1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

‘‘আমি ঠিক এই ধরণের খেলা ভালোবাসি’’: ল্যোভ

বিশ্বের শ্রেষ্ঠ দলগুলির সঙ্গে পাঞ্জা লড়াটা জার্মান কোচ ইওয়াখিম ল্যোভ’এর কাছে একটি বিশেষ চ্যালেঞ্জ৷ যুগপৎ তিনি আর্জন্টিনার অফেন্সিভের প্রভূত প্রশংসা করেছেন: ‘‘ওদের যে সব অফেন্সের খেলোয়াড় আছে তারা প্রায় তুলনাহীন৷’’

default

ভক্তদের প্রতীক্ষা (ফাইল ছবি)

তিনি বলেন, ‘‘আমি যখন দেখি, মিলিটো'কে বসিয়ে রাখা হয়েছে, তখন সেটা দলের অবিশ্বাস্য উৎকর্ষের একটা নিদর্শন৷'' এই ‘আগ্রাসী শক্তির' মুখোমুখি হয়ে শুধু লিওনেল মেসি'র ওপর চোখ রাখলে চলবে না, বলেছেন ল্যোভ: ‘‘শুধু মেসি'কে নিয়ন্ত্রণ করাই শক্ত নয়৷ টেভেজ, হিগুয়াইন কিংবা রড্রিগেজ'ও একটি খেলার নিষ্পত্তি একাই করতে পারে৷''

সবাইকে ডিফেন্ড করতে হবে

কাজেই জার্মানির নিজের খেলা সম্পর্কে ল্যোভের বক্তব্য: ‘‘দলের সবাইকে ডিফেন্ড করতে হবে৷ বল যখন আমাদের দখলে, তখন সবাইকেই সংশ্লিষ্ট হতে হবে - এবং আমরা যখন ডিফেন্সিভে, তখনও৷ বল খোয়ানোর পর আমাদের দাঁড়িয়ে থাকলে চলবে না, সকলকেই বলের পিছনে এসে দাঁড়াতে হবে৷ নয়তো আর্জেন্টিনার বিরুদ্ধে আমাদের কোনো চান্স নেই৷'' - দলের সাতজন খেলোয়াড়ের হলুদ কার্ড রয়েছে, কাজেই শনিবারের খেলায় আবার হলুদ কার্ড দেখলে তাদের সেমিফাইনালে বাদ পড়তে হতে পারে৷ তবুও ল্যোভ ভয়ে ভয়ে খেলার পক্ষপাতী নন৷ ৩১ বছর বয়সের ডিফেন্ডার আর্নে ফ্রিডরিশ'ও তাই বলেছেন: ‘‘আমাদের সাহসী হয়ে ট্যাকলিং'এ যেতে হবে, তা যার হলুদ কার্ডই থাক না কেন৷''

তারুণ্য দিয়ে অনেক দূর যাওয়া সম্ভব

জার্মান ফুটবলের কাইজার বা সম্রাট ফ্রানৎস বেকেনবাউয়ার স্বয়ং জার্মান দলের খেলা দেখে মুগ্ধ৷ তারা এযাবৎ যেমন অদম সাহসে সামনের দিকে খেলেছে, সেটাই তাদের শনিবারেও করতে হবে৷ তাহলেই তাদের জেতার সম্ভাবনা খুব খারাপ হবে না৷ তাদের অভিজ্ঞতা নেই তো কি হয়েছে? তারুণ্য দিয়ে অনেক দূর যাওয়া সম্ভব, বলে মনে করেন বেকেনবাউয়ার৷ দেখা যাক তাঁর ফুটবল উত্তরসূরীরা তাঁর মান রাখতে পারে কিনা৷ মাঠে নামবে সম্ভবত এরা: গোলে মানুয়েল নয়ার; চারজনের ডিফেন্সের সারিতে ফিলিপ লাম, পের মের্টেসাকার, আর্নে ফ্রিডরিশ এবং জেরোম বোয়াটেং; তার সামনে স্টপার পোজিশনে সামি খেদিরা এবং বাস্টিয়ান শোয়াইনস্টাইগার; এর পর হাফ পোজিশনে থমাস ম্যুলার, মেসুত ওয়েজিল এবং লুকাস পোডোলস্কি; একমাত্র ফরোয়ার্ড, মিরোস্লাভ ক্লোজে৷

মারাদোনার অস্ত্রসম্ভার

স্বয়ং দিয়েগো মারাদোনা'ও এবার থমাস ম্যুলারের নাম ও কীর্তি সম্পর্কে সচেতন হয়েছেন৷ বলেছেন, ছেলেটা দৌড়য় ভালো, তবে পায়ে বল নিয়ে দৌড়নো আরেক কথা৷ মারাদোনার মূল চিন্তা ছিল লিওনেল মেসির ঠাণ্ডা লাগা নিয়ে - সেটা অন্তত ঘুচেছে৷ মেসির সঙ্গে এ্যাটাকে থাকবে কার্লোস টেভেজ এবং গঞ্জালো হিগুয়াইন৷ এর পরেও মারাদোনার হাতে থাকবে আরো তিনজন টপ ফরোয়ার্ড: সের্জিও আগুয়েরো, দিয়েগো মিলিটো এবং মার্টিন পালের্মো৷ এ'রকম ফরোয়ার্ড লাইনকে নিরস্ত্রীকরণ চুক্তির আওতায় ফেলা চলে৷

আর জার্মানির হাতে রইল এই বিশ্বকাপের একমাত্র খাঁটি স্টার এবং আবিষ্কার: মেসুত ওয়েজিল৷

প্রতিবেদন: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: হোসাইন আব্দুল হাই

সংশ্লিষ্ট বিষয়