1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

আলোছায়ার স্বপ্নের জগতে স্বাগতম

আলো আর ছায়ার মিশ্রণে এক স্বপ্নের জগত গড়েছেন ক্রিস্টিন এবং ডেভি৷ কাগজ দিয়ে শিল্পকর্ম গড়েন তাঁরা৷ তবে সাধারণভাবে নয়, সেগুলো প্রদর্শন করতে হয় ভিন্নভাবে৷ তাঁদের এই কাজ লন্ডনে সাড়া জাগিয়েছে৷

কাগজ, আলো এবং ছায়ার খেলার কারিগর এক শিল্পী দম্পতি৷ নাম ক্রিস্টিন এবং ডেভি ম্যাকগায়ার৷ গত দশ বছর ধরে একসঙ্গে কাজ করছেন৷ তাঁরা গল্প তৈরি করেন, সেট সাজান এবং নিজেদের সৃষ্টির কাজে অংশও নেন৷ ক্রিস্টিন এই বিষয়ে বলেন, ‘‘আমরা আমাদের ছোট্ট দুনিয়া গড়তে চাই৷ আর আমরা সৌভাগ্যবান যে অন্যরা আমাদের সঙ্গে যোগ দেন৷''

২০০৯ সালে তাঁরা প্রথম কাগজের সৃষ্টি তুলে ধরেন৷ নাম ‘দ্য আইসবুক৷' আলো জ্বালালে গল্পটি অনুভব করা যায়৷ আর ‘দ্য হন্টেড ড্রেস' তাঁরা তৈরি করেছিলেন ‘রয়েল শেক্সপিয়ার কোম্পানির' অনুরোধে৷ পুরো ভৌতিক ব্যাপার৷

ক্রিস্টিন ম্যাকগায়ারের জন্ম জার্মানিতে৷ আর তাঁর স্বামী শ্রীলঙ্কান বংশোদ্ভূত৷ ৩৩ বছর বয়সি এই নারী রিদমিক জিমনাস্টিকে জার্মানি চ্যাম্পিয়ন৷ তিনি নাচও শিখেছেন৷ তাঁর স্বামী ডেভি ম্যকগয়ার লন্ডনে বড় হয়েছেন৷ চলচ্চিত্র এবং থিয়েটার তাঁর বিষয়৷ তাঁরা তাঁদের প্রথম পরিচয় নিয়ে একটি ভিডিও তৈরি করেছেন৷

প্রথম দেখাতেই নিজেদের আবিষ্কার করেছিলেন তারা, বুঝেছিলেন একসঙ্গে কাজ করতে হবে৷ তবে কিছু জটিলতাও ছিল৷ ডেভি ম্যাকগায়ার বলেন, ‘‘প্রথম দেখাতেই বুঝেছিলাম ক্রিস্টিন অনেক স্পষ্টভাষী৷ জার্মান আচরণ৷ তবে বিষয়টি ইন্টারেস্টিং৷ কেননা ব্রিটিশদের আচরণে কিছু কূটনৈতিক ব্যাপার রয়েছে৷ তারা একটি বিষয় অনেক দূরে নিয়ে গিয়ে বুঝতে পারে, আগেই আলোচনা করা উচিত ছিল৷ তখন বড় সমস্যা তৈরি হয়৷''

আলোছায়ার জগত তৈরির কাজে এই শিল্পী দম্পতির ব্যক্তিগত ও পেশাদারী জীবনের মধ্যে সীমা মিলেমিশে যায়৷ ডেভি ম্যাকগায়ার বলেন, ‘‘আমাদের কঠোর নীতি রয়েছে, সন্ধ্যা ছয়টার পর কাজ নিয়ে আর কথা বলা যাবে না৷ কিন্তু এক বা দুই সপ্তাহ আমরা সেই নীতি মানতে পেরেছিলাম মনে হয়৷''

অবশ্য ক্রিস্টিন বিষয়টি ভিন্নভাবে দেখেন৷ তিনি বলেন, ‘‘তবে অন্যদিক দিয়ে চিন্তা করলে, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আমাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়৷ তখন একসঙ্গে ঘুরে বেড়াই যা সত্যিই চমৎকার৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক