1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

আরব জগতে গণতন্ত্রের বিকাশে ইসলাম ধর্মের ভূমিকা

আরব জগতে পরিবর্তনের হাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে অনেকের মনেই প্রশ্ন জেগেছে, কোন ধরণের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে দেশগুলোতে? গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় আপাতত টিউনিশিয়ার এন্নাহদা এবং মিশরের মুসলিম ব্রাদারহুডের ওপর সবার দৃষ্টি৷

default

এন্নাহদা পার্টির বিজয়

আরব বিশ্বে অনেক বেশি গণতন্ত্রের অর্থ কি রাজনৈতিক মঞ্চে ইসলাম ধর্মের প্রতিষ্ঠা? তাই যদি হয়ে থাকে তাহলে তার চরিত্র কী হবে? এসব প্রশ্ন এখন অনেকের মনে৷ টিউনিশিয়ার নির্বাচনের পর সেখানে ইসলামিক রাজনৈতিক দল এন্নাহদা বিপুল ভোট পেয়েছে৷ এদিকে লিবিয়ার এনটিসির প্রধান মুস্তাফা আব্দেল জলিল জানিয়েছেন, লিবিয়ায় শরিয়া আইন খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ভূমিকা পালন করবে৷

Ennahda Nahda Tunesien vor der Wahl mit Suad Abdel Rahim

নির্বাচনের আগে এন্নাহদা পার্টি

নেদারল্যান্ডসের আইনের অধ্যাপক ইয়ান মিশেল অটো সম্প্রতি একটি জরিপে জানিয়েছেন, পৃথিবীর ১২ টি দেশে কীভাবে শরিয়া আইন অনুসরণ করা হয়৷ এসব দেশের রাজনীতিতে ইসলাম ধর্মের প্রভাব চোখে পড়ার মত৷ লাইডেন বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অধ্যাপক আরো জানান,‘‘শরিয়া আইনের প্রবর্তন করা হলে কেউ জানবে না কী অপেক্ষা করছে সামনে৷'' অধ্যাপক মিশেল অটো একটি বই লিখেছেন ‘শারিয়া ইনকর্পোরেটেড'৷ তিনি জানান, পশ্চিমী বিশ্বের অনেক দেশই আতঙ্কিত শারিয়া আইন নিয়ে৷ অথচ ইসলামি আইনের প্রবর্তন অনেক বেশি স্বাধীনতা দিতে পারে মানুষকে৷

তুরস্কের কোনিয়ার সেলচুক বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানী ইয়াসিন আকতায় জানান, শরিয়া আসলে কোন ধরণের আইন নয়৷ এখানে শুধু অত্যাচার আর শাস্তির কথা বলা হয়েছে তা-ও ঠিক না৷

মধ্যেপ্রাচ্যের অনেক দেশেই শরিয়া আইন মেনে চলা হয়৷ কিন্তু এর পাশাপাশি পশ্চিমী বিশ্বের অনুকরণে দেওয়ানি ও ফৌজদারি আইনও মেনে চলে দেশগুলো৷ শুধু সৌদি আরব বাদে অন্যান্য দেশগুলোতে বিভিন্ন আইনের সমন্বয় চোখে পড়বে৷ শরিয়া আইনের শাসন কোন দেশ চাইলে বেশ কড়াভাবে অনুসরণ করতে পারে৷ আবার চাইলে বেশ শিথীলভাবেও এই আইনের প্রবর্তন সম্ভব৷

Tunesien Rachid Ghannouchi

রশিদ গানুশি

টিউনিশিয়ার এন্নাহদা ইসলামিক পার্টি রবিবারের নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়েছে৷ আরব জগতে প্রথম বিপ্লব শুরু হয়েছিল এই দেশটিতেই৷ টিউনিশিয়ার এই দলটি জানিয়েছে, গণতন্ত্রের প্রতি আস্থা তাদের রয়েছে এবং মানবাধিকারের বিষয়টিও তাদের কাছে বেশ গুরুত্ব পাবে৷

টিউনিশিয়ার সংবিধানে দেশের আনুষ্ঠানিক ধর্ম হিসেবে ইসলামের নাম উল্লেখ করা রয়েছে৷ কিন্তু শারিয়া আইন মেনে চলতে হবে, এমনটা উল্লেখ করা নেই৷ এর আগের সংবিধানটি রচনা করেছিলেন রশিদ গানুশি৷ এখন নতুন সংবিধান রচনার দায়িত্ব পেয়েছে এন্নাহদা ইসলামিক পার্টি৷ ধারণা করা হচ্ছে, এন্নাহদা যদি যদি শারিয়া আইন প্রবর্তন করতে চায়, তাহলে হয়তো তারা বিরোধিতার সম্মুখীন হবে৷

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন