1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আদালতের চোখ রাঙানি উপেক্ষা করে সমকামীদের বিয়ে

সমাজের বাধা তো আছেই, সেইসাথে ছিল আইনি বাধা, কিন্তু কোনো কিছুর তোয়াক্কা করেনি চীনের এই সমকামী জুটি৷ সমকামী বিয়ে বৈধকরণের প্রচার হিসেবে বিয়েটা সেরে ফেলেছেন হু মিংলিয়াং এবং সুন ওয়েনলিন৷

চীনের এলজিবিটি সম্প্রদায়ের অধিকারের প্রতি সমাজের গ্রহণযোগ্যতা বাড়ানো এবং সমকামী বিয়ে যাতে বৈধ হয়, সেই প্রচারের জন্যই বিয়েটা করেছেন বলে জানিয়েছেন সদ্য বিবাহিত এই দম্পতি৷ দু'জনেই স্বীকার করেছেন তাঁদের জীবনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দিন ছিল এটি৷

চীনের হুনান প্রদেশে অন্তত ২০০ আত্মীয়-বন্ধুর উপস্থিতিতে তাঁরা আংটি বদল করেন৷ পুরো দেশের এলজিবিটি অধিকার কর্মীরা তাঁদের বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন৷

প্রায় এক মাস আগে নিজেদের ম্যারেজ সার্টিফিকেটের জন্য আদালতের দারস্থ হয়েছিলেন তাঁরা৷ কিন্তু আদালত তাঁদের আবেদন নাকচ করে দেন৷

তাই এই যুগল সিদ্ধান্ত নেন আইন অমান্য করেই বিয়েটা সেরে ফেলবেন৷ আর এ জন্য তাঁরা বেছে নেন আন্তর্জাতিক হোমোফোবিয়া এবং ট্রান্সফোবিয়া বিরোধী দিবসটিকে৷ ডয়চে ভেলের সাথে এক সাক্ষাৎকারে হু জানান, কর্তৃপক্ষ তাঁদের বিয়ে নিবন্ধ না করলেও চীনের এলজিবিটি সম্প্রদায় তাঁদের সাথে আছে এবং সাধারণ মানুষও একসময় তাঁদের পাশে এসে দাঁড়াবে বলে তার বিশ্বাস৷

চীনের আইন অনুযায়ী, একজন পুরুষ ও নারীই কেবল বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হতে পারবেন৷ হু এবং সুন এরপরও আদালতে আবেদন করেছেন যেন তাঁদের বিয়ের বৈধতা দেয়া হয়৷ আদালত সম্প্রতি এই আবেদনের শুনানি করতে রাজি হয়েছে৷

ইউএনডিপি সম্প্রতি একটি প্রতিবেদনে জানিয়েছে, চীনে এলজিবিটি-র মাত্র পাঁচ শতাংশ তাঁদের পরিচয় জানান৷ বাকিরা সবাই গোপন করেন৷ কেননা সমাজ তাঁদের গ্রহণ করে না এবং তাঁরা সবক্ষেত্রেই বৈষম্যের শিকার হয়৷

হু এবং সুনের এই বিয়ে সমাজের এই বৈষম্য দূর করতে ভূমিকা রাখবে এমনটাই মনে করছেন অনেকে৷ চীনের গণমাধ্যমেও বড় করে ছাপা হয়েছে তাঁদের বিয়ের খবরটি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন