1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

‘আমরাই পারি, আমরা পারবো জিততে'

ভারতকে হারিয়ে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠতে পারবে কিনা – ফেসবুকে এ প্রশ্নের উত্তরে বেশিরভাগ বন্ধুই জানিয়েছিলেন যে তাঁরা আশাবাদী৷ কিন্তু খেলা বলছে অন্য কথা৷

ফেসবুকে হাজারো পাঠক তাঁদের মতামত দিয়েছেন৷ যেমন শাহ আলমের মন্তব্য, ‘‘আমাদেরকে জিততেই হবে৷'' আবদুর রহিম, সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ রাসেল, ফকরুল ইসলাম, রাজিবুল হাসান এবং মো.ইসরাফি হোসেনের মতো অনেক ফেসবুকবন্ধুই জানিয়েছেন যে, বাংলাদেশই জিতবে৷ সজীবের মন্তব্য, ‘‘আমরা জিততে জানি, আমরা জিতবো৷''

পাঠক ইব্রাহিম লিখেছেন, ‘‘মসজিদে গিয়ে ফজরের নামাজের পর ইমাম সাহেবকে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের জন্য বিশেষভাবে দোয়া করার অনুরোধ করেছি৷ নিজে করবেন এবং সবাইকে এই কাজটি করার জন্য উৎসাহিত করতে ভুলবেন না প্লিজ....৷''

অন্যদিকে পাঠক রুমি সিং কিন্তু পুরোপুরি নিশ্চিত যে বাংলাদেশ পারবে না৷

বাংলাদেশ আর ভারত দলের ক্রিকেট খেলা নিয়ে ডয়চে ভেলের ফেসবুকে পাঠকদের মতামত বেশ জমে উঠেছে৷ বিশেষ করে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই দেশের ক্রিকেট পাগল বন্ধুদের মধ্যে৷ যেমন পাঠক অনিক খানের মন্তব্য, ‘‘কেন জানি মনে হচ্ছে ভারতের সাথে সেঞ্চুরিটা তামিম/সাকিব করবে...''

মিথুন কুমার বসাকের মন্তব্য, ‘‘গাছে কাঁঠাল গোঁফে তেল৷''

বোরহান একেবারেই নিশ্চত যে বাংলাদেশই জিতবে৷ সৈকত বিশ্বাসের কথা, ‘‘দেখা যাক কী হয়!''

ফেসবুক বন্ধু বেলালের কথা, ‘‘হে আল্লাহ ১৬কোটি মানুষের একটাই চাওয়া, বিশ্বকাপ চাই না, আল্লাহ তুমি শুধু ভারতের অহংকার পতনের জন্য বাংলাদেশকে একটা সুযোগ দাও!''

নওয়াব খানেরও একই মত৷ আর ‘কষ্টের জীবন' নামে ছদ্মবেশে এক বন্ধু লিখেছেন, ‘‘হে আল্লাহ আমরা বিশ্বকাপ চাই না, শুধু ১৯ তারিখের ম্যাচটা যেন আমরা জিততে পারি৷ সেই শক্তিটা বাংলাদেশ টিমকে দিও...! অহংকারীদের অহংকার ভাঙ্গার শক্তিটুকু দিও আমাদের...! যেন আমারাও দেখিয়ে দিতে পারি যে, আমরাও কিছু পারি৷ আইসিসি-র চোখে যেন আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিতে পারি যে, আমরা আর সেই ছোট দল নেই, আমাদের আছে বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার, ইন্ডিয়ার অপমান আর সহ্য হয় না, এবার একটা উপযুক্ত জবাব দিতেই হবে৷'' প্রসেনজিৎ চক্রবর্তীর পাল্টা মন্তব্য, ‘‘তোমাদের স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাবে! এগিয়ে যাও ভারত৷''

সমরজিৎ বিশ্বাসের মন্তব্য, ‘‘জেগে স্বপ্ন দেখো না, হার্ট অ্যাটাক করবে!''

ভারতকে হারিয়ে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠতে পারবে কিনা – এর উত্তরে কুদন মিত্রের মন্তব্য, ‘‘জিতবে ভারত আর বাংলাদেশ বাংলাদেশের মতোই খেলবে৷''

সন্তোশ রায় হৃদয় একজন বাংলাদেশি হিসেবে তাঁর স্বাভাবিক চাওয়া যে বাংলাদেশি জিতুক৷ তবে দেবু মন্ডল বলছেন, ভারতই সেমিফাইনালে যাবে৷ পাঠক মঙ্গলময় মন্ডলও মনে করেন যে, ভারতই জিতবে৷ আর ফেসবুক পাঠক পাভেল কোনোভাবেই হারতে রাজি নন৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘আজকে যদি হারি, তবে ইন্ডিয়ার কাছে হারবো না, দুর্নীতির কাছে হারবো৷ ধিক্কার জানাই দুর্নীতিবাজ আম্পায়ারকে...৷''

মোহাম্মদ সোহেল আহমেদেরও বিশ্বাস বাংলাদেশ জিতবে৷ তিনি সুন্দর করে লিখেছেন, ‘‘বিশ্বাস করছি, বাংলাদেশ জিতবে৷ আর জিতলে কী হবে, তা কে না জানে...এই বছরের সবচেয়ে খুশির দিন হবে আজ৷ আনন্দে চোখ দিয়ে পানি পড়বে, কিন্তু মুখে থাকবে হাসি৷ এমন খুশির কান্না কি প্রতিদিন কাঁদা যায়?''

বাঙালিরা কতটা ক্রিকেট পাগল, তারই ছোট্ট একটি নমুনা এখানে দিয়েছেন ডয়চে ভেলের ফেসবুকে পাঠক সুমন৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘আমি এক রিকশাওয়ালার সাথে কথা বললাম৷ তিনি আজ সারাদিন রিকশা নিয়ে বের হবেন না৷ এতে হয়ত উনার একটা দিন চালাতে কষ্ট হবে, তাও খেলার জন্য একটা দিনের ‘ইনকাম সোর্স' বাদ দেবেন তিনি৷ একজন চায়ের দোকানদারকে চিনি, তিনি দোকান খুলবেন না৷ আর আমি নিজেও অফিসে যাব না...৷''

আশেক ইলাহি মন খারাপ করে লিখেছেন, ‘‘কোনো এক অদৃশ্য কারণে ভালো খেলছে না বাংলাদেশ, কারণটা কী?''

এদিকে পাঠক কামল হোসেন আবার একেবারেই অন্য মন্তব্য করেছেন৷ তাঁর কথা, ‘‘ভারতের কাছে হারতে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের প্রতি হাসিনার নির্দেশ৷ কিন্তু রাজি হয়নি দেশপ্রেমিক মাশরাফিরা...৷''

বাংলাদেশ জিততে পারবে কিনা এ নিয়ে সালাউদ্দিন মোহাম্মদ অনিশ্চত৷ তাঁর মনটা নাকি ধুঁক ধুঁক করছে৷ মাহবুব রুবেল সোজাসুজি জানিয়েছেন যে, বাংলাদেশ জিততে পারবে না৷ তবে আমাদের ফেসবুকবন্ধু সাবরিনা তাজমিন মনে করেন, বাংলাদেশ ‘বাজেভাবে' হারবে৷

৩০০-র উপরে রান৷ তাই কারা জিতবে তা নিয়ে পাঠক সাগরের ভয় লাগছে৷

দেলোয়ার হোসেন মনে করেন, খেলায় রাজনীতি না থাকলে বাংলাদেশিরা পারবে৷

পাঠক মুহিমের মন্তব্য, ‘‘আমাদের টাইগারদের সব কিছুই আছে৷ এখন শুধু দরকার এগিয়ে যাওয়ার জন্য একটু সাহস....নিঃসন্দেহে ভারত একটা ভালো টিম, সেটা মানতেই হবে৷ তবে টাইগাররা কি কম...?

ভারতকে হারিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠতে পারবে কিনা – এই প্রশ্নের উত্তরে রাশেদ আহমেদ আমাদের পাল্টা প্রশ্ন করেছেন, ‘‘কেন বাংলাদেশ জেতার পেছনে কি আপনাদের কোনো সংসয় আছে??

অন্যদিকে বন্ধু এহসানুল করিম বুক ভরা সাহস আর বিশ্বাস নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন এক জোরালো লড়াইয়ের অপেক্ষায়, এক নব অর্জনের প্রতীক্ষায়!

সবশেষে রাসেল জানিয়েছেন, ‘‘ভারত-বাংলাদেশ নিয়া এহন কিছু কমু না....যা কমু খেলার পরে....এখন শুধু শুভ কামনা রইলো টাইগারদের জন্য....৷''

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন