1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

আনমনে গান গেয়ে মন মাতালো যে মেয়েটি

সপ্তাহ দু'য়েকের কম সময়ের মধ্যে এই ভিডিওটি দেখেছেন ২ কোটি ৬০ লাখের বেশি মানুষ৷ কিন্তু কেন? কারণ একদিকে ছোটদের মধ্যে, অন্যদিকে অজানা, অখ্যাত মানুষের মধ্যে প্রতিভার স্ফূরণ আমাদের মুগ্ধ করে৷

জেফ বাকলে-র লেখা কথায় লিওনার্ড কোহেনের গাওয়া গানটি পপ সংগীতের ইতিহাসে এক চিরকালের সংযোজন৷ কিন্তু গান মানে হলো আবেগ, অনুভূতি, ইমোশান৷ সেই ইমোশান যদি কেউ ফুটিয়ে তুলতে পারে, স্টিভেন স্পিলবার্গের ‘ইটি' ছবির এলিয়টের মতো, তাহলে ইটি-র হৃৎপিণ্ড যেন আবার আলো হয়ে জ্বলতে থাকে, টবের মরা ক্রিসানথিমাম ফুল যেন আবার মাথা তোলে৷

ভিডিওর মেয়েটিকে জানি না, চিনি না৷ বয়স কত হবে? নয়? দশ? মার্কিনি তো বটেই, নয়ত এরকম নিখুঁত হ্যালেুলইয়া গাইবে কী করে! তবে যেন একটু জাপানি বা কোরীয় কিংবা চীনা সংমিশ্রণ আছে, অ্যামেরিকায় যা আদৌ আশ্চর্য নয়৷

মেয়েটি আর তার সঙ্গের মানুষজন যেন ইটালিতে কোথাও বেড়াতে গেছে; কোন এক প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানে একটি কুয়োর ওপর ঝুঁকে দেখছে, কুয়োর অতলে কি আছে – না, পড়ে যাবার ভয় নেই, কেননা কুয়োর মুখ লোহার জাল দিয়ে ঢাকা৷

 

মেয়েটি গাইতে শুরু করল – আর যেন কুয়োর ভিতরে দূর অতীতের কারা সব নড়ে-চড়ে বসল, মেয়েটির গানের বা টানের ছত্রগুলির শেষে তাদের দীর্ঘনিশ্বাস যেন প্রতিধ্বনি হয়ে ঐ নওলকিশোরীর আবেগ-অনুভূতিকে লম্বিত করল, প্রলম্বিত করল৷ যেন সুদূর অতীতের সঙ্গে মোবাইল হাতে হাসিখুশি বর্তমানের মোলাকাত হল ঐ লোহার জালের ভিতর দিয়ে৷ কেউ কারো মুখ দেখতে পেল না, কিন্তু কণ্ঠ আর উপকণ্ঠ, ভাষ আর প্রতিভাষ, ধ্বনি আর প্রতিধ্বনি শুনতে পেল৷

আর মাত্র গত নভেম্বর মাসে ৮২ বছর বয়সে পরলোকগত লিওনার্ড কোহেন যেখানেই থাকুন না কেন, তাঁকে যেন বলতে শুনলাম: বাঃ, মেয়েটি তো দারুণ গায়, হ্যালেলুইয়া!

এসি/ডিজি

নির্বাচিত প্রতিবেদন