1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আদালত প্রাঙ্গনে কান্নায় ভেঙে পড়েন গ্রামীণ ব্যাংক কর্মীরা

সর্বশেষ আইনি লড়াইয়েও হেরে গেলেন গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস৷ তাঁর আইনজীবীরা রিভিউ আবেদন করার কথা বলেছেন৷

default

আইনি লড়াইয়ে আরও এক ব্যর্থতা

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেছেন, ড. ইউনূসের আর এক মূহূর্তও গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক থাকার আইনগত বৈধতা নেই৷ রায়ের পর গ্রামীণ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়সহ সারা দেশের শাখা অফিসে কর্মবিরতি শুরু করছেন গ্রামীণ ব্যাংক কর্মচারীরা৷

নির্ধারিত বয়স উত্তীর্ণ হয়ে গেছেন, এই কারণ দেখিয়ে গত ২রা মার্চ বাংলাদেশ ব্যাংক ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থানা পরিচালকরে পদ থেকে অব্যাহতি দেয়৷ এই আদেশের বিরুদ্ধে ড. ইউনূস এবং ৯ পরিচালক আইনি লড়াই শুরু করেন৷ হাইকোর্ট এবং এরপর সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে তারা আইনের লড়াইয়ে হেরে যান৷ এরপর তারা আবারো রায় বাতিলের আবেদন করেন৷ তিনদিন শুনানির পর আজ আপিল বিভাগ সে আবেদনও খারিজ করে দেয়৷ সাংবাদিকদের সেকথা জানান অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম৷

Friedensnobelpreis für Mohammed Junus

ড. ইউনূসকে হারিয়ে গ্রামীণ ব্যাংক পরিবার মর্মাহত

রায়ের পর ড. ইউনূসের আইনজীবীরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানান৷ ড. কামাল হোসেন জানান হাইকোর্ট ভুল করেছে৷ কিন্তু তা সংশোধনের সুযোগ দিলেন না আদালত৷ ব্যারিস্টার সারা হোসেন বলেন, দেশে আইনের শাসন চলছে, না ক্ষমতার শাসন চলছে সেটাই এখন বড় প্রশ্ন৷ আর ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ জানান, তারা এই রায়ের ব্যাপারে রিভিউ আবেদন করবেন৷

এদিকে রায়ের পর আদালত চত্বরে কান্নায় ভেঙে পড়েন গ্রামীণ ব্যাংকের পরিচালক এবং কর্মীরা৷ সেখানে পরিচালক রেজিনা বেগম ড. ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ দেয়ার জন্য সরকারের কাছে আবেদন জানান৷ তবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, সে সুযোগ নেই৷ কারণ ব্যাংকের পরিচালনা পরিষদে সরকার মনোনীত কাউকে চেয়ারম্যান করার নিয়ম৷ রায়ের পর গ্রামীণ ব্যাংক কর্মীরা সারাদেশে কর্মবিরতি শুরু করেন৷

প্রতিবেদন: হারুন উর রশীদ স্বপন, ঢাকা

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়