1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

‘ইউনূসকে সমর্থন করি, কিন্তু সমকামিতাকে নয়'

শান্তিতে নোবেল জয়ী মুহাম্মদ ইউনূসের সমকামী অধিকারের পক্ষে গত বছর করা এক মন্তব্যের প্রতিবাদ নিয়ে আমাদের প্রতিবেদন প্রকাশের পর অনেকে তাদের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন৷

ডা. এস এম এ হান্নান পাবনা থেকে ই-মেলে জানিয়েছেন, ড. ইউনূসের সমকামিতা সমর্থন বিষয়ক সংবাদটি ডয়চে ভেলে থেকে জানতে পেরে তিনি হতবাক৷ বিষয়টা প্রত্যেকের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করেছে বলেও মনে করেন তিনি৷

ফেসবুকেও অনেকে সমকামিতার বিপক্ষে তাদের অবস্থানের কথা জানিয়েছেন৷ আর এটাকে সমর্থন জানানোয় ড. ইউনূসেরও সমালোচনা করেছেন কেউ কেউ৷ হাসান আলি লিখেছেন, সমকামিতা সমাজ নষ্টকারী একটি ভাইরাস৷ ইসলাম ধর্ম এটা সমর্থন করে না৷ মিরনের মতে, এটা বিকৃত মানসিকতার যৌনাচরণ৷

তবে তৌহিদ মুক্তাদির লিখেছেন, ‘‘তাদেরকে সমাজ অধিকার দেবে, না দেবে সেটা সমাজের ব্যাপার৷ কিন্তু সমকামী মানুষতো আমাদের সমাজে আছে৷ সমকামীর অধিকার মানে এই নয় আপনার আমার সমকাম করতে হবে৷ এটা হচ্ছে এমন একটা বিষয় যারা সমকামী তাদেরকে মেনে নেয়া৷ ইচ্ছা করে কেউ সমকামী হয় না, এটা প্রকৃতিগতভাবেই৷ নারীর প্রতি আকর্ষণ আমরা যেমন ইচ্ছা করে তৈরি করিনি প্রকৃতিগতভাবেই পেয়েছি তেমনি সমকামীরা স্ব লিঙ্গের প্রতি আকৃষ্ট, এটা তারা প্রকৃতিগতভাবেই পেয়েছে৷''

Flash-Galerie Muhammad Yunus Rede

ড. ইউনূসের সমকামিতাকে সমর্থনের সংবাদটি জানতে পেরে অনেকে হতবাক

তিনি আরও লিখেছেন, ‘‘যারা ধর্মের কথা বলছেন, তাদের বলছি, ইসলামে কি সরাসরি এটা নিষিদ্ধ করা হয়েছে? সমকামীদেরতো আল্লাহই সৃষ্টি করেছেন৷ ড. ইউনূস বা অ্যামেরিকানরা নয়৷ তাদেরকে না মেনে নিলেই কি তারা সমাজ থেকে বিদায় নেবে? তারা থাকবেই৷''

কফিল উদ্দিন আহমেদ লিখেছেন, ‘‘আমি ড. ইউনূসকে সমর্থন করি কিন্তু আমি সমকামিতা সমর্থন করিনা৷'' কামরুল হাসানের বক্তব্য, ‘‘যে কাজে অন্যের ক্ষতি হয়না. যা শুধুমাত্র তাদেরই ভালো মন্দের ব্যাপার, সেখানে তাদেরকে বাধা দেয়া কেমন যেন অন্যায় মনে হয়৷''

এদিকে ৩ অক্টোবর জার্মান পুনরেকত্রীকরণ দিবস উপলক্ষ্যে জার্মানির সব নাগরিককে অনেক অনেক শুভ কামনা জানিয়েছেন ভারতের নতুন দিল্লির সুভাষ চক্রবর্তী৷

– ডয়চে ভেলের পক্ষ থেকে আপনাকে ধন্যবাদ৷

সংকলন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: আশীষ চক্রবর্ত্তী

নির্বাচিত প্রতিবেদন