1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

‘আমি নিশ্চিত আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেনি’

বাংলাদেশের রাজশাহীতে মালদ্বীপের মেয়ে রাউধা আথিফের মৃত্যুর বিষয়ে হত্যা মামলা দায়ের করবেন তাঁর বাবা মোহাম্মাদ আথিফ৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ‘‘আমি নিশ্চিত আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেনি, তাঁকে হত্যা করা হয়েছে৷’’

গত ২৯ মার্চ দুপুরে রাজশাহী ইসলামী ব্যাংক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ছাত্রী হোস্টেলের ২০৯ নম্বর কক্ষ থেকে রাউধার লাশ উদ্ধার করা হয়৷ তিনি ওই মেডিক্যালের এমবিবিএস দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ছিলেন৷ মডেল হিসেবেও তাঁর আন্তর্জাতিক পরিচিত ছিল৷

রাউধার লাশ পুলিশ উদ্ধার করেনি৷ তাঁর সহপাঠী এবং হোস্টেলের লোকজন লাশ উদ্ধারের পর পুলিশকে জানায়, রাউধা সিলিং ফ্যানের সঙ্গে কাপড় বেঁধে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন৷ পুলিশ পৌঁছানোর আগেই তাঁর সহপাঠীরা রাউধার লাশ নামিয়ে ফেলে৷ আর ৩১ মার্চ মেডিক্যাল বোর্ড জানায় ময়নাতদন্তে তারা আত্মহত্যার ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছে৷

অডিও শুনুন 05:08

‘সে কেন আত্মহত্যা করবে?’

এরইমধ্যে মালদ্বীপের পুলিশ রাজশাহী গিয়ে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেছে৷ বাংলাদেশে মালদ্বীপের রাষ্ট্রদূতও রাজশাহী যান এই ঘটনার পর৷ রাউধার বাবা এবং ভাই এখন রাজশাহীতে রয়েছেন৷ রাউধাকে রাজশাহীতেই সমাহিত করা হয়েছে৷

রাউধার বাবা মোহাম্মাদ আথিফ মঙ্গলবার রাজশাহীতে সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘আমার মেয়ে আত্মহত্যা করতে পারে না৷ তাঁকে হত্যা করা হয়েছে৷ লাশ দেখার সময়ও আমার এ রকম মনে হয়েছে৷ তাকে গলাটিপে হত্যা করে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলানো হয়েছে৷ এমনকি তাঁর ঘরের দরজা খোলার জন্য কোনও ভাঙা অংশও পাওয়া যায়নি৷ ধাক্কা দিলেতো দরজার ছিটকানি ভেঙে যাবে৷ সেটাও ঠিক রয়েছে৷''

তিনি বলেন, ‘‘আবার রাতের খাওয়ার জন্য সে রান্নাও করেছে৷ তাঁর মায়ের সঙ্গে কথা হয়েছে, তখন সে কয়েকদিনের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার কথা বলেছে৷ তাহলে সে কেন আত্মহত্যা করবে? সে মানসিকভাবে খুবই শক্ত প্রকৃতির মেয়ে৷ তাঁর চলাফেরা এখানকার পরিবেশের সঙ্গে মিলতো না৷ এই কারণে সে পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাওয়াতে পারতো না৷''

এদিকে, শনিবার মোহাম্মাদ আথিফ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমি নিজেও একজন চিকিৎসক৷ তাই এব্যাপারে আমার অবস্থান স্পষ্ট৷ এর বাইরেও রাউধার গলায় আঘাতের চিহ্ন আছে৷ আমি ময়না তদন্তকারী চিকিৎসকদের কাছে মৃতদেহের ছবি দেখতে চেয়েছি কিন্তু তারা একটা ছবিও দেখাতে পারেনি৷ পুলিশও না৷ আর তাঁর কক্ষ ভেঙে মরদেহ উদ্ধারের কোনো প্রমাণ নেই৷ আত্মহত্যার ঘটনা সাজানো হয়েছে৷''

অডিও শুনুন 04:54

‘মিডিয়ার সঙ্গে কোনও কথা বলতে রাজি হননি মালদ্বীপের দুই পুলিশ কর্মকর্তা’

তিনি বলেন, ‘‘রাউধা আত্মহত্যা করেনি৷ আমি নিশ্চিত তাঁকে হত্যা করা হয়েছে৷ আমি রাজশাহী পুলিশের সঙ্গে কথা বলেছি৷ হত্যা মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি৷ যত দ্রুত সম্ভব হত্যা মামলা দায়ের করব৷ আর আমার অনুরোধেই মালদ্বীপ পুলিশ রাজশাহীতে এসেছে৷''

হত্যার পিছনে কী কারণ থাকতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘কারণ আমার কাছে এখনো স্পষ্ট নয়৷ তদন্ত চলছে৷ আমাদের তদন্ত শেষ হওয়া পর্যন্ত দেখতে হবে৷''

তিনি মডেল এবং তাঁর পোশাকের কারণে হতে পারে কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে রাউধার বাবা বলেন, ‘‘আমি নিশ্চিত নই৷''

রাজশাহীর সাংবাদিক দুলাল আব্দুল্লাহ ডয়চে ভেলেকে জানান, মালদ্বীপ থেকে আসা দুই পুলিশ কর্মকর্তা মঙ্গলবার ইসলামী মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রী হোস্টেলের ২০৯ নম্বর রুমটি পরিদর্শন করেন৷ এ সময় তারা রুমের দরজাটি বেশ কয়েকবার ধাক্কা দিয়ে দেখেন৷ সেই সঙ্গে রুমের ভেতরের জানালাসহ তাঁর ব্যবহৃত জিনিসপত্রগুলো ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করেন৷ একই সঙ্গে তারা রাউধার মৃত্যুর তদন্ত সংশ্লিষ্ট রাজশাহী মহানগর পুলিশ কর্মকর্তা, মেডিক্যাল কলেজের কর্মকর্তা, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেছেন৷ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করেছেন৷ এসময় মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক রাশেদুল হকসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন৷ তবে এ বিষয়ে মিডিয়ার সঙ্গে কোনো কথা বলতে রাজি হননি মালদ্বীপের দুই পুলিশ কর্মকর্তা৷ তারা শুক্রবার দেশে ফিরে গেছেন৷''

অডিও শুনুন 00:49

‘আমরা অপমৃত্যুর মামলা ধরেই তদন্ত করছি’

তিনি আরো বলেন, ‘‘ইসলামী ব্যাংক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রাউধা মডেল হওয়ায় বিব্রত ছিল৷ তারা সংবাদ মাধ্যমে সব সফলতার খবর পাঠালেও রাউধা যে আন্তর্জাতিক মডেল সে খবর কখনোই জানায়নি৷ আর তাঁর ড্রেস নিয়েও তাদের অস্বস্তি ছিল৷ ওই কলেজের নিজস্ব ড্রেসকোড আছে৷''

রাউধা আত্মহত্যার পর সিলেটের শাহ মখদুম থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে৷ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই রাশেদুল হক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা অপমৃত্যুর মামলা ধরেই তদন্ত করছি৷ এখানো রাউধার পরিবার আমাদের কাছে অভিযোগ করেনি যে রাউধাকে হত্যা করা হয়েছে৷ অভিযোগ করলে আমরা তা দেখব৷'' এর বেশি কিছু তিনি বলতে রাজি হননি৷

উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালে ১৮ মে জন্ম মালদ্বীপের মেয়ে রাউধা আথিফের৷ পরিবারে দুই ভাই'র মধ্যে একমাত্র বোন রাউধা আথিফ৷ এমবিবিএস-এ ভর্তি হওয়ার পর গত বছরের ১৪ জানুয়ারি থেকে রাউধা ইসলামী মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রী হোস্টেলের ২০৯ নম্বর রুমে থাকতো৷ ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে বিশ্বখ্যাত ‘ভোগ' ম্যাগাজিনের ভারতীয় সংস্করণে মডেল হয়েছিলেন তিনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও