আরব বিশ্বের জন্য জি-৮ গোষ্ঠীর সহায়তা | বিশ্ব | DW | 27.05.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আরব বিশ্বের জন্য জি-৮ গোষ্ঠীর সহায়তা

বিশ্বের শীর্ষ অর্থনীতির দেশের নেতারা আরব অঞ্চলের মুক্ত গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে এগিয়ে এলেন মোটা অঙ্কের অর্থ সহায়তার প্রতিশ্রুত নিয়ে৷ এদিকে, গাদ্দাফির সাথে পশ্চিমা গোষ্ঠীর মধ্যস্থতার ভার পড়লো রাশিয়ার উপর৷

default

ফরাসি অবসর যাপন কেন্দ্র দোভিলে জি-৮ গোষ্ঠীর শীর্ষ বৈঠক৷ সদস্য দেশগুলোর শীর্ষ নেতাদের এই বৈঠকে উঠে এসেছে বিশ্বের সাম্প্রতিক ঘটনা প্রবাহ নিয়ে মতামত ও সিদ্ধান্ত৷ শুক্রবার টিউনিশিয়ার অর্থমন্ত্রী জানালেন, টিউনিশিয়া ও মিশরসহ আরব অঞ্চলের মুক্ত গণতন্ত্রকে আরো শক্তিশালী করতে ৪০ বিলিয়ন ডলার সহায়তা প্রদানে একমত হয়েছেন তাঁরা৷ বৈঠকের আয়োজক দেশ ফ্রান্সের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাও ৪০ বিলিয়ন ডলার সহায়তার কথা জানিয়েছেন৷ তবে তিনি বলেন, এটা সমুদয় অর্থের পরিমাণ৷ আসলে কোন্ দেশকে কত পরিমাণ দেওয়া হবে কিংবা ঠিক কোন্ সময় এই সহায়তা দেওয়া হবে সেসব বিষয় এখনও আলোচনা হয়নি৷

G8 Gipfel in Deauville Frankreich Flash-Galerie

জি-৮ বৈঠকে উঠে এসেছে বিশ্বের সাম্প্রতিক ঘটনা প্রবাহ নিয়ে মতামত ও সিদ্ধান্ত

দীর্ঘকাল ধরে ক্ষমতায় থাকা শাসকদের সরাতে সক্ষম হয়েছে যে দু'টি রাষ্ট্র অর্থাৎ টিউনিশিয়া এবং মিশর তারা এই সহায়তার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবে বলে বিশ্লেষকদের ধারণা৷ আর এই দুই রাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রীরা আজ দোভিলে বৈঠক করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাসহ জি-৮ নেতাদের সাথে৷ এসময় টিউনিশিয়ার প্রধানমন্ত্রী বেজি কায়েদ ইসেবসি লিবিয়াসহ প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে তাঁর দেশে আশ্রয় নেওয়া শরণার্থীদের জন্য আরো বেশি অর্থ সহায়তা প্রদানের আহ্বান জানান৷

জি-৮ বৈঠকে আলোচনার কেন্দ্রে লিবিয়া ও গাদ্দাফি

এদিকে, চলমান জি-৮ বৈঠকে অন্যান্য বিষয়ের মধ্যে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে থেকেছে লিবিয়ার সংকট৷ শীর্ষ বৈঠকের ঘোষণাপত্রের খসড়ায় উঠে এসেছে লিবীয় নেতা মুয়াম্মার গাদ্দাফিকে ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ানোর আহ্বান৷ এতে বলা হয়েছে, ইতিমধ্যে লিবিয়ার ক্ষমতায় থাকার বৈধতা হারিয়েছেন গাদ্দাফি৷ তাই অনতিবিলম্বে তাঁর সরে দাঁড়ানো উচিত৷ এছাড়া এতোদিন লিবিয়ায় ন্যাটো নেতৃত্বাধীন সামরিক অভিযানের বিরোধিতা করে আসছিল রাশিয়া৷ তবে শুক্রবার রুশ নেতারাও স্বীকার করেছেন যে, গাদ্দাফির ক্ষমতা ছাড়ার সময় হয়েছে৷ তাই তাঁর অপসারণের মধ্য দিয়ে লিবিয়া সংকটের রাজনৈতিক সমাধান খুঁজতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে মস্কো৷ জি-৮ গোষ্ঠীর পক্ষ থেকে রাশিয়াকে গাদ্দাফি প্রশাসনের সাথে মধ্যস্থতার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে জানালেন আফ্রিকায় রাশিয়ার বিশেষ দূত মিখাইল মার্গেলভ৷

অবশ্য, লিবিয়ার ব্যাপারে মস্কোর অবস্থান কিছুটা পাল্টালেও সিরিয়া নিয়ে এখনও ভিন্ন মত তাদের৷ রুশ উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকভ তাই দোভিলে বললেন, ‘‘সিরিয়ার পরিস্থিতি ঠিক লিবিয়ার মতো নয়৷'' অন্যদিকে, আরব লিগের বিদায়ী প্রধান আমর মুসার মতে, গাদ্দাফি খুব সহজে ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়াবেন না৷ শুক্রবার দোভিলে মুসা গাদ্দাফি সম্পর্কে সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘তাঁকে ব্যক্তি হিসেবে আমি যতোটুকু জানি তাতে তিনি সহজে ক্ষমতা ছেড়ে যাবেন না৷''

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক