আফগানিস্তানে সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে রকেট হামলা | বিশ্ব | DW | 18.09.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আফগানিস্তানে সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে রকেট হামলা

নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে আজ অনুষ্ঠিত হচ্ছে আফগানিস্তানের সংসদ নির্বাচন৷ দিনের শুরুতেই কাবুলে ন্যাটো সদর দপ্তরে রকেট হামলা হয়েছে বলে খবর৷ নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন ওয়াশিংটন৷

Afghan, parliamentary, election, Kabul, Afghanistan, তালেবান, আফগান, সংসদ, নির্বাচন

প্রার্থীদের পোস্টারে ছেয়ে আছে সারাদেশ

আফগান সংসদের নিম্ন কক্ষের নাম ওলেসি জির্গা৷ আসন সংখ্যা ২৪৯টি৷ শনিবারের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আড়াই হাজারেরও বেশি প্রার্থী৷ এদের মধ্যে ৪০৬ জন নারী প্রার্থী লড়ছেন ৬৮ টি আসনে৷ দেশটির ক্ষমতা থেকে চরমপন্থি তালেবান গোষ্ঠীর অপসারণের পর এটি দ্বিতীয় সংসদ নির্বাচন৷ দেশটির স্বাধীন নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, স্থানীয় সময় সকাল সাতটা থেকে ৫,৮১৬ টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শুরু হবে৷ তবে তালেবানের নিয়ন্ত্রণে থাকায় এক হাজারেরও বেশি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ সম্ভব হবে না৷ এদিকে, ভোটের আগেরদিন কাবুল, গজনি এবং ঘোর প্রদেশ থেকে বেশ কিছু ভুয়া ভোটার এবং নির্বাচন পর্যবেক্ষকের পরিচয় পত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ৷

অন্যদিকে, নির্বাচনের মাত্র একদিন আগে প্রার্থীদের একজনকে অপহরণ করেছে তালেবান৷ লাগমান প্রদেশে ভোট প্রার্থী আব্দুল রহমান হায়াতকে অপহরণের দায়িত্ব স্বীকার করেছে তালেবান৷ তাদের মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ বার্তা সংস্থা এএফপি'কে টেলিফোনে বলেছে, ‘‘আমরা হায়াতুল্লাহ হায়াতকে অপহরণ করেছি৷'' এর আগে বাঘদিস প্রদেশে ১৮ জন নির্বাচনী কর্মীকে তারা অপহরণ করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে৷ এছাড়া ইতিমধ্যে তালেবানের হাতে খুন হয়েছে তিন জন প্রার্থী৷

শনিবার ভোটের দিন নির্বাচন কেন্দ্রসমূহে হামলা চালানোর হুমকি দিয়েছে তারা৷ বিশেষ করে নির্বাচনী কর্মী এবং নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরাই হবে এই হামলার লক্ষ্যবস্তু বলে ঘোষণা দিয়েছে তালেবান৷ তাই নির্বাচনকে ঘিরে সারাদেশেই বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা প্রহরা৷ সারাদেশে মোতায়েন করা হয়েছে ৬৩ হাজার সেনা এবং ৫২ হাজার পুলিশ সদস্য৷ ভোটারদের মধ্যেও দেখা গেছে বেশ উৎসাহ ও উদ্দীপনা৷ কাবুলে ১৯ বছর বয়সি আব্দুল মোসাওয়ের বললেন, ‘‘আমি তালেবানের ভয়ে ভীত নই৷ আমি আমার ভোট দেব৷ এই সংসদ নির্বাচনের ব্যাপারে আমি আশাবাদী৷ কারণ এবারের ভোটে অনেক তরুণ এবং দেশপ্রেমী প্রার্থী রয়েছে৷''

হোয়াইট হাউস মুখপাত্র রবার্ট গিবস বলেন, ‘‘আমরা এই নির্বাচনের সাফল্য প্রত্যাশা করি৷ তবে দেশটির কিছু জায়গায় নিরাপত্তা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক৷'' তিনি বলেন, ‘‘তালেবান এতোটাই নৃশংস যে, প্রতিদিনই তারা আফগান জনগণের ক্ষতি সাধনে তৎপর৷ তাই আফগান জনগণ তাদেরকে আর কখনো ক্ষমতায় দেখতে চায় না৷ এ কারণেই এই নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ৷'' পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের দায়িত্বপ্রাপ্ত মার্কিন বিশেষ দূত রিচার্ড হলব্রুক বলেছেন, ‘‘যখন যুদ্ধ ছিল না তখনও সেখানে নির্বাচন হয়েছে ত্রুটিপূর্ণ৷ তাই এই নির্বাচনের ক্ষেত্রেও আমরা পুরোপুরি পরিশুদ্ধতা আশা করতে পারি না৷'' তবে ২০০৯ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের চেয়ে এটি অধিকতর ভালো হবে বলে প্রত্যাশা ওয়াশিংটনের৷

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন