1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আপিলে সরকারের সহায়তা চান মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ফোরকান

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে ফোরকান মল্লিককে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে মানবতাবিরোধী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল৷ ফোরকানের দাবি, তিনি নিঃস্ব৷ তাই তাঁর আইনজীবী আপিল করার জন্য সরকারের সহায়তা চেয়েছেন৷

ফোরকান আলীর আইনজীবী আব্দুস সালাম ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ‘‘রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার মতো আর্থিক সঙ্গতি তার (ফোরকানের) নেই, তাই সরকারের কাছে সহায়তার আবেদন জানানো হবে৷''

বৃহস্পতিবার বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন ট্রাইব্যুনাল-২ পটুয়াখালীর ফোরকান মল্লিকের বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা করে৷ একাত্তরের মুসলিম লীগ কর্মী ফোরকানের বিরুদ্ধে পাঁচটি অভিযোগের তিনটি প্রমাণিত হয়েছে৷ এই তিনটি অভিযোগ হলো, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পটুয়াখালীর মীর্জাগঞ্জের সুবিদখালী বাজারে গোলাপী রানীকে এবং কাকড়াবুনিয়ায় আলেয়া বেগমকে ধর্ষণের পর হত্যা, আলেয়া বেগমের বাবাকে হত্যা এবং দেবেন্দ্র ডাক্তারকে হত্যা৷

একাত্তর সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা, ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগে ২০০৯ সালের ২১শে জুলাই ফোরকানের বিরুদ্ধে মির্জাগঞ্জ থানায় মামলা করেন তার আত্মীয় আবদুল হামিদ মল্লিক৷ প্রাথমিক তদন্তে ফোরকানের যুদ্ধাপরাধের প্রমাণ পাওয়ার পর মামলাটি পটুয়াখালী থেকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়৷ গোয়েন্দা পুলিশ ২০১৪ সালের ২৫শে জুন ফোরকানকে বরিশালের রুপাতলী বাসস্ট্যান্ড থেকে গ্রেপ্তার করে৷ তারপর ৩রা জুলাই ট্রাইব্যুনাল মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে তাকে করাগারে পাঠায়৷

গত ২রা ডিসেম্বর ট্রাইব্যানাল-২ ফোরকান মল্লিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেয়৷ বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় অন্তত আটজনকে হত্যা, চারজনকে ধর্ষণ, তিনজনকে ধর্মান্তরে বাধ্য করা, ১৩টি পরিবারকে দেশান্তরে বাধ্য করা, ৬৪টি বসতবাড়ি ও দোকানে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের মোট পাঁচটি ঘটনায় অভিযুক্ত করে গত ১৮ই ডিসেম্বর ফোরকানের বিচার শুরু করা হয়৷

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ থানার ছইলাবুনিয়া গ্রামের সাদের মল্লিক ও সোনভান বিবির ছেলে ফোরকান মল্লিক পড়ালেখা করেছেন পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত৷ তার আইনজীবী আব্দুস সালাম বৃহস্পতিবার ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘ফোরকান মল্লিকের বাবাও দরিদ্র ছিলেন৷ একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ফোরকান এলকারই গনি মস্টার নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে বছরে ২০ কাঠি (১০ মন) ধানের বিনিময়ে কামলা ( কৃষি শ্রমিক) হিসেবে কাজ করতেন৷ তিনি সরাসরি কোনো হত্যা বা ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত ছিলেন না৷ তবে মুক্তিযুদ্ধের শেষ দিকে রাজাকার ও হানাদারদের ইনফরমার হিসেবে কাজ করতেন৷''

আব্দুস সালাম আরো জানান, ‘‘মুক্তিযুদ্ধের পর ফোরকান ঢাকায় এসে প্রথমে দোকানে এবং পরে একটি গার্মেন্টস-এ কাজ করেন৷ সেই আয়ে তিনি তার এলাকায় একখন্ড জমি কিনে আত্মীয় হামিদ মল্লিকের সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে পড়েন৷ হামিদ মল্লিকই তার বিরুদ্ধে মামলা করে৷''

আইনজীবী আব্দুস সালামের দাবি, ‘‘আত্মীয়তার কারণে তিনি ফোরকান মল্লিকের মামলার আইনজীবী হয়েছেন৷ কিন্তু এই মামলা পরিচালনা করে তিনি কোনো টাকা পাননি৷ বরং তার টাকা খরচ হয়েছে৷ মামমলার রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার মতো আর্থিক সঙ্গতি ফোরকান মল্লিকের নেই৷ তাই আপিলের জন্য সরকারের কাছে আর্থিক অথবা আইনগত সহায়তা চাওয়া হবে৷''

ফোরকান মল্লিকের স্ত্রী জাবেদা বেগম গ্রামেই থাকেন৷ দুই ছেলে জহির মল্লিক এবং তাহির মল্লিক ঢাকায় দোকানে কাজ করেন৷ তাঁরা বিয়ে-থা করেছেন৷ বাবাকে দেখার মতো আর্থিক সঙ্গতি তাদেরও নেই বলে আব্দুস সালাম জানান৷

তবে মামলার বাদী হামিদ মল্লিক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘ফোরকান মল্লিক আমার দূর সম্পর্কের চাচা৷ আমি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক হিসেবে আমাদের বংশকে কলঙ্কমুক্ত এবং যুদ্ধাপরাধের বিচারের জন্য তার বিরুদ্ধে মামলা করেছি৷ জমিজমা নিয়ে তার সঙ্গে আমার কোনো বিরোধ নেই৷''

তিনি আরো জানান, মুক্তিযুদ্ধের পর ২৬ বছর ফোরকান মল্লিক ঢাকায় ছিলেন৷ একাত্তরের লুটপাটের টাকায় তিনি ঢাকায় বাড়ি এবং জমিও কিনেছিলেন৷ তার ছেলে জহির মল্লিক একটি অস্ত্র মামলায় গ্রেপ্তার হওয়ার পর ওই বাড়ি এবং জমি বিক্রি করে ছেলেকে মুক্ত করেন এবং সে কারণে আর্থিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়েন৷

এদিকে পটুয়াখালীর সাংবাদিক মুজাহিদুল ইসলাম প্রিন্স বলেছেন, ‘‘ঢাকায় থাকলেও ফোরকান মল্লিক মাঝে মধ্যে এলাকায় যেতেন৷ জিয়াউর রহমানের সামরিক শাসনামলে স্বাধীনতাবিরোধীরা আবার রাজনীতিতে পুনর্বাসিত হতে শুরু করলে ১৯৭৭ সালে ফোরকানও স্থানীয় পর্যায়ে বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হন৷ তবে সামাজিক অবস্থানের কারণে তিনি তেমন সুবিধা করতে পারেননি৷''

ফোরকানের বিরুদ্ধে সব অভিযোগ সত্য দাবি করে মুজাহিদুল ইসলাম প্রিন্স বলেন, ‘‘তার বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ প্রমাণিত৷ তিনি একাত্তরে যুদ্ধাপরাধে যুক্ত হয়েছিলেন তার প্রমাণ এলকায় রয়েছে৷ তবে তিনি ছিলেন নিম্নবিত্ত পরিবারের এবং পরেও সুবিধা করতে পারেননি৷''

প্রিন্স আরো জানিয়েছেন, ১৯৭২ সালে রাজাকারদের যে তালিকা তৈরি করা হয়েছিল তাতে ফোরকান মল্লিকের নাম আছে৷ তবে গ্রেপ্তার হওয়ার আগে পটুয়াখালীর সাব সেক্টর কমান্ডার আলতাফ হায়দারের কাছ থেকে তিনি কোনো যুদ্ধাপরাধে জড়িত নন এই মর্মে একটি প্রত্যয়ন পত্র নিয়েছিলেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন