1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

আফগানিস্তান

আফগানিস্তানে ফিরে গেলেন সেই নীল নয়না

শরবত গুলা, ন্যাশনাল জিওগ্র্যাফিকের প্রচ্ছদের কারণে যিনি বিখ্যাত হয়েছিলে, পাকিস্তান থেকে তাকে আফগানিস্তানে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে৷ হেপাটাইটিস রোগে আক্রান্ত শরবত পাকিস্তানের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন৷

১৯৮৪ সালে পাকিস্তানের এক উদ্বাস্তু শিবিরে ১২ বছরের আফগান কিশোরী শরবত গুলা'র ছবি তুলেছিলেন মার্কিন আলোকচিত্রী স্টিভ ম্যাককারি৷ ছবিটি ন্যাশনাল জিওগ্র্যাফিকের প্রচ্ছদ হয়েছিল৷ আর সেই ছবি ছাপা হওয়ার পর থেকে শরবত গুলা সারা বিশ্বেই পরিচিত৷ কিশোরী শরবতের বিস্ফারিত সবুজ চোখে এমন কিছু একটা ছিল, যা ভোলার নয়৷

ম্যাককারি ১৭ বছর ধরে খোঁজখবর করার পর আবার শরবত গুলার খোঁজ পান ২০০২ সালে, আফগানিস্তানের এক প্রত্যন্ত গ্রামে৷ শরবত গুলা তখন এক রুটি তৈরি কারিগর, অর্থাৎ তন্দুরওয়ালার স্ত্রী ও তিন সন্তানের জননী৷

পরে শরবত গুলা তাঁর স্বামীর সঙ্গে পেশাওয়ারে যান৷ সেখানেই গত অক্টোবরে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয় পাকিস্তানি আইডি কার্ড জাল করার দায়ে৷ পাকিস্তানের ফেডারেল ইনভেস্টিগেটিভ এজেন্সি ‘ফিয়া' নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে বাড়িতে ঢুকে খানাতল্লাসি করে ও দরকারি কাগজপত্র ছাড়া ২,৮০০ ডলার নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেছেন গুলার দেবর শাহশাদ খান৷ গুলাকে পেশাওয়ারের কারাগারে রাখা হয়েছিল৷ শাহশাদ খান বলেন, ‘‘গুলা উদ্বাস্তু হতে পারেন না; তিনি বৈধভাবে পাকিস্তানে রয়েছেন, কেননা তিনি শাহশাদ খানের ভাই রহমত খানের বিবাহিত পত্নী৷'' প্রসঙ্গত, রহমতের জন্ম পাকিস্তানে৷ তিনি পাঁচ বছর আগেই পরলোকগমন করেছেন৷

কিন্তু অভিযোগ ওঠেছে শরবত গুলা অবৈধভাবে পাকিস্তানে বসবাস করছেন৷ তার পাসপোর্টসহ অন্যান্য কাগজপত্র অবৈধ বলে তাকে আটক করা হয়েছিল৷ এরপরই তাকে আফগানিস্তানের কাছে হস্তান্তর করা হয়৷

এপিবি/ডিজি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়