1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

‘ইউক্রেন ছেড়ে রাশিয়ায় সাত লাখ মানুষ’

জাতিসংঘ জানিয়েছে, ইউক্রেনের মানবিক পরিস্থিতি প্রতিদিনই খারাপের দিকে যাচ্ছে৷ স্থানীয়দের সহায়-সম্বল বলতে কিছুই নেই৷ তাই সংকট নিরসনে নিরাপত্তা পরিষদের এক জরুরি বৈঠকে একথা বলেন জাতিসংঘের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা৷

জাতসিংঘের মানবিক সহায়তা বিভাগের পরিচালক জন জিং মঙ্গলবার নিরাপত্তা পরিষদকে জানিয়েছেন যে, ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের মানবিক পরিস্থিতির ক্রমশ অবনতি ঘটছে৷ সেখানে বিদ্যুৎ এবং পানির সংকট দেখা দিয়েছে৷ অধিকাংশ ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়ে গেছে এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা এলাকা ছেড়ে চলে গেছেন৷

জিং জানান, সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে চলমান সহিংসতা মানুষের জীবনের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিচ্ছে৷ তাই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দ্রুত কূটনীতিক সমাধান প্রয়োজন বলে জানান জিং৷ রাশিয়ার আহ্বানে নিরাপত্তা পরিষদের ঐ জরুরি বৈঠকে জিং জানান, ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে সংঘাতে এখন অবধি প্রায় ১,৪০০ মানুষ নিহত হয়েছেন৷ এছাড়া আহত হয়েছেন চার হাজারেরও বেশি মানুষ৷

এর আগে জাতিসংঘের শরণার্থী এজেন্সি জানায়, চার মাস ধরে চলা লড়াইয়ের কারণে ইতোমধ্যে সাত লাখ মানুষ ইউক্রেন ছেড়ে রাশিয়ায় চলে গেছে৷ এছাড়া এক লাখ সতের হাজার মানুষ ইউক্রেনের মধ্যেই নিজেদের অবস্থান বদল করেছে৷ প্রতিদিন অন্তত এক হাজার মানুষ সংঘাতপূর্ণ এলাকা ছেড়ে চলে যাচ্ছে বলেও জানিয়েছে এজেন্সিটি৷

প্রসঙ্গত, রাশিয়াপন্থি বিচ্ছিন্নতাবাদী এবং ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর মধ্যে চলা লড়াইয়ের কারণে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে প্রায় ৪০ লাখ মানুষ বিপদের মধ্যে রয়েছে৷ বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত দোনেৎস্ক এবং লুগানস্ক অঞ্চলে প্রতিদিন কয়েক ঘণ্টা বিদ্যুৎ থাকে না৷ জিং জানিয়েছেন, সেখানে ওষুধপত্রের সংকট দেখা দিয়েছে এবং আনুমানিক ৭০ শতাংশ স্বাস্থ্যকর্মী এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে৷

জাতিসংঘে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ভিটালি চুরকিন সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের বর্তমান পরিস্থিতিকে ‘বিপর্যয়কর' বলে আখ্যা দিয়ে দাবি করেছেন যে, ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর নির্বিচার গোলা হামলার কারণে সেখানকার (ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চল) ৮০ শতাংশ ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়ে গেছে৷

তবে জাতিসংঘে ইউক্রেনের উপ-রাষ্ট্রদূত অলেকজান্ডার পাভলিশেঙ্কো দোনেৎস্ক এবং লুগানস্কের পরিস্থিতি মারাত্মক হলেও বিপর্যয়কর নয় বলে মন্তব্য করেছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘ইউক্রেন সরকারের পক্ষেই এই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব৷ তবে আন্তর্জাতিক সঙ্গীরাও চাইলে সহায়তা করতে পারেন৷''

এদিকে, ওয়াশিংটনে পেন্টাগন জানিয়েছে, রাশিয়া তার দশ হাজার সৈনিক ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের সীমান্তের কাছে জড়ো করেছে৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং কিয়েভ মনে করে, বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সহায়তা করছে রাশিয়া৷ জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের উপ-রাষ্ট্রদূত রোসমেরি ডিকার্লো দাবি করেছেন, রাশিয়া চাইলে একাই স্বাচ্ছন্দে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে চলমান সংঘাত বন্ধ করতে পারে৷

এআই/ডিজি (এপি, ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়