1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আফগানিস্তানে এ’বছর নিহত বিদেশি সেনাদের সংখ্যা ৭০০-তে পৌঁছল

দক্ষিণ আফগানিস্তানে রাস্তার পাশে রাখা বোমা ফেটে ন্যাটোর আইসাফ বাহিনীর এক সদস্য নিহত হয়েছেন৷ ফলে এ’বছর আফগানিস্তানে নিহত বিদেশি সেনাদের সংখ্যা পৌঁছল ৭০০-তে৷

default

আইসাফে থাকা ডাচ সেনারা

নিহত সদস্যের নাম বা তিনি কোন্ দেশের নাগরিক সে ব্যাপারে কিছু জানায়নি ন্যাটো৷ তবে খবরটি গুরুত্বপূর্ণ এই কারণে যে, এর ফলে নিহত বিদেশি সেনার সংখ্যা ৭০০-তে পৌঁছল৷ যেটা যে কোনো বছরের চেয়ে বেশি৷ এর আগে গত বছর সর্বোচ্চ ৫২১ জন বিদেশি সেনা নিহত হয়েছিলেন৷ আর সব মিলিয়ে ২০০১ সালে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় ২,২৭০ জন বিদেশি সেনা নিহত হয়েছেন৷ অর্থাৎ প্রায় এক-তৃতীয়াংশ সেনাই মারা গেছেন এ'বছর৷

এই পরিসংখ্যান এটাই প্রমাণ করছে যে, তালেবানের নেতৃত্বে জঙ্গি তৎপরতা আগের যে কোন সময়ের চেয়ে বেড়েছে৷ কারণ শুধু বিদেশি সেনাই নয়, এবছর রেকর্ড সংখ্যক আফগান সেনা ও সাধারণ মানুষও নিহত হয়েছেন৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও স্বীকার করছেন এটা৷ গত সপ্তাহে তিনি বলেছেন, আফগানিস্তানে ন্যাটো সেনারা তালেবানের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অগ্রগতি সাধন করলেও সামনে আরও বড় চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে৷ এছাড়া আন্তর্জাতিক রেডক্রস'ও এক বিবৃতিতে বলেছে যে, ত্রাণকর্মীরা গত ত্রিশ বছরের মধ্যে আফগানিস্তানে সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছে৷

কিন্তু কেন এমন হলো? এর একটা কারণ এটা হতে পারে যে, গত ১৮ মাসে তালেবানের বিরুদ্ধে ন্যাটো বাহিনীর অভিযান বেড়েছে, বিশেষ করে তালেবানের এলাকা বলে পরিচিত দেশটির দক্ষিণ ও পূর্বাঞ্চলে৷ ফলে অনেক তালেবান এলাকা পরিবর্তন করে উত্তর ও পশ্চিমাঞ্চলে গিয়ে আস্তানা গড়ে তোলে৷ এর ফলে এক সময়ের শান্তিপূর্ণ এলাকা বলে পরিচিত ঐ দুটি অঞ্চলও অশান্ত হয়ে পড়েছে৷

তবে আশঙ্কার বিষয় হলো, তালেবানের শক্তি যখন বেড়েছে বলে মনে হচ্ছে, তখন যুক্তরাষ্ট্র সহ সব দেশ তাদের সৈন্যদের আফগানিস্তান থেকে ফিরিয়ে আনতে চাচ্ছে৷ যেমন আর মাত্র সাত মাস পরই যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহার শুরু হওয়ার কথা৷ অন্তত বারাক ওবামা এমন অঙ্গীকারই করে রেখেছেন৷ আর ২০১৪ সালের মধ্যে আফগান সরকারের কাছে দেশটির পুরো নিয়ন্ত্রণ ছেড়ে দেয়ার সময়সীমা ঠিক করেছে ন্যাটো৷ অবশ্য আফগান প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাইয়ের পরামর্শেই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে৷ তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটা কারজাইয়ের একটা অতি উচ্চাভিলাষী সিদ্ধান্ত৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী