত মুলতুবি করা হয়ছে৷ কাল অপরাহ্নে রায় দেয়া হবে৷ শুনানির তিনদিনই ড. ইউনূস আদালেতে উপস্থিত ছিলেন৷

গত বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংক ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থপনা পরিচালকের পদ থেকে অপসারণের আদেশ দেয়৷ পরদিনই ড. ইউনূস এই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করেন৷

প্রতিবেদন: হারুন উর রশীদ স্বপন, ঢাকা

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন