1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আফগানিস্তানের নতুন প্রেসিডেন্ট গনি, বিক্ষোভ মিছিল অব্যাহত

আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন বিশ্বব্যাংকের সাবেক অর্থনীতিবিদ আশরাফ গনি৷ তিনি পেয়েছেন ৫৬ শতাংশ ভোট৷ দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাইয়ের স্থলাভিষিক্ত হবেন তিনি৷

সোমবার আফগানিস্তানে দ্বিতীয় দফা ভোটের প্রাথমিক ফলাফল প্রকাশিত হয়৷ নির্বাচন কমিশন জানায়, প্রাথমিক ফলাফলে আশরাফ গনির প্রতিদ্বন্দ্বী আবদুল্লাহ আবদুল্লাহ পেয়েছেন ৪৪ শতাংশ ভোট৷ আবদুল্লাহ আবদুল্লাহ অবশ্য এই ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছেন৷ তাঁর মুখপাত্র রহমান রাহিমি সংবাদ সংস্থা এপি-কে বলেছেন, ‘‘তারা ভোট জালিয়াতির শিকার হয়েছেন৷ এই ফলাফল জনগণের মতামতের প্রতিফলন নয়৷'' কমিশন তাঁদের অভিযোগ তদন্ত করে দেখছে৷

তবে দেশটির সাবেক অর্থমন্ত্রী আশরাফ গনি বলেছেন, ন্যায়সংগতভাবেই তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন৷ অবশ্য সরকারিভাবে ফলাফল ঘোষণা করা হবে ২২শে জুলাই৷ কিন্তু এরই মধ্যে গনি সমর্থকরা রাজধানী কাবুলে জয় উদযাপন শুরু করেছে৷ অন্যদিকে আবদুল্লাহ সমর্থকরা বিক্ষোভ মিছিল করেছে দেশটিতে৷

গত ১৪ই জুন দ্বিতীয় দফার এ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ হয়৷ গত এপ্রিলে অনুষ্ঠিত হয় প্রথম দফার ভোট৷ তবে ওই নির্বাচনে কোনো প্রার্থীই শতকরা ৫০ ভাগের বেশি ভোট না পাওয়ায় দ্বিতীয় দফায় ভোট গড়ায়৷

সব ঠিক থাকলে এই ভোটের মধ্য দিয়েই আফগানিস্তানে প্রথমবারের মতো গণতান্ত্রিকভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর হবে৷ দেশের নতুন প্রেসিডেন্ট হিসাবে দায়িত্ব নেবেন আশরাফ গনি৷

Afghanistan Wahl Präsidentschaftskandidat Ashraf Ghani 25.06.2014

সংবাদ সম্মেলনে আশরাফ গনি

আশরাফ গনি

অর্থনীতিবিদ থেকে রাজনীতিবিদে পরিণত হওয়া আশরাফের জন্ম ১৯৪৯ সালে৷ লেখাপড়ার জন্য ১৯৭৭ সালে দেশ ছাড়ার পর দীর্ঘদিন তিনি যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছেন, চাকরি করেছেন বিশ্বব্যাংকে৷ ২৪ বছর বিদেশে কাটিয়ে দেশ পুনর্গঠনের স্বপ্ন নিয়ে দেশে ফেরার পর তিনি যোগ দেন রাজনীতিতে৷

তালেবান শাসনের অবসানের পর আফগানিস্তানের প্রথম অন্তর্বর্তী সরকারের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ছিলেন আশরাফ৷ ২০০২ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত তিনি হামিদ কারজাই সরকারের অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন৷ ওই সময়ে নতুন মুদ্রা চালু করে, কর ব্যবস্থার সংস্কার করে এবং দাতাদের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নের মাধ্যমে তিনি আলোচনায় আসেন৷ কিন্তু বদমেজাজ, ঔদ্ধত্য এবং কাউকে কাছে ঘেঁষতে না দেয়ার মনোভাবের কারণে যথেষ্ট বদনামও তাঁকে কুড়াতে হয়েছে৷

২০০৯ সালের নির্বাচনে আশরাফও অংশ নিয়েছিলেন৷ কিন্তু সেবার তিনি ভোট পান মাত্র ৩ শতাংশ৷ তবে এবার সাবেক মিলিশিয়া কমান্ডার আবদুল রশিদ দস্তুমকে ‘রানিং মেট' বানিয়ে প্রথম দফার নির্বাচনে তিনি আবির্ভূত হয়েছেন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ভোটপ্রাপ্ত প্রার্থী হিসাবে৷ প্রথম পর্বে তাঁর পাওয়া ভোটের উল্লেখযোগ্য অংশ সংখ্যাগরিষ্ঠ পশতু ভোটারদের কাছ থেকে এসেছে৷ হামিদ কারজাইয়ের মতো আশরাফও একজন পশতুভাষী৷

বিশ্লেষকদের মতে, আশরাফ প্রেসিডেন্ট হলে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আফগানিস্তানের সম্পর্কের উন্নতি ঘটতে পারে৷ কিন্তু নিজের মেজাজ বদলাতে না পারলে দেশ চালানো তাঁর জন্য কঠিনই হবে৷

এপিবি/ডিজি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন