1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আলোচনার আগে উত্তর কোরিয়ার জন্য আস্থা অর্জনের শর্ত

উত্তর কোরিয়ার সাথে কূটনৈতিক সমঝোতা সম্ভব, তবে তাদের উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ড বন্ধ করতে হবে৷ এশিয়া সফরের শেষে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রবার্ট গেটস একথা বলেন৷ এদিকে, কোরিয়া উপদ্বীপে স্থিতিশীলতার জন্য ছয়জাতি আলোচনা চায় চীন৷

default

এশিয়া সফরের শেষে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রবার্ট গেটস

আর মাত্র ক'দিন পরেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরে যাচ্ছেন চীনা প্রেসিডেন্ট হু জিনতাও৷ ১৯ জানুয়ারি চীনা নেতার সম্মানে রাষ্ট্রীয় ভোজের আয়োজন করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ তার আগে চীন, জাপান হয়ে কোরিয়া সফরে গেছেন মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রবার্ট গেটস৷ কথা বললেন চীনের সামরিক ও প্রযুক্তিগত অগ্রগতি নিয়ে৷ একইসাথে কোরিয়া উপদ্বীপের পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ রাখতে সম্ভাব্য উদ্যোগ সম্পর্কেও আলোচনা করলেন আঞ্চলিক নেতাদের সাথে৷

চীন প্রসঙ্গে গেটস-এর বক্তব্য, ‘‘চীনা সামরিক বাহিনীকে তথ্য-প্রযুক্তি এবং স্যাটেলাইট-বিধ্বংসী যুদ্ধাস্ত্র দিয়ে সমৃদ্ধ করা, প্রশান্ত মহাসাগরীয় এই অঞ্চলে নিয়োজিত আমাদের বাহিনীর অভিযান ও যোগাযোগের ক্ষেত্রে একটি সম্ভাব্য হুমকি৷'' তবে ওয়াশিংটন এবং টোকিও'র যৌথ বাহিনী উচ্চ-প্রযুক্তি ব্যবহার করে এসব হুমকি মোকাবিলায় সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি৷ অবশ্য একইসাথে গেটস বলেন, ‘‘চীনকে যারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অবশ্যম্ভাবী কৌশলগত শত্রু হিসেবে বিবেচনা করেন আমি তাদের সাথে একমত নই৷ বিশ্ব দরবারে চীনের গঠনমূলক ভূমিকাকে স্বাগত জানাই আমরা৷''

এদিকে, কোরিয়া উপদ্বীপে স্থিতিশীলতা ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে কূটনৈতিক আলোচনার পূর্বে উত্তর কোরিয়াকে আস্থা অর্জন করতে হবে বলে মন্তব্য করেন গেটস৷ এশিয়া সফরের শেষ পর্যায়ে দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সৌলে পৌঁছে এমন মন্তব্য করেন তিনি৷ এছাড়া তিনি বৈঠক করেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রী কিম কোয়ান-জিনের সাথে৷ এসময় কোয়ান-জিন বলেন, চলতি বছরে উত্তরের পক্ষ থেকে আরো উস্কানিমূলক আচরণের আশঙ্কা করছেন তাঁরা৷ আর এমনটি ঘটলে নিজেদের যথেষ্ট শক্তির পরিচয় দেবে দক্ষিণ বলে সতর্ক করে দেন তিনি৷

অন্যদিকে, শুক্রবার আবারও কোরিয়া উপদ্বীপের স্থিতিশীলতার জন্য থমকে থাকা ছয়জাতি আলোচনা শুরুর পক্ষে কথা বলেছেন চীনা উপ-পররাষ্ট্র মন্ত্রী কুই টিয়াংকাই৷ তবে চীন, জাপান, রাশিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, এবং উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিনিধিদের নিয়ে এই সমঝোতা বৈঠক পুনরায় শুরু করার আগে পিয়ংইয়ংকে বিশ্বস্ততা ফিরিয়ে আনার শর্ত জুড়ে দিয়েছে সৌল এবং ওয়াশিংটন৷

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়