1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

আফ্রিকায় ‘শকুনি বাঁচাও' আন্দোলন

শকুনি বলতেই অনেক মানুষের গা ঘিন ঘিন করে ওঠে, বা ভয় লাগে! আসলে এই পাখিগুলো জীবজগৎ ও মানুষের পক্ষে অতি উপকারী৷ কিন্তু আফ্রিকান ওঝাদের টোটকা ওষুধ তৈরির জন্য প্রতিবছর শ'য়ে শ'য়ে শকুনি মারা হয়৷

ফিলি মথলাদেসি তাঁর অ-কেতাবি জড়িবুটি কেনার জন্য জোহানেসবার্গের মুতি বাজারে যান৷ ফিলি হলেন একজন সাঙ্গোমা, অর্থাৎ প্রথাগত আফ্রিকান ওঝা৷ এই বাজারে তিনি তাঁর ওষুধের সব রকম উপাদানই পান, যদিও সেজন্য কিছু কিছু বিরল প্রজাতিকে প্রাণ দিতে হয়৷ তার মধ্যে শকুনিও রয়েছে৷ এই ধরনের একটি পাখি কিনতে পড়ে প্রায় ২০০ ইউরো৷

ফিলি মথলাদেসি বলেন: ‘‘ওরা প্রধানত চোখগুলো আর মাথাটা ব্যবহার করে৷ তাতে নাকি ভবিষ্যৎ বলে দেওয়া যায় – এই পাখিগুলো বহুদূর থেকে দেখতে পায় কিনা৷ কাজেই এটা অন্যান্য জড়িবুটির সঙ্গে দিতে হয়৷ পুড়িয়ে গন্ধ শোঁকা যায়৷ সেই ধোঁয়া যখন নাকে-মুখে ঢোকে, তখন স্বভাবতই ভবিষ্যৎ পর্যন্ত দেখা যায়৷''

আসলে সাঙ্গোমা-রা ওষুধের জন্য কোনো জীবজন্তু মারতে পারেন না, জানালেন ফিলি৷ কিন্তু চাহিদা এতো বেশি যে, প্রতিবছর শয়ে শয়ে শকুন মেরে এ ধরনের বাজারে বিক্রি করা হয়৷ শকুনদের জন্য এর ফলশ্রুতি ভয়াবহ৷ আফ্রিকায় গত ত্রিশ বছরে শকুনদের সংখ্যা প্রায় ৮০ শতাংশ কমে গেছে৷

বিষ দিয়ে মারা

আন্দ্রে বোথা ‘এনডেঞ্জারড ওয়াইল্ডলাইফ ট্রাস্ট' প্রকৃতি সংরক্ষণ সংগঠনের কর্মী৷ তিনি যে কর্মসূচির দায়িত্বে রয়েছেন, তার উদ্দেশ্য হল, আফ্রিকার শকুনদের রক্ষা করা৷ শকুনরা হল মহাদেশটির আবর্জনা পরিষ্কার করার দায়িত্বে৷ তারা জন্তুজানোয়ারের মরাপচা লাশ খেয়ে তা থেকে রোগ ছড়ানো রোধ করে৷ শকুনদের সবচেয়ে বড় শত্রু হল বিষ, বললেন বোথা, সহজে পাওয়া যায়, আবার সস্তাও বটে৷ তিনি বলেন, ‘‘এখানে যা দেখছেন, তা হল এই যে, এই পাখিগুলোকে খাবারের লোভ দেখিয়ে কাছে নিয়ে আসাটা কতো সহজ৷ দুঃখের বিষয়, চোরাশিকারীরাও সে ভাবেই কাজ করে৷ একমাত্র পার্থক্য হল, ওরা বিষাক্ত টোপ ব্যবহার করে৷ পাখিগুলোকে মেরে ফেলে, তারপর সেগুলোকে বেচে টাকা পায়৷''

শকুনদের রক্ষা করা খুব শক্ত কাজ৷ পাখিগুলো দিনে চারশো কিলোমিটার পর্যন্ত উড়তে পারে৷ কাজেই শকুন মরলে তার প্রভাব কোনো দেশে সীমাবদ্ধ থাকে না৷ যেগুলো বাঁচে, তাদের অনেকেই শেষমেষ ব্রায়ান জোনস-এর হাতে এসে পড়ে৷ ব্রায়ান আহত জন্তুজানোয়ারদের জন্য একটি পুনর্বাসন কেন্দ্র তৈরি করেছেন৷ বহু শকুন হাই-টেনশন বিদ্যুতের তারে লেগে প্রাণ কিংবা অঙ্গ হারায়৷ ব্রায়ানের পুনর্বাসন কেন্দ্রে তাদের খাইয়ে-দাইয়ে সুস্থ করে আবার সম্ভব হলে ছেড়ে দেওয়া হয়৷ যদিও তাদের ভবিষ্যৎ যে কতোটা নিশ্চিত, তা বলা শক্ত৷

মোহোলোহোলো ওয়াইল্ডলাইফ রিহ্যাবিলিটেশন সেন্টারের প্রধান ব্রায়ান জোনস বলেন: ‘‘বাসা ছাড়ার পর পাখিগুলোর পঁচাত্তর ভাগ এক বছরও বাঁচে না৷ বিশ্বব্যাপী শিকারী পাখিদের নিয়ে গবেষণা করে এ কথা জানা গিয়েছে৷ কাজেই তাদের সংখ্যা আবার বাড়বে কী করে? গতবছর এখানে প্রায় দু'হাজার শকুনিকে বিষ দিয়ে মারা হয়েছে৷ সেটা কী দিয়ে পূরণ করব? ওদিকে প্রতিবছর অবস্থা আরো খারাপ হচ্ছে৷ এটা একটা সংকট৷ শিগগীরই আকাশে আর কোনো শকুন দেখতে পাওয়া যাবে না৷''

উইং ট্যাগ, রিং, হারনেস

পশুপাখি সংরক্ষণকারীদের একটা গুরুত্বপূর্ণ কাজ হল মানুষজনকে শেখানো৷ শিশু ও যুবগোষ্ঠীরা পাখিগুলোর সংস্পর্শে এসে শেখে, এই শকুনরা আফ্রিকার প্রকৃতির জন্য কতোটা অপরিহার্য৷ শকুনরা কীভাবে বেঁচে থাকে, তা নিয়েও গবেষণা করা অত্যন্ত জরুরি৷ এক পর্যায়ে গবেষক তা নিয়ে ব্যস্ত৷ সেজন্য প্রচুর ধৈর্যের প্রয়োজন আর সেই সঙ্গে দৌড়নোর ক্ষমতা!

বোথা বলেন: ‘‘আমরা এই পাখিগুলোকে ধরে উইং ট্যাগ লাগাই, পায়ে রিং লাগাই, কিছু কিছু ক্ষেত্রে হারনেস পরাই, যাতে তারা কোথায় যাচ্ছে, তা ট্র্যাক করা যায়: দক্ষিণ আফ্রিকায় তাদের রেঞ্জ বরাবর তারা কোথায় তাদের খাবার পায় - এই সব জুড়ে আমরা একটা ধারণা পাই, তারা কোথায় বিপদে পড়তে পারে৷''

সেই সব বিপদগুলোকে যতোদূর সম্ভব দূরে রাখাই হল আন্দ্রে বোথা-র লক্ষ্য, যাতে আফ্রিকার আকাশে ভবিষ্যতেও শকুনিদের ধীরগতিতে চক্কর দিতে দেখা যায়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়