আন্না হাজারে’র নাম এখন জার্মান গণমাধ্যমেও | বিশ্ব | DW | 24.04.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আন্না হাজারে’র নাম এখন জার্মান গণমাধ্যমেও

ভারতে দুর্নীতি৷ এবং সেই দুর্নীতির বিরুদ্ধে মহাত্মা গান্ধীর অসহযোগ আন্দোলনের পন্থায় অনশন ধর্মঘটকে অস্ত্র করে সংগ্রামে নেমেছেন এক প্রবীণ গান্ধীবাদী৷ ঘটনাটি সাড়া তুলেছে জার্মানিতেও৷

default

আন্না হাজারে

মাথায় গান্ধীটুপি পরে ৭১ বছর বয়সি বাবুরাও হাজারে'র ছবি৷ গান্ধীবাদীর পিছনে স্বয়ং মহাত্মা গান্ধীর প্রতিকৃতি৷ স্যুদদয়েচে সাইটুং'এ সুদীর্ঘ প্রতিবেদনটির সঙ্গে প্রকাশিত ছবিটির ক্যাপশন হল: ‘আশ্চর্য সাদৃশ্য'৷ প্রতিবেদকের বক্তব্য: ‘আন্দোলনকারী (আন্না হাজারে) নতুন দিল্লির রাজনীতিকদের জন্য জুজুবুড়িতে পরিণত হয়েছেন৷' অপরদিকে হাজারে যে নিজেও রাজনীতির খেলা খেলতে জানেন, প্রতিবেদক সেটা স্পষ্ট করে দিয়েছেন৷ যেমন হাজারে ক্রিকেট বিশ্বকাপ জয়ের উন্মাদনার অন্ত ঘটার আগে তাঁর অনশন ধর্মঘট শুরু করেননি৷ চারদিন অনশনের পর সরকারকে গলবস্ত্র হয়ে আসতে হয়েছে আন্না হাজারের কাছে৷

নয়ে সুরশার সাইটুং নজর দিয়েছে ফুকুশিমায় দুর্ঘটনার পর ভারতে পরমাণু বিদ্যুতের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ দানা বাঁধার দিকে৷ পত্রিকাটি প্রতিবেদনের মুখবন্ধে লিখছে: ‘দ্রত প্রবৃদ্ধিশালী, জ্বালানি শক্তির জন্য ক্ষুধিত ভারত পরমাণু শক্তির উপর জোর দিয়েছে৷ এযাবৎ এই নীতি নিয়ে কোনো বিতর্ক ছিল না৷

Indien Hungerstreik von Aktivist Anna Hazare gegen Korruption in New Delhi

ফুকুশিমার বিপর্যয় জনমানসকে সচকিত করেছে৷' জয়েতপুরে বিশ্বের বৃহত্তম পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র সৃষ্টি হতে চলেছে৷ ঠিক সেখানেই ৭০০ মানুষের বিক্ষোভে পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারালেন প্রথম পরমাণু বিরোধী আন্দোলনকারী, এক স্থানীয় ধীবর৷ খবরটা বেশ বড় করেই এসেছে নয়ে সুরশার সাইটুং এবং টাগেসসাইটুং'এ৷ অপরদিকে ভারতের পরিবেশ মন্ত্রী জয়রাম রমেশ ঘোষণা করেছেন, ভারতের বিপুল জ্বালানি ক্ষুধার পরিপ্রেক্ষিতে পরমাণু বিদ্যুৎ ছাড়া ভারতের কোনো বিকল্প নেই৷

নয়েস ডয়েচলান্ড তাকিয়েছে পশ্চিমবঙ্গের দিকে, যেখানে, পত্রিকাটির শীর্ষক অনুযায়ী, ‘লাল দুর্গের উপর অভিযান', অর্থাৎ নির্বাচন শুরু হয়েছে৷ ‘৩৪ বছর ধরে কলকাতায় শাসন করছে বামফ্রন্ট৷ কিন্তু বিরোধীরা এখন যতোটা শক্তিশালী, অতীতে তারা কখনো ততোটা শক্তিশালী ছিল না৷' অপরদিকে সিপিআই-এম এখনও সব আশা পরিত্যাগ করেনি, এবং কেন করেনি, সেটা অর্ধেন্দু ভূষণ বর্ধন, বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য এবং গৌতম দেবের মতো রাজনীতিকদের উদ্ধৃতি দিয়ে ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেছেন প্রতিবেদক৷

গ্রন্থনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন