1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আফগানিস্তানে বিদেশী সেনাদের প্রাণহানি অব্যাহত

আফগানিস্তানে তালেবান জঙ্গিদের হামলায় আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা সহায়তা বাহিনী বা আইসাফ এর চার সেনা নিহত হল৷ এদিকে পাকিস্তানে বন্দুকধারীরা ন্যাটোর ২৯টি তেলের ট্যাঙ্কার ধ্বংসের পর একটি সরবরাহ পথ খুলে দিতে যাচ্ছে ইসলামাবাদ৷

German ISAF troops patrol

আফগানিস্তানের পশ্চিমাঞ্চলও নিরাপদ নয়

বার্তা সংস্থাগুলোর খবর থেকে জানা গেছে, শনিবার আফগানিস্তানের পশ্চিমাঞ্চলের ফারাহ প্রদেশের গুলিস্তান জেলায় আইসাফ বাহিনীর একটি সেনা বহরের ওপর হামলার ঘটনাটি ঘটে৷ বহরের একটি গাড়ি আগে থেকে রাস্তায় পেতে রাখা বোমার ওপর উঠে পড়লে বিস্ফোরিত হয়৷ এসময় তালেবান জঙ্গিরা ওই বহরের ওপর গুলি চালাতে শুরু করে৷ ইটালির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে তালেবান হামলায় তাদের চার সেনা নিহত হয়েছে, আহত হয়েছে আরও এক সেনা৷ উল্লেখ্য, ফারাহ প্রদেশে আইসাফ বাহিনীর হয়ে কাজ করছে ইটালির সেনাবাহিনী৷ এই হামলার পর তালেবান গোষ্ঠী এক বিবৃতিতে দায়িত্ব স্বীকার করেছে৷ তারা দাবি করেছে, হামলায় তারা পাঁচটি ট্যাংক ধ্বংস করেছে৷

Two British soldiers of the International Security Assistance Force (ISAF)

আইসাফ বাহিনীতে কর্মরত ব্রিটিশ সেনা

বিদেশী সেনাদের প্রাণহানী চলছেই

এদিকে এই হতাহতের ফলে আফগানিস্তানে নিহত ইটালীয় সেনার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩৪ এ৷ বর্তমানে আফগানিস্তানে তিন হাজারেরও বেশি ইটালীয় সেনা কর্মরত৷ তুলনামূলক নিরাপদ পশ্চিমাঞ্চলে তারা দায়িত্ব পালন করলেও বর্তমানে সেখানেও এখন তালেবান হামলা বাড়ছে৷ এদিকে সর্বশেষ হামলার ফলে চলতি বছরে নিহত বিদেশী সেনার সংখ্যা দাড়ালো ৫৭০ এরও বেশি৷ গত বছর নিহত হয়েছিল ৫২১ জন বিদেশী সেনা৷ কেবল সেনারাই প্রাণ হারাচ্ছে না, নিরীহ মানুষের প্রাণহানীও বেড়ে চলেছে৷ জাতিসংঘের প্রতিবেদন অনুযায়ী চলতি বছরের প্রথমার্ধে বেসরকারি প্রাণহানির পরিমাণ ৩১ শতাংশ বেড়েছে৷

ছয় দফা ন্যাটো সরবরাহে হামলা

এদিকে পাকিস্তানে গত এক সপ্তাহের বেশি সময়ে ছয় দফা হামলা হলো ন্যাটোর সরবরাহ যানের ওপর৷ সর্বশেষ শনিবার বন্দুকধারীদের হামলায় ২৯টি তেলের ট্যাঙ্কার ধ্বংস হয়ে গেছে৷ জানা গেছে, কোয়েটার দক্ষিণ পূর্বের মিত্রি এলাকাতে এই হামলার ঘটনা ঘটে৷ মিত্রির প্রশাসনিক কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানান, প্রায় ৩০ জন বন্দুকধারী এই হামলা চালায়৷ এই সময় তেলের ট্যাঙ্কারগুলো একটি হোটেলের সামনে দাঁড় করানো ছিল৷ এই হামলার জন্য এখনও কেউ দায়িত্ব স্বীকার করেনি৷ এদিকে এই ঘটনার পর পাকিস্তানী কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে তারা আফগানিস্তান সীমান্তে ন্যাটো বাহিনীর একটি রসদ সরবরাহ পথ খুলে দেবে৷ গত ৩০ সেপ্টেম্বর মার্কিন বিমান হামলায় দুই পাকিস্তানী সেনা নিহত হওয়ার পর এই সরবরাহ পথটি বন্ধ করে দিয়েছিল পাকিস্তানী কর্তৃপক্ষ৷

প্রতিবেদন: রিয়াজুল ইসলাম

সম্পাদনা: জাহিদুল হক