1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আসিফের হামলাকারীরাই কি নিলয়ের হত্যাকারী?

নিলয় নীল হত্যাকাণ্ডে আরো দু'জনকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ৷ ফলে এ ঘটনার সঙ্গে আনসারুল্লাহ বাংল টিমের সংশ্লিষ্টতা আরো স্পষ্ট হলো৷ পুলিশের দাবি, আসিফ মহিউদ্দীনকে যারা হত্যার চেষ্টা করেছিল, তারাই নিলয়ের হত্যাকারী৷

বৃহস্পতিবার রাতে কাউছার হোসেন খান ও কামাল হোসেন সরদার নামে দু'জনকে ঢাকার মিরপুর ও ধোলাইপাড় এলাকা থেকে আটক করা হয়৷ শুক্রবার তাদের আদালতে হাজির করে ব্লগার নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় ওরফে নিলয় নীল হত্যায় পাঁচদিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে৷

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) উপ-কমিশনার মুনতাসিরুল ইসলাম ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘আটক এই দু'জন ব্লগার আসিফ মাহিউদ্দীন হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি এবং আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য৷ তারা দু'জনই এর আগে আরো একবার আটক হয়েছিল৷''

গত ৭ই আগস্ট ঢাকার গোড়ানে নিজের ভাড়া বাসায় খুন হন ব্লগার নিলয় নীল৷ এরপর এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নুর ভাগ্নে সাদ আল-নাহিনকে উত্তরা থেকে এবং মাসুদ রানা নামে অন্য একজনকে মিরপুরের কালশী থেকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ তারাও আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য৷

Bangladesch Festnahme von drei Islamisten nach Mord an Bloggern

ব্লগার হত্যার কোনো ঘটনারই সুরাহা করতে পারেনি পুলিশ

নাহিন ২০১৩ সালে উত্তরায় ব্লগার আসিফ মহিউদ্দীনের উপর হামলার পর গ্রেপ্তার হয় এবং এক বছরের বেশি সময় কারাগারে থাকার পর জামিনে ছাড়া পায়৷ এমনকি, গ্রেপ্তার হওয়ার পর সে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সক্রিয় সদস্য বলে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিও দেয়৷

ঢাকা মহানগর পুলিশের অপর এক উপ-কমিশনার মাহবুবুল আলম ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘এখন এটা স্পষ্ট যে ব্লগার নিলয় হত্যার সঙ্গে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্যরাই জড়িত৷ যারা ব্লগার আসিফ মহিউদ্দীনকে হত্যার চেষ্টা করেছিল, তারাই ব্লগার নিলয়কে হত্যা করেছে৷ শুধু তাই নয়, এর আগে যে দু'জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের মধ্যে সাদ আল-নাহিন পুলিশ রিমান্ডে আসিফ মহিউদ্দীনকে হত্যা করতে না পারার ব্যর্থতার জন্য আফসোস করেছে৷''

তিনি জানান, ‘‘দু'দফায় যে চারজন আটক হলো তারা সাবই আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য৷ বৃহস্পতিবার আটক হওয়া কাউছার ও কামাল এবং এর আগে আটক হওয়া নাহিন ও মাসুদ রানা একসঙ্গে কাজ করতো৷ তারা চারজনই ব্লগার আসিফ মহিউদ্দীনকেও হত্যার চেষ্টা করেছিল৷''

ব্লগার নিলয় হত্যার পরপরই হত্যার দায় স্বীকার করে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে বিবৃতি দেয় আল-কায়েদার ভারতীয় উপ-মহাদেশের (একিউআইএস) বাংলাদেশ শাখা আনসার-আল-ইসলাম নামে একটি সংগঠন৷ পরে তারা এই দায় অস্বীকার করলেও, হত্যাকাণ্ডের ঘটনাকে সমর্থন করে বলে খবর৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়