1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আসিয়ান দেশগুলির সঙ্গে নিবিড় সংহতি ভারতের লক্ষ্য

ব্রুনাইতে একাদশ আসিয়ান শীর্ষ সম্মেলন এবং অষ্টম পূর্ব-আসিয়ান শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং৷ দক্ষিণ-পূর্ব এবং পূর্ব এশিয়ার দেশগুলির সঙ্গে ভারতের সংহতি নিবিড় করতে তাঁর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ৷

ভারতের পররাষ্ট্রনীতির অন্যতম সফল উদ্যোগ হলো ‘পুবে তাকাও' নীতি৷ ‘পুবে-তাকাও' নীতির তিন দফা সাফল্যের মধ্যে আছে এশিয়ার সঙ্গে ভারতের অর্থনৈতিক সংহতি সুদৃঢ় করা, যার অন্যতম সোপান এশিয়ার দেশগুলির সঙ্গে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদন৷ আসিয়ানভুক্ত দেশগুলির সঙ্গে ভারতের বাণিজ্য বাড়াবার এটা এক সুবর্ণ সুযোগ৷ বর্তমানে ভারত-আসিয়ান বাণিজ্যের পরিমাণ ৭৬ বিলিয়ন ডলার৷ ২০১৫ সালের লক্ষ্যমাত্রা ১০০ বিলিয়ন ডলার এবং ২০২২ সালে সেটা হবে ২০০ বিলিয়ন৷ দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় রাষ্ট্রগুলির অ্যাসোসিয়েশন – সংক্ষেপে আসিয়ানের সঙ্গে ব্যাপক আঞ্চলিক অর্থনৈতিক সহযোগিতা গড়ে তুলতে ভারত অঙ্গীকারবদ্ধ৷

দ্বিতীয় সহযোগিতা রাজনৈতিক ক্ষেত্রে৷ দিল্লি এখন শুধুমাত্র আসিয়ান নয়, পূর্ব-এশিয়ার সব প্রতিষ্ঠান ও সংস্থাগুলির অবিভাজ্য অঙ্গ হয়ে উঠেছে৷ পূর্ব-এশিয়ার নিরাপত্তা এবং সুস্থিতি রক্ষায় ভারত এক কৌশলগত সহযোগী দেশে পরিণত হয়েছে৷ ভারত-আসিয়ান সহযোগিতার অন্যান্য ক্ষেত্রগুলি হলো, বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, কৃষি, পরিবেশ, মানব সম্পদ, জ্বালানি, পরিকাঠামো, পর্যটন, স্বাস্থ্য ও সংস্কৃতি৷

বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, প্রায় ৩০০ কোটি জনসংখ্যার এশীয় দেশগুলির শীর্ষ সম্মেলনের প্রধান বিষয় হবে সড়ক, রেল ও বিমানপথে আঞ্চলিক যোগাযোগ বাড়ানো৷ দিল্লির দিক থেকে মিয়ানমারের বড় ভূমিকা আছে, কারণ আসিয়ানের দশটি দেশের মধ্যে মিয়ানমার একমাত্র দেশ, যার সঙ্গে ভারতের অভিন্ন সীমান্ত৷ যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হলে সব থেকে লাভবান হবে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলি৷ ব্রুনাই থেকে গ্যাস ও অন্যান্য এনার্জি কাঁচামাল আমদানিতে ভারত আগ্রহী৷

Manmohan Singh

দক্ষিণ-পূর্ব এবং পূর্ব এশিয়ার দেশগুলির সঙ্গে ভারতের সংহতি নিবিড় করতে মনমোহন সিংয়ের ভূমিকা খুব গুরুত্বপূর্ণ

এছাড়া ভারতের বিহার রাজ্যে অবস্থিত অন্যতম প্রাচীন নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় যাতে ২০১৪ সালের মধ্যে চালু হয়, তার জন্য আন্তঃসরকার চুক্তি সই করা৷ এতে সামিল হবে অস্ট্রেলিয়া, চীন, জাপান, কোরিয়া, রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷ শীর্ষ সম্মেলনের পার্শ্ববৈঠকে প্রধানমন্ত্রী মিলিত হবেন বিশ্বনেতাদের সঙ্গে৷ ব্রুনাই থেকে তিনি যাবেন ইন্দোনেশিয়ায়৷ সে দেশের শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে ড.সিং-এর আলোচনা হবে নিরাপত্তা, বাণিজ্য, যোগাযোগ ও সাংস্কৃতিক সহযোগিতা নিয়ে৷ এই অঞ্চলের রাজনৈতিক ‘থিঙ্ক-ট্যাঙ্ক' মনে করেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের ধাঁচে আসিয়ান দেশগুলির মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে না ওঠার আপাত কোনো কারণ নেই৷ কারণ যদি থেকে থাকে, তা হলো কিছু রাজনৈতিক ইস্যু, যা বিশেষ করে ভারত-পাকিস্তান কেন্দ্রিক৷

আসিয়ানভুক্ত দেশগুলিকে চীনের সামরিক ও আর্থিক পেশিশক্তির ভূত তাড়া করে ফিরছে দক্ষিণ চীন সমুদ্রে চীনের বিতর্কিত সার্বভৌম অধিকারের দাবিতে৷ ২০০৯ সাল থেকে দক্ষিণ চীন সমুদ্রের আন্তর্জাতিক জলসীমার ওপর ফিলিপাইন্স ও ভিয়েৎনামের অধিকার চীন নস্যাৎ কোরে দিতে চাইছে স্রেফ গায়ের জোরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়