1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আফগানিস্তানে সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে রকেট হামলা

নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে আজ অনুষ্ঠিত হচ্ছে আফগানিস্তানের সংসদ নির্বাচন৷ দিনের শুরুতেই কাবুলে ন্যাটো সদর দপ্তরে রকেট হামলা হয়েছে বলে খবর৷ নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন ওয়াশিংটন৷

Afghan, parliamentary, election, Kabul, Afghanistan, তালেবান, আফগান, সংসদ, নির্বাচন

প্রার্থীদের পোস্টারে ছেয়ে আছে সারাদেশ

আফগান সংসদের নিম্ন কক্ষের নাম ওলেসি জির্গা৷ আসন সংখ্যা ২৪৯টি৷ শনিবারের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আড়াই হাজারেরও বেশি প্রার্থী৷ এদের মধ্যে ৪০৬ জন নারী প্রার্থী লড়ছেন ৬৮ টি আসনে৷ দেশটির ক্ষমতা থেকে চরমপন্থি তালেবান গোষ্ঠীর অপসারণের পর এটি দ্বিতীয় সংসদ নির্বাচন৷ দেশটির স্বাধীন নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, স্থানীয় সময় সকাল সাতটা থেকে ৫,৮১৬ টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শুরু হবে৷ তবে তালেবানের নিয়ন্ত্রণে থাকায় এক হাজারেরও বেশি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ সম্ভব হবে না৷ এদিকে, ভোটের আগেরদিন কাবুল, গজনি এবং ঘোর প্রদেশ থেকে বেশ কিছু ভুয়া ভোটার এবং নির্বাচন পর্যবেক্ষকের পরিচয় পত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ৷

অন্যদিকে, নির্বাচনের মাত্র একদিন আগে প্রার্থীদের একজনকে অপহরণ করেছে তালেবান৷ লাগমান প্রদেশে ভোট প্রার্থী আব্দুল রহমান হায়াতকে অপহরণের দায়িত্ব স্বীকার করেছে তালেবান৷ তাদের মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ বার্তা সংস্থা এএফপি'কে টেলিফোনে বলেছে, ‘‘আমরা হায়াতুল্লাহ হায়াতকে অপহরণ করেছি৷'' এর আগে বাঘদিস প্রদেশে ১৮ জন নির্বাচনী কর্মীকে তারা অপহরণ করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে৷ এছাড়া ইতিমধ্যে তালেবানের হাতে খুন হয়েছে তিন জন প্রার্থী৷

শনিবার ভোটের দিন নির্বাচন কেন্দ্রসমূহে হামলা চালানোর হুমকি দিয়েছে তারা৷ বিশেষ করে নির্বাচনী কর্মী এবং নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরাই হবে এই হামলার লক্ষ্যবস্তু বলে ঘোষণা দিয়েছে তালেবান৷ তাই নির্বাচনকে ঘিরে সারাদেশেই বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা প্রহরা৷ সারাদেশে মোতায়েন করা হয়েছে ৬৩ হাজার সেনা এবং ৫২ হাজার পুলিশ সদস্য৷ ভোটারদের মধ্যেও দেখা গেছে বেশ উৎসাহ ও উদ্দীপনা৷ কাবুলে ১৯ বছর বয়সি আব্দুল মোসাওয়ের বললেন, ‘‘আমি তালেবানের ভয়ে ভীত নই৷ আমি আমার ভোট দেব৷ এই সংসদ নির্বাচনের ব্যাপারে আমি আশাবাদী৷ কারণ এবারের ভোটে অনেক তরুণ এবং দেশপ্রেমী প্রার্থী রয়েছে৷''

হোয়াইট হাউস মুখপাত্র রবার্ট গিবস বলেন, ‘‘আমরা এই নির্বাচনের সাফল্য প্রত্যাশা করি৷ তবে দেশটির কিছু জায়গায় নিরাপত্তা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক৷'' তিনি বলেন, ‘‘তালেবান এতোটাই নৃশংস যে, প্রতিদিনই তারা আফগান জনগণের ক্ষতি সাধনে তৎপর৷ তাই আফগান জনগণ তাদেরকে আর কখনো ক্ষমতায় দেখতে চায় না৷ এ কারণেই এই নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ৷'' পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের দায়িত্বপ্রাপ্ত মার্কিন বিশেষ দূত রিচার্ড হলব্রুক বলেছেন, ‘‘যখন যুদ্ধ ছিল না তখনও সেখানে নির্বাচন হয়েছে ত্রুটিপূর্ণ৷ তাই এই নির্বাচনের ক্ষেত্রেও আমরা পুরোপুরি পরিশুদ্ধতা আশা করতে পারি না৷'' তবে ২০০৯ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের চেয়ে এটি অধিকতর ভালো হবে বলে প্রত্যাশা ওয়াশিংটনের৷

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন