1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আর্থ-রাজনৈতিক কারণই ইউরোপে দুর্নীতির মূলে

ইউরোপের দেশগুলোতে দুর্নীতি উদ্বেগজনক মাত্রায় বেড়ে চলেছে৷ এর ফলে ইউরোপীয় ইউনিয়নকে প্রতি বছরে ব্যয় করতে হচ্ছে প্রায় ১২ হাজার কোটি ইউরো৷ সোমবার এক প্রতিবেদনে এ সব তথ্য জানিয়েছে ইউরোপীয় কমিশন৷

default

১০ জনের ৮ জনই মনে করেন, ব্যবসা ও রাজনীতির সাথে যাদের যোগাযোগ রয়েছে তারা দুর্নীতিগ্রস্ত

প্রদীপের নীচেই অন্ধকার – একথাটা প্রায়ই শোনা যায়৷ এবার সেটাই দেখা গেল ইউরোপের দুর্নীতির চিত্রে৷ ধারণা করা হতো একমাত্র বাংলাদেশ, ভারতের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোতেই দুর্নীতির চিত্রটা ভয়াবহ, কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে ইউরোপের দেশগুলোতেও দুর্নীতি কিছু কম নয়৷ ইউরোপীয় কমিশনের প্রকাশিত প্রতিবেদন কিন্তু সে কথাই বলছে৷ গ্রিস, স্পেন আর ইটালিতে দুর্নীতি বেড়েছে ব্যাপক হারে৷ প্রতিবেদন প্রকাশের অল্প কিছুক্ষণ আগে ঘুস নেয়ার অভিযোগে রোমানিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী আদ্রিয়ান নাসটাসেকে চার বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির আদালত৷

অর্ধেক ব্যক্তির মত: দুর্নীতি বেড়েছে

Cecilia Malmström

ইইউ-র স্বরাষ্ট্রবিষয়ক কমিশনার সেসিলিয়া মাল্মস্ট্রম

সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানাচ্ছে, ইইউ-র স্বরাষ্ট্রবিষয়ক কমিশনার সেসিলিয়া মাল্মস্ট্রম ইউরোপের দুর্নীতির সমস্যা নিয়ে একটি পূর্ণ প্রতিবেদন উপস্থাপন করেছেন৷ ইউরোপীয় ইউনিয়নের ২৮টি সদস্য রাষ্ট্র থেকে প্রায় দু'বছর ধরে তথ্য সংগ্রহ করার পর, প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে৷ কমিশন বলছে, এবারই প্রথম তারা সদস্য দেশগুলোর ওপর এমন একটা জরিপ চালায়৷ জরিপে দেখা যায়, অংশগ্রহণকারীদের তিন-চতুর্থাংশের মত যে, দুর্নীতি ব্যাপক মাত্রায় বেড়েছে৷

ইউরোপের ১০ জন মানুষের মধ্যে ৮ জনই মনে করেন যে, ব্যবসা এবং রাজনীতির সাথে যাদের যোগাযোগ রয়েছে তারা দুর্নীতিগ্রস্ত৷ আর ৭৬ ভাগ ইউরোপীয় মনে করেন, তাঁদের দেশে দুর্নীতি হয়৷ কিন্তু গ্রিস আর ইটালির ৯৯ ভাগ মানুষই মনে করেন ইউরোপের কোনো দেশই দুর্নীতির বাইরে নয়৷

ঘুস দেয়া-নেয়া

কমিশনের প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাজ্যের এক হাজার ১১৫ জন মানুষের মধ্যে মাত্র ৫ শতাংশ বলেছেন যে, তাঁদের ঘুস দিতে হয়েছে৷ ইউরোপের কোনো কোনো দেশে চিকিত্সা সেবা নিতে গেলে রোগীদেরও ঘুস দিতে হয় বলে জানান মাল্মস্ট্রম৷ তবে জরিপে অংশগ্রহণকারী ৬৪ শতাংশ ব্রিটিশ বলেছেন, তাঁরা মনে করেন যুক্তরাজ্যেও দুর্নীতি ব্যাপক মাত্রায় ছড়াবে৷

মাল্মস্ট্রম বলেছেন, দুর্নীতির কারণে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর মানুষের আস্থা কমে যাচ্ছে৷ উত্তরদাতাদের মধ্যে তিন-চতুর্থাংশ মনে করছেন দুর্নীতি তাঁদের দেশের মূল সমস্যা৷ জরিপে প্রতি ১০ জন ব্যবসায়ীর মধ্যে চারজনই মনে করেন দুর্নীতির কারণে তাঁরা ভালোভাবে ব্যবসা করতে পারছেন না৷

Symbolbild Schmiergeld

‘ইউরোপে দুর্নীতি ব্যাপক মাত্রায় বেড়েছে’

অর্থনীতি এবং রাজনীতি

মাল্মস্ট্রম বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যভুক্ত দেশগুলির অর্থনীতি এবং রাজনীতির ওপর এই দুর্নীতির সংস্কৃতির দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব পড়ছে৷ এ সব দুর্নীতির ফলে সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রের শক্তিও বৃদ্ধি ঘটছে৷

কিন্তু ইউরোপের বহু দেশেই এই সমস্যা দূর করার প্রশ্নে রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাব রয়েছে বলে সেসিলিয়া মনে করছেন৷ এই পরিস্থিতিকে উদ্বেগজনক উল্লেখ করে তিনি বলেন, ইউরোপে সবচেয়ে কম দুর্নীতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে সুইডেন অন্যতম৷ তাই সুইডেন কিভাবে দুর্নীতির সমস্যা মোকাবিলা করে তা দেখে ইইউভুক্ত অন্যান্য দেশগুলোর শেখা উচিত বলে জানান তিনি৷

সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের (টিআই) দুর্নীতি সূচকে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত ২৮টি দেশের মধ্যে সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে গ্রিস৷ টিআই-এর একই জরিপে ৮০তম অবস্থানে আছে দেশটি৷ গ্রিসের এ অবনতির জন্য বিশেষজ্ঞরা দেশটির চলমান অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক সংকটকে দায়ী করেছেন৷ টিআই জরিপে সবচেয়ে কম দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ ডেনমার্ক ৷

এপিবি/ডিজি (এপি, এএফপি, ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়