1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘আদিবাসী এলাকায় রোহিঙ্গা পরিবারের চার সদস্য খুন'

বান্দরবানে একই পরিবারের চারজনকে জবাই করে হত্যা করা হয়েছে৷ এলাকাটি আদিবাসী অধ্যুষিত হলেও নিহতরা সবাই রোহিঙ্গা৷ বান্দরবানের পুলিশ সুপার ভেলেকে বলেন, প্রাথমিক তদন্তে মনে হচ্ছে, পারিবারিক বিরোধের জেরেই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে৷

বান্দরবান শহর থেকে অন্তত ৫ কিলোমিটার দূরে ক্যামলং এলাকায় নির্জন একটি খামারে যারা খুন হয়েছেন, তাদের মধ্যে দু'জন আপন ভাইবোন ও অপর দু'জন তাঁদের সন্তান৷ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পুলিশের একজন কর্মকর্তা টেলিফোনে ডয়চে ভেলেকে বলেন, এই রোহিঙ্গা পরিবারটি কয়েক বছর আগে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসে৷ কুহালং ইউনিয়নের বান্দরবান-চন্দ্রঘোনা সড়কের নির্জন ওই খামার বাড়িতে গিয়ে তিনি দেখেছেন, পাহাড়ের ঢালুতে ধাপ কেটে নির্মিত ছোট বাড়ির ভেতরে দুই শিশুসহ তিনজনকে ও বাইরে একজনকে হত্যা করা হয়েছে৷ নিহতরা হলেন – মোহাম্মদ আমিন (৪০) ও তাঁর ছেলে জুনায়েদ (১২), আমিনের বোন সামিরা বেগম (৪৫) ও সামিরার মেয়ে সৈয়দ নূর (৬)৷ আমিনের স্ত্রীর স্বজনরা এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত৷

কুহালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সানু প্রু মারমা উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, আবু বক্কর নামে চট্টগ্রামের একজন ব্যবসায়ী ওই খামারের মালিক৷ এই খামার দেখাশোনা করতেন আবদুল করিম ও তার স্ত্রী সামিরা বেগম৷ কয়েক বছর আগে স্ত্রীকে নির্যাতন করে করিম পালিয়ে গেলে সামিরা তার ভাই মোহাম্মদ আমিনের পরিবারকে এখানে নিয়ে আসে৷ সেই থেকে মোহাম্মদ আমিন, তাঁর তৃতীয় স্ত্রী হাসিনা আক্তার ও বোন সামিরা বেগম এখানে থাকতেন৷ দিনে পাশের খামারের লোকজনের আনাগোনা থাকলেও রাতে তাঁরা ছাড়া কেউ ওই নির্জন এলাকায় থাকতেন না৷ তাই কারা কী কারণে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে, নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না বলে জানান তিনি৷

স্থানীয় সাংবাদিক মিলন চক্রবর্তী টেলিফোনে ডয়চে ভেলেকে জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শনের সময় ওই খামারের পার্শ্ববর্তী খামারের তত্ত্বাবধায়ক গোপাল দাশ ও হ্লাথুই মারমা তাকে জানিয়েছেন, বেশ কিছুদিন ধরে আমিনের সঙ্গে তার স্ত্রী হাসিনা আক্তারের দাম্পত্য কলহ চলছিল৷ গত ১৫ দিন আগে হাসিনা পারিবারিক কলহের জের ধরে চট্টগ্রামের দোহাজারী বার্মা কলোনিতে ভাইদের ওখানে চলে যায়৷ বৃহস্পতিবার বিকেলে মোহাম্মদ আমিনের শ্যালক এসেছিলেন৷ সঙ্গে আরো দু'একজন অপরিচিত লোক ছিলেন৷ শুক্রবার সকালে কারও কোনো সাড়া-শব্দ না পাওয়ায় খামারে গিয়ে চারজনকে মৃত পড়ে থাকতে দেখা যায়৷

এরপর তাঁরা পুলিশকে খবর দেন৷ কিন্তু আমিনের স্ত্রী বা শ্যালককে কোথাও দেখা যায়নি৷ গোপালের ধারণা, তারাই (আমিনের স্ত্রী ও শ্যালক) এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন৷ তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭ থেকে ৮টার মধ্যে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে৷ কারণ রাতে খাওয়ার জন্য তারা যা রান্না করেছিল তা ঘরের মধ্যে পড়ে ছিল৷

জায়গার মালিক ব্যবসায়ী আবু বক্কর সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেছেন, ‘‘বান্দরবানে আমার ১২০ একর জায়গা রয়েছে৷ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য কেয়ারটেকার হিসাবে গোপাল দাশ নামে একজনকে দায়িত্ব দেই৷ পরে জানতে পারি গোপাল দাশ আমার জায়গাতে একটি রোহিঙ্গা পরিবারকে থাকতে দিয়েছে৷ তারাই খামারটি দেখাশোনা করছে৷ তবে এতে কোনো সমস্যা হচ্ছিল না৷ আর এই জায়গা নিয়ে কারো সাথে আমার কোন বিরোধ নেই৷''

বান্দরবান সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে আমিনের স্ত্রী ও শ্যালকরা এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ তাঁদের গ্রেফতারে সম্ভাব্য জায়গাগুলোতে অভিযান চালানো হচ্ছে৷ পুলিশের একটি টিম চট্টগ্রাম গেছে বলেও জানান তিনি৷ পাশাপাশি এই হত্যাকাণ্ডের পেছনে অন্য কোনো রহস্য আছে কিনা সে বিষয়েও পুলিশ তদন্ত করছে৷ স্থানীয়রা জানিয়েছেন, রোহিঙ্গাদের মধ্যে বহুবিবাহ প্রবণতা বেশি৷ সেই প্রবণতার কারণেই এই মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ড৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়