1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আবার পাওয়া গেল এমএইচ৩৭০ বিমানের ধ্বংসাবশেষ?

নিখোঁজ এমইচ৩৭০ বিমান নিয়ে রহস্য কাটছেই না৷ এবার মালয়েশিয়ার যোগাযোগ মন্ত্রীর টুইট বার্তা নিয়ে চলছে আলোচনা৷ মন্ত্রীর দাবি, ২৩৯ জন যাত্রী নিয়ে নিখোঁজ হওয়া বিমানটির ধ্বংসাবশেষের আরেকটি অংশ হয়ত পাওয়া গেছে৷

ভারত মহাসাগরে একটি বোয়িং ৭৭৭ বিমানের একটি অংশ যে পাওয়া গেছে এ সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েই টুইটারে একটি বার্তা দিয়েছেন মালয়েশিয়ার যোগাযোগ মন্ত্রী লিয় টিয়ং লাই৷ বিমানের এ অংশটি পাওয়া গেছে মোজাম্বিক আর মাদাগাস্কারের জলসীমার মধ্যবর্তী অঞ্চলে৷ ধারণা করা হচ্ছে, এটি ২০১৪ সালে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হওয়া এমএইচ৩৭০ বিমানের অংশ হতে পারে৷

তবে গত দু'বছরে এমন অনুমাননির্ভর খবর বেশ কয়েকবারই এসেছে৷ বেশির ভাগ খবরেরই সত্যতা সম্পর্কে শেষ পর্যন্ত আর নিশ্চিত হওয়া যায়নি৷ তাই মালয়েশিয়ার যোগাযোগমন্ত্রী টুইট বার্তায় লিখেছেন, ‘‘সবার প্রতি অনুরোধ, খুঁজে পাওয়া অংশটি সত্যিই এমইচ৩৭০-র অংশ কিনা এ বিষয়ে আমরা এখনো যেহেতু নিশ্চিত হতে পারিনি, তাই দয়া করে কেউ এ বিষয়ে অযৌক্তিক অনুমান করবেন না৷''

মালয়েশিয়ার যোগাযোগ মন্ত্রীর টুইট বার্তা আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের নজর কেড়েছে৷ সব মাধ্যমেই প্রকাশিত হয়েছে এ খবর৷ অস্ট্রেলিয়া জানিয়েছে, ভারত মহাসাগরে খুঁজে পাওয়া বিমানের ধ্বংসাবশেষটি নিয়ে তারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে৷ পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষেই জানা যাবে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করা বিমানের অংশটি আদৌ এমইচ৩৭০-র কিনা৷

২০১৪ সালের ৮ মার্চ কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিংয়ের উদ্দেশ্যে উড়ে যায় মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের এমইচ৩৭০ বিমান৷ কিন্তু যাত্রা শুরুর কিছুক্ষণ পরই উধাও হয়ে যায় বিমানটি৷ তদন্তকারীদের অনুমান, প্রতিকুল আবহাওয়ার কারণে ভারত সাগরের কাছাকাছি গিয়ে পাইলট বিমানের দিক পরিবর্তন করেছিলেন৷ তারপর থেকেই ২৩৯জন যাত্রীসহ নিখোঁজ হয়ে যায় বিমানটি৷

বেশ কয়েকবার বিভিন্ন স্থান থেকে বিমানের ধ্বংসাবশেষ পাওয়ার খবর এলেও এ পর্যন্ত শুধু একটি খবর সম্পর্কেই নিশ্চিত হওয়া গেছে৷ ২০১৫ সালের জুলাই মাসে ভারত মহাসাগরের রিইউনিয়ন দ্বীপের কাছে বিমানের একটি পাখা খুঁজে পাওয়া যায়৷ ওই পাখাটি যে নিখোঁজ এমএইচ৩৭০ বিমানেরই সে সম্পর্কে তদন্তকারীরা নিশ্চিত৷

এসিবি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন