1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

ইংলিশ প্রিমিয়ারের দলগুলোর এশিয়া সফর

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের খ্যাতি বিশ্ব জুড়েই৷ এশিয়াও তাতে পিছিয়ে নেই, বরং অন্যদের চেয়ে এগিয়েই আছে বলতে হবে৷ তাইতো প্রতি দুই বছর অন্তর অন্তর অনুষ্ঠিত হয় ‘প্রিমিয়ার লিগ এশিয়া ট্রফি’৷

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের খ্যাতি বিশ্ব জুড়েই৷ এশিয়াও তাতে পিছিয়ে নেই, বরং অন্যদের চেয়ে এগিয়েই আছে বলতে হবে৷ তাইতো প্রতি দুই বছর অন্তর অন্তর অনুষ্ঠিত হয় ‘প্রিমিয়ার লিগ এশিয়া ট্রফি'৷

ইংল্যান্ডে প্রিমিয়ার লিগের মরসুম শুরুর আগে এশিয়ার কোনো একটি দেশে অনুষ্ঠিত হয় এই টুর্নামেন্ট৷ তাতে প্রিমিয়ার লিগের তিনটি দলের সঙ্গে আয়োজকদের একটি দল অংশ নেয়৷ ইংল্যান্ডের বাইরে অনুষ্ঠিত প্রিমিয়ার লিগের এটাই একমাত্র টুর্নামেন্ট৷

সম্প্রতি এই প্রতিযোগিতাটি হয়ে গেলো হংকং এ৷ তাতে অংশ নিয়েছিল ম্যানচেস্টার সিটি, টটেনহ্যাম হটস্পার, সান্ডারল্যান্ড ও সাউথ চায়না৷ এতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ম্যান সিটি৷

এই টুর্নামেন্ট ছাড়াও সম্প্রতি এশিয়া ঘুরে গেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, লিভারপুল আর আর্সেনাল৷ ম্যান ইউ মাত্র ১৭ দিনে থাইল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, জাপান আর হংকং এ পাঁচটি ম্যাচ খেলেছে৷ আর্সেনাল ১৩ দিনে খেলেছে চারটি ম্যাচ৷ ভিয়েতনাম, জাপান আর ইন্দোনেশিয়ায় খেলাগুলো হয়েছে৷ আর লিভারপুল খেলেছে ইন্দোনেশিয়া, অস্ট্রেলিয়া আর থাইল্যান্ডে৷ সব মিলিয়ে প্রিমিয়ার লিগের ছয়টি দল এবার এশিয়া সফর করেছে৷

কেন এই সফর?

কারণটা অবশ্যই আর্থিক৷ এশিয়ার বিভিন্ন দেশ সম্প্রতি অর্থনৈতিকভাবে বেশ উন্নতি করেছে৷ এই বিষয়টার সঙ্গে যোগ হয়েছে এশিয়ায় প্রিমিয়ার লিগের জনপ্রিয়তা৷ এই দুটোকে একসঙ্গে কাজে লাগিয়ে অর্থ উপার্জনের একটা বড় উপায় বের করেছে বিভিন্ন দল৷ ফলে চড়া অর্থের বিনিময়ে প্রিমিয়ার লিগের দলগুলো এশিয়ায় যাচ্ছে প্রদর্শনী ম্যাচ খেলতে৷ টিভি রাইটস বিক্রি, ম্যাচ ফি, স্পন্সরদের কাছ থেকে আয় আর ক্লাবের জার্সি, বল সহ অন্যান্য পণ্য বিক্রি করে ভাল আয়ই করে থাকে ক্লাবগুলো৷

কিন্তু সমস্যা...

আবহাওয়া পরিবর্তন আর অল্প সময়ের মধ্যে অনেককিছু করতে গিয়ে সমস্যায় পড়ছেন খেলোয়াড় আর কোচরা৷ সঙ্গে রয়েছে ইনজুরি৷ যেমন টটেনহ্যাম হটস্পারের ইয়ান ভ্যারটঙেন ও ম্যান সিটির মাটিয়া নাস্তাসিচ এশিয়া সফরে গিয়ে ইনজুরিতে পড়ায় প্রিমিয়ার লিগের শুরুর দিকের কয়েকটি খেলা খেলতে পারবেন না৷ অথচ তারা দুজনই তাদের ক্লাবের মূল একাদশের খেলোয়াড়৷

টটেনহ্যামের কোচ আন্দ্রে ভিলাশ-বোয়াশ বিষয়টা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কোনো রাখঢাক না রেখেই৷ সাউথ চায়নার সঙ্গে খেলায় ৬-০ গোলের জয়ের পর দেয়া সাক্ষাৎকারে কোচ আন্দ্রে ভিলাশ-বোয়াশ খেলার ফলাফলে খুশি হওয়ার চেয়ে খেলায় যে কোনো ফুটবলার আহত হয়নি তাতেই বেশি আনন্দ প্রকাশ করেন!

জেডএইচ / এসবি (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়