1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘আর যেন কোনো ১৭ বা ২১ আগস্ট দেখতে না হয়'

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে লেখালেখি হলেও বুধবার ২১শে আগস্টের গ্রেনেড হামলা নিয়ে লেখাই বেশি৷ নয় বছর আগে নারকীয় হামলার নিন্দা জানিয়েছেন সবাই, এমন ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না হয় সে কামনাও করেছেন তাঁরা৷

২০০৪ সালের ২১শে অগাস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে শেখ হাসিনার বক্তব্য শেষ হওয়ার ঠিক আগে উপর্যুপরি গ্রেনেড হামলা ও গুলিবর্ষণে দলের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক আইভি রহমানসহ অন্তত ২৩ জন মারা যান৷ আহত হন তখনকার বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাসহ অনেকে৷

আমার ব্লগে লিপি হালদার সেদিনের কথা স্মরণ করে লিখেছেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে ‘প্রতিটি অপরাধের নিরপেক্ষ তদন্ত ও বিচার, নিরুৎসাহিত করবে এই ধরনের গ্রেনেড হামলা ও অপরাধ৷' ‘নির্জন সৈকত' তাঁর ব্লগে কিছু ছবি পোস্ট করেছেন, যেগুলো দেখলে বোঝা যায় কী ভয়াবহ ছিল সেই হামলা!

Tränengas Brasilien

২০০৪ সালের ২১শে অগাস্ট উপর্যুপরি গ্রেনেড হামলা ও গুলিবর্ষণে আইভি রহমানসহ অন্তত ২৩ জন মারা যান

জান্নাতুলের লেখায় প্রকাশিত দেশের প্রতিটি শান্তিকামী মানুষের কামনা, আর যেন কোনো ১৭ই আগস্ট, ২১শে আগস্ট আমাদের দেখতে না হয়৷'' তাঁর লেখায় ২১শে আগস্টের সঙ্গে বাংলাদেশের ইতিহাসের ভয়াবহ আরেকটি দিনের কথাও উঠে এসেছে৷ ২০০৫ সালের ১৭ই আগস্ট একই সময়ে দেশের ৬৩টি জেলার ৫০০ জায়গায় বোমা হামলা চালানো হয়েছিল৷

‘আমার ব্লগ'-এ এ হুসাইন মিন্টুর লেখার শিরোনাম, ‘আগস্ট বাঙ্গালির শত্রু'৷ বোঝাই যাচ্ছে, তিনি শুধু ২১শে আগস্ট এবং ১৭ই আগস্টেই নয়, ফিরে গেছেন ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্টেও৷ সেদিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যা করে অগণতান্ত্রিকভাবে ক্ষমতা দখলের প্রথম নজির গড়া হয়৷ আওয়ামী লীগ মনে করে, ২১শে আগস্টের হামলা ছিল শেখ হাসিনাকে হত্যা করে আওয়ামী লীগকে দুর্বল করার আরেকটি অপপ্রয়াস৷

সংকলন: আশীষ চক্রবর্ত্তী

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়