1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আমার দেখা ‘ভাসমান স্কুল’

২০০৭ সালের কথা৷ বাংলাদেশে শোরগোল এক প্রকল্প নিয়ে৷ নৌকার মধ্যে স্কুল তৈরি করেছে এক যুবক৷ আর সেই স্কুল একের পর এক অ্যাওয়ার্ড, ফান্ড পাচ্ছে ইন্টেল, গেটস ফাউন্ডেশনের মতো প্রতিষ্ঠান থেকে৷ তাই গিয়েছিলাম ‘ভাসমান স্কুল’ দেখতে৷

সিধুলাই স্বনির্ভর সংস্থা৷ চলনবিল এলাকায় কাজ করে সংস্থাটি৷ স্থপতি মোহাম্মদ রেজওয়ান এর প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী৷ খুব দ্রুতই তাঁর ‘ভাসমান স্কুল' প্রকল্প নাম করে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে৷ একদিন গেটস ফাউন্ডেশন থেকে ‘মিলিয়ন ডলার ফান্ড’ পান তো আরেকদিন ইন্টেল তাঁকে অ্যাওয়ার্ড দেয়৷ অথচ বাংলাদেশের সাংবাদিকরা প্রকল্প সম্পর্কে তেমন একটা জানেই না৷

চলনবিল ঢাকা থেকে কাছাকাছি কোনো জায়গা নয়৷ আর রেজওয়ান তখন একটু প্রচারবিমুখ ধরনের ছিলেন৷ মোবাইলে তাঁকে পাওয়া যায় না, দেশি গণমাধ্যমের ইমেলের উত্তরও তেমন একটা আসে না৷ ফলে আমার প্রিয় আলোকচিত্রী সাংবাদিক সালাউদ্দিন টিটুর সঙ্গে রওয়ানা দেই চলনবিলের উদ্দেশ্যে৷ ‘ভাসমান স্কুল' নিজেরাই খুঁজে দেখবো৷

Organisation Shidhulai Swanirvar Sangstha in Bangladesh

ভাসমান স্কুলের মধ্যে চলছে পাঠদান

২০০৭ সালের কথা৷ পুরোটা এখন মনে করা সম্ভব নয়৷ তবে নাটোর থেকে চলনবিলের দিকে কয়েক কিলোমিটার যাওয়ার পরেই আমরা পেয়েছিলাম ভাসমান স্কুলের খোঁজ৷ একটি নৌকার ছাদে রয়েছে কয়েকটি সোলার প্যানেল৷ আর ভেতরে একটি কম্পিউটার৷ ছোট্ট একটি নদীর ঘাঁটে দাঁড়িয়েছিল নৌকাটি৷ ভেতরে আবার কম্পিউটারও রয়েছে৷ আর কয়েকজন শিক্ষার্থীকেও পেয়ে যাই নৌকার মধ্যে৷

শুরুর দিকে রেজওয়ান তাঁর প্রকল্পকে একটি বড় করেই দেখাচ্ছিলেন৷ তবে তাঁর ধারণাটা অবশ্যই ব্যতিক্রমী এবং আধুনিক ও পরিবেশবান্ধব৷ তবে একেবারে অভিনব নয়৷ নদীমাতৃক বাংলাদেশে বহু আগে থেকেই নৌকায় বেচাবিক্রির প্রচলন রয়েছে৷ দক্ষিণাঞ্চলে নৌকায় করে বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিত্যপণ্য বিক্রি করতেন সওদাগররা৷ আর বেদেরা নৌকায় বাস করছেন বহুকাল ধরে৷

রেজওয়ান তাঁর ভাসমান স্কুল প্রকল্পে এই ধারণাটা কাজে লাগিয়েছেন৷ আর আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এটি কয়েকটি কারণে খুব দ্রুত ব্যতিক্রমী প্রকল্প হিসেবে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে৷

প্রথমত, জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতি মোকাবিলার এক উদ্যোগ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে এটি৷ পানি বাড়বে, ফলে স্কুল শিক্ষার্থীরা আরো অসহায় হয়ে পড়বে৷ এই অবস্থায় ভাসমান স্কুল শিক্ষার্থীদের জন্য এক চমৎকার বিকল্প৷

Organisation Shidhulai Swanirvar Sangstha in Bangladesh

ভাসমান হলেও তথ্য প্রযুক্তি সুবিধা রয়েছে এই স্কুলে

দ্বিতীয়ত, রেজওয়ানের স্কুলগুলো চলে সৌরশক্তিতে৷ ফলে নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যবহারের এক চমৎকার উদাহরণ হতে পারে এগুলো৷ শুধু তাই নয়, এই নৌকাগুলোর সোলার প্যানেল আবার বিশেষ ধরনের বাতি চার্জ দিতে ব্যবহার হয়৷ এসব বাতি জ্বালিয়ে রাতের বেলা শিক্ষার্থীরা বাড়িতে পড়ালেখা করতে পারে৷

তৃতীয়ত, তথ্য প্রযুক্তির সুবিধা একেবারে সাধারণের দোরগোড়ায় নিয়ে যাওয়ার এক উপায় বের করেছেন রেজওয়ান৷ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংগঠনের কাছে এটাও গুরুত্বপূর্ণ৷

এ সব কারণে রেজওয়ান খুব দ্রুতই আন্তর্জাতিক খ্যাতি অর্জন করেছেন৷ মার্কিন টেলিভিশন নেটওয়ার্ক সিএনএন থেকে শুরু করে অনেক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে তাঁর প্রকল্প এবং তাঁকে নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন, ফিচার করছে, করেছে৷ আজ বিশ্ব শিশু দিবসে ইউনিসেফের ওয়েবসাইটে শোভা পাচ্ছে ‘ভাসমান স্কুল' নিয়ে রেজওয়ানের লেখা একটি নিবন্ধ৷ টুইটারে টপ ট্রেন্ড এটি৷

আমার মনে আছে, চলনবিলের কাছে ঘোরাঘুরির সময় রেজওয়ানের কর্মীরা খুব দ্রুতই আমাদের শনাক্তে সক্ষম হয়েছিলেন৷ যদিও আমরা তাঁদের না জানিয়েই ভাসমান স্কুল প্রকল্প দেখতে যাই৷ এরপর তারা তাদের মতো করে আরো নৌকা আমাদের ঘুরিয়ে দেখিয়েছেন৷ সেসময় চলনবিলের একটি নৌকায় বসে ইন্টারনেট ব্যবহার করে আমি মুগ্ধ হয়েছিলাম৷ কথা বলেছি স্কুল পড়ুয়া ছেলে-মেয়েদের সঙ্গে৷ তারা নৌকায় থাকা লাইব্রেরি থেকে বই নিয়ে পড়ে৷ আবার ফেরত দেয়৷

DW Bengali Arafatul Islam

ডয়চে ভেলের সাংবাদিক আরাফাতুল ইসলাম

শুরুতেই বলেছি, রেজওয়ান তাঁর প্রকল্প নিয়ে একটু বাড়িয়ে বলতেন৷ আমি সেটার প্রমাণ পেয়েছিলাম৷ তিনি ‘ভাসমান স্কুলের' যে সংখ্যা বিদেশি গণমাধ্যমকে বলতেন, ততগুলো নৌকা তাঁর সেসময় ছিল না৷ এখন আছে কিনা জানি না৷ তবে এ ধরনের প্রকল্পের দরকার বাংলাদেশে নিশ্চয়ই রয়েছে৷ বিশেষ করে শিশুরা এই প্রকল্প থেকে অনেক লাভবান হতে পারে৷ তাই শুধু চলনবিল নয়, বাংলাদেশ এবং বিশ্বের আরো বিভিন্ন উন্নয়নশীল দেশ, যেখানে পানির কারণে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখায় বিঘ্ন ঘটছে, সেসব জায়গায় ‘ভাসমান স্কুল' হতে পারে এক চমৎকার সমাধান৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক