1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আশ্বাস নয়, বেতন চান অনশনরত শ্রমিকরা

কোনো আশ্বাসেই আশ্বস্ত হতে পারছেন না তুবা গ্রুপের পাঁচ পোশাক কারখানার দেড় হাজারেরও বেশি শ্রমিক৷ ঈদের আগে শুরু করা আমরণ অনশন শুক্রবার পঞ্চম দিনের মতো অব্যাহত ছিল৷

এদিনও বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা রাজধানীর বাড্ডায় হোসেন মার্কেটের সপ্তম তলায় শ্রমিকদের অনশনস্থলে গিয়ে সংহতি প্রকাশ করেন৷

অনশন চালিয়ে যাওয়া শ্রমিকদের এখন একটাই দাবি ‘কোনো আশ্বাস নয়, বেতন চাই'৷ অনশন চলার মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাতে খবর এসেছে তুবা গ্রুপের মালিক দেলোয়ার হোসেন জামিন পেয়েছেন৷ অগ্নিকাণ্ডে ১১২ জন শ্রমিক নিহত হওয়ার মামলায় গ্রেফতার হয়ে তিনি কারাগারে ছিলেন৷ দেলোয়ারের জামিনের খবরে আরো ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন শ্রমিকরা৷ শ্রমিকদের দাবি তাঁর জামিন বাতিল করে শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে৷

গার্মেন্টস মালিক-শ্রমিক ঐক্য ফোরামের সভাপতি মোশরেফা মিশু ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি দেলোয়ার হোসেনের জামিন হয়েছে৷ আগামী রবি বা সোমবার জেল থেকে তিনি ছাড়া পাবেন৷''

অনশন কর্মসূচি থেকে তুবা গ্রুপের ১,৬০০ শ্রমিকের তিন মাসের বেতন, ওভারটাইম ও বোনাস বাবদ পাওনা ৪ কোটি ৫৭ লাখ টাকা পরিশোধের দাবিও করেন মোশরেফা মিশু৷ শ্রমিকদের অনশনে অংশ নেয়া এই শ্রমিক নেত্রীও অসুস্থ হয়ে পড়েছেন৷ তিনি অবিলম্বে বেতন-ভাতা পরিশোধ, তুবার প্রতিটি কারখানা সচল করে শ্রমিকদের কর্মসংস্থান নিশ্চিতকরণ, শ্রমিক হত্যাকারী খুনি দেলোয়ারের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত, তাজরিন গার্মেন্টসে আহত শ্রমিকদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা ও নিহতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি জানান৷

তুবা গ্রুপের মালিক দেলোয়ার হোসেনের শ্বাশুড়ি লাইলী বেগম গত ৫ দিন ধরে অবরুদ্ধ রয়েছেন৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, ‘‘জামাইয়ের জামিন হয়েছে শুনেছি৷ এখনো বের হয়েছে কিনা জানি না৷ শুক্রবার সকাল থেকেই আমি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন৷'' তিনি বলেন, একটা কারখানা বিক্রি করে শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে৷ জামাই জেল থেকে বের হলেই এসব ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে৷ তখন শ্রমিকরা পাওনা পেয়ে যাবেন৷ তিনি বলেন, ‘‘শ্রমিকদের দাবির সঙ্গে আমিও একমত, শুধু একটু সময় দরকার৷''

শ্রমিকদের অনশনের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করতে শুক্রবার গার্মেন্টসে যান সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা মাহমুদুর রহমান মান্না৷ তিনি উপস্থিত শ্রমিকদের বলেন, ‘‘আপনারা অনেক কষ্ট করেছেন, আর একটু ধৈর্য্য ধরে আন্দোলন চালিয়ে যান, সফলতা আসবেই৷ মালিককে আপনাদের ন্যায্য পাওনা পরিশোধ করতেই হবে৷''

আমরণ অনশনে অংশ নেয়া বাংলাদেশ টেক্সটাইল ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের সভাপতি অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান ইসমাইল বলেন, ‘‘বিজিএমইএ-র নেতারা আনন্দে ঈদ উদযাপন করেছেন৷ কিন্তু, একবারও কি তাঁদের মনে হলো না যে, এই মানুষগুলো ঈদের দিন না খেয়ে আছে৷ শ্রমিকদের সন্তানেরা অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছে৷ আসলে মালিকেরা শ্রমিকদের মানুষই মনে করেন না৷ বিগত পাচ দিনেও বিজিএমইএ-র পক্ষ থেকে কোনো প্রতিনিধি দল তুবা গ্রুপে যায়নি৷ শুক্রবার সন্ধ্যায় একটি প্রতিনিধি দল আসবে বলে তারা শুনেছেন৷ এরই মধ্যে ৭৬ জন শ্রমিক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন৷ এর মধ্যে ১০ শ্রমিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন৷''

তুবা গ্রুপের মালিক দেলোয়ার হোসেনের সর্বোচ্চ শাস্তি এবং শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনা আদায়ে নতুন করে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে তুবা গ্রুপ শ্রমিক সংগ্রাম কমিটি৷ শুক্রবার দুপুরে শ্রমিক নেত্রী মোশরেফা মিশু এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন৷ শনিবার বেলা ১১ টায় বাড্ডার হোসেন মার্কেটের সামনে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করেন৷

তিনি বলেন, ‘‘বিজিএমইএ তুবা গ্রুপের শ্রমিকদের বেতন-বোনাস নিয়ে মিথ্যাচার করছে৷ বিজিএমইএ-র পক্ষ থেকে বারবার বলা হচ্ছে মালিক জেলে থাকায় বেতন-বোনাস দেয়া সম্ভব হয়নি৷ ব্যাংকও টাকা দিতে রাজি হয়নি৷ তাহলে আমাদের প্রশ্ন দিন-রাত কাজ করে শ্রমিকরা যে পণ্য তৈরি করেছে সেই শিপমেন্টের টাকা কোথায়? সেই টাকা এনে শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধ করুন৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়