1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

আশায় গুড়েবালি

বিশ্বকাপ শুধু খেলাই নয়, একে ঘিরে থাকে বাণিজ্যও৷ খেলা দেখতে আসা ভিনদেশীদের বাড়ি ভাড়া দিয়ে লাভবান হতে চাইছিলেন অনেক দক্ষিণ আফ্রিকান৷ কিন্তু পূরণ হচ্ছে না তাঁদের সে আশা৷

default

এই বলেই খেলা হবে এ বছরের বিশ্বকাপ

গত বছরের আভাস ছিলো, বিশ্বকাপের সময় দক্ষিণ আফ্রিকায় জড়ো হতে পারেন অন্তত সাড়ে চার লাখ মানুষ৷ কোথায় থাকবেন তাঁরা, তখন এটাই ছিলো ভাবনা৷ সুযোগ বুঝে অনেকেই তাঁদের বাড়িকে রাতারাতি হোটেল বানিয়ে ফেলেছিলেন৷ বাড়ি ভাড়া দিয়ে মুফতে কিছু কামিয়ে নিয়ে, বিশ্বকাপের সময়টাতে বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনাও করেছিলেন কেউ কেউ৷

তবে বছর ঘুরে বিশ্বকাপ শুরু হতেই পাল্টে গেছে চিত্র৷ এখন বলা হচ্ছে, মন্দা আর সহিংসতার আশঙ্কায় অনেকে ভিড়তে চাইছেন না দক্ষিণ আফ্রিকায়৷ সর্বসাকুল্যে ৩ লাখ ৭০ হাজার ভিনদেশী জড়ো হতে পারেন সেখানে৷ ফলে খালি পড়ে থাকবে অনেক হোটেল৷ পর্যটকদের জন্য তৈরি করা অনেক বাড়িও৷

তেমনটাই বলছিলেন আবাসন ব্যবসায়ী ট্র্যাসি ফ্রেঞ্চ৷ তার কোম্পানি ২৩ হাজার ঘর ঠিক করেছিলো ভাড়া দেওয়ার জন্য৷ তবে সব মিলিয়ে ৮ হাজার ঘর ভাড়া হতে পারে বলেই এখন ফ্রেঞ্চের ধারণা৷

তাই হোটেল আর ওই সব বাড়ির মালিকরা বেজায় চটেছেন ফিফার ট্রাভেল এজেন্ট ‘ম্যাচ' এর ওপর৷ তাঁরা বলছেন, ‘হোটেল নেই, হোটেল নেই' বলে ‘ম্যাচ'ই এ সমস্যাটি তৈরি করেছে৷ তাঁরা ভালো বাড়ির জন্য ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন পর্যন্ত দিয়েছিলো৷ তাই তো সবাই এ সবের পেছনে ছুটেছে৷ এখন ছোট ছোট গেস্ট হাউস ভাড়া নিয়ে ‘ম্যাচ' ঝামেলাটা আরো বাড়িয়ে তুলেছে৷ এ অভিযোগ করলেন জোহানেসবার্গের আবাসন ব্যবসায়ী ওটি মেইজার৷

তবে এ সব অভিযোগ মানতে নারাজ ‘ম্যাচ' এর প্রধান কর্তা জেইমি বায়রম৷ তিনি বলেন, অন্যের বাড়িতে কেউ থাকতে চায় না৷ আমাদের পূর্ব অভিজ্ঞতা এটাই বলে৷ তাই আমরা এ ধরনের বাড়ি ভাড়া করতে চাইনি৷

বিশ্বকাপের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকায় হোটেল আর গেস্ট হাউস মিলিয়ে ১৮ লাখ ঘর বুক করেছিলো ‘ম্যাচ'৷ লন্ডনের দি মেইল ও গার্ডিয়ান পত্রিকার খবর, এর মধ্যে সাড়ে চার লাখের বুকিং বাতিল করেছে তারা৷ তবে এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হননি জেইমি৷

এদিকে হোটেল মালিক আর বাড়িওয়ালারা চটলেও ছোট গেস্ট হাউসের মালিকরা কিন্তু খুশি ‘ম্যাচ' এর ওপর৷ তাদেরই একজন ডলি হোফে বলেন, পুরো বিষয়টি ঠিকভাবেই চলছে৷ আমি অন্তত সন্তুষ্ট৷ ম্যাচের পক্ষ নিয়ে তিনি বলেন, মন্দার এ সময়ে বেশি ভাড়া দিয়ে আসলেই কেউ থাকতে চায় না৷

বাড়ি ব্যবসা ভালো না জমলেও বিশ্বকাপ খেলা জমে উঠুক, এখন তাই চাইছে দক্ষিণ আফ্রিকানরা৷ তাতে অন্তত মনের একটা খেদ তো দূর হবে৷

প্রতিবেদন: মনিরুল ইসলাম

সম্পাদনা: আবদুস সাত্তার

সংশ্লিষ্ট বিষয়