1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আফগানিস্তানে মাইনের আঘাতে হতাহতের সংখ্যা বাড়ছে

আন্তর্জাতিক রেড ক্রস'এর সূত্র অনুযায়ী আফগানিস্তানে পথের ধারে রাখা বোমা বা মাইন'এর আঘাতে হতাহতের সংখ্যা বেড়ে চলেছে৷ নিরীহ মানুষ বা সৈন্য – কেউই এই মরণ-ফাঁদ থেকে রেহাই পাচ্ছে না৷

default

একটি ভুল পদক্ষেপের পরিণাম কতটা ভয়াবহ হতে পারে, ল্যান্ডমাইন তা বার বার দেখিয়ে দেয়

আফগানিস্তানের দক্ষিণে তালেবান বিদ্রোহীরা বিস্তীর্ণ এলাকায় বোমা ও মাইন পেতে রেখেছে৷ আন্তর্জাতিক বাহিনী বা আফগান সেনাবাহিনীর অভিযান ব্যর্থ করতে এটা তাদের অন্যতম কৌশল৷ কিন্তু অধিকাংশ সময়ে নিরীহ মানুষই এই মরণ-ফাঁদের শিকার হচ্ছে৷ আন্তর্জাতিক রেড ক্রস'এর এক রিপোর্টে এই ভয়াবহ বিপদের এক সামগ্রিক চিত্র উঠে এসেছে৷

হেলমন্দ ও কান্দাহার প্রদেশে আন্তর্জাতিক ও আফগান বাহিনী তালেবান বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে যৌথ অভিযান চালাচ্ছে৷ দুই পক্ষের এই সংঘাতের ফলে ঐ এলাকার সাধারণ মানুষের জীবনের ঝুঁকি মারাত্মক হারে বেড়ে গেছে৷ রেড ক্রস'এর রিপোর্ট অনুযায়ী বোমা বা মাইনের আঘাতে আহতের সংখ্যা ৪০ শতাংশ বেড়ে গেছে৷ কান্দাহারের মীরওয়াইস হাসপাতালে শুধু জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসেই মাইনের আঘাতে আহত রোগীর সংখ্যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ বেড়ে গেছে৷ মার্চ মাসে ৫১ জন এমন রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে৷ রেড ক্রস ঐ হাসপাতাল চালাতে বিশেষ সাহায্য করে থাকে৷

Afghanistan / Offensive / Mardscha

তালেবান দমনে বিশাল অভিযান চালাচ্ছে সেনাবাহিনী

রেড ক্রস'এর রিপোর্ট অনুযায়ী সরাসরি সংঘাতের তুলনায় এই ধরনের বিস্ফোরকের আঘাতে হতাহতের সংখ্যা অনেক বেশি৷ এই ধরনের বোমা বা মাইন সহজেই তৈরি করা যায়৷ সৈন্য বা নিরীহ মানুষ, কেউই এই মরণ-ফাঁদ থেকে রেহাই পায় না৷ মার্কিন বা ন্যাটো বাহিনীর উন্নত সামরিক সরঞ্জামকেও অকেজো করে দিতে পারে সস্তার এই বোমা৷ শুধু চলতি বছরেই ১৫৭ জন বিদেশি সৈন্য আফগানিস্তানে এমন বিস্ফোরকের আঘাতে প্রাণ হারিয়েছে৷ ২০০৯ সালে এই সংখ্যা ছিল ৫২০৷ তাছাড়া এমন এক-একটি বিস্ফোরণে গড়ে প্রায় ৮ জন আহত হয় এবং সারা জীবনের জন্য পঙ্গু হয়ে পড়ে৷

শুধু রেড ক্রস নয়, জাতিসংঘের এক রিপোর্টেও আফগানিস্তানে মাইন'এর বিধ্বংসী শক্তির একটা চিত্র তুলে ধরা হয়েছে৷ চলতি বছরের শুরুতে প্রকাশিত ঐ রিপোর্ট অনুযায়ী ২০০৯ সালে ২,৪১২ জন নিরীহ মানুষ মাইনের আঘাতে নিহত হয়েছে৷ ২০০৮ সালে এই সংখ্যা ছিল ২,১১৮৷ অন্যদিকে আন্তর্জাতিক বাহিনী আরও সতর্ক হয়ে যাওয়ায় তাদের অভিযানে নিরীহ মানুষের মৃত্যুর হার ২৮ শতাংশ কমে গেছে৷ তা সত্ত্বেও এখনো পর্যন্ত এমন অভিযানে মৃতের সংখ্যা প্রায় ১২০,০০০৷ মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রবার্ট গেটস সাম্প্রতিক এমন এক ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বলেছেন, প্রতিটি ক্ষেত্রে আলাদা করে তদন্ত করা হচ্ছে৷

প্রতিবেদন: সঞ্জীব বর্মন, সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়