1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

আদালতেই ঝগড়া শুরু করল ‘ভয়ালবাড়ির' দম্পতি

তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তাঁরা নারীদের প্রলোভন দেখিয়ে ঘরে নিয়ে অত্যাচার করতেন৷ সে সময় দু'জন ছিলেন স্বামী-স্ত্রী৷ পরে ছাড়াছাড়ি হয়ে গেলেও মামলার কারণে তাঁরা একইসঙ্গে দাঁড়িয়েছেন কাঠগড়ায়৷ সেখানেই শুরু হয়ে যায় ঝগড়া৷

এই সেই ‘ভয়াল বাড়ি’

এই সেই ‘ভয়াল বাড়ি’

জার্মানির হ্যোক্সটার শহরে তখন স্বামী-স্ত্রী হিসেবে এক সঙ্গেই থাকতেন তাঁরা৷ স্বামী উইলফ্রেড ডাব্লিউ সংবাদপত্রে ক্লাসিফায়েড বিজ্ঞাপন দিয়ে মেয়েদের প্রলুব্ধ করতেন৷ বিজ্ঞাপন দেখে অনেক মেয়েই ছুটে যেতেন বাসায়৷ যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তাদের আটকে ফেলা হতো এবং তারপর থেকে চলত অবর্ণনীয় অত্যাচার৷ উইলফ্রেডের তখনকার স্ত্রী আঙ্গেলিকা ডাব্লিউ সব কিছুর জন্য তাঁর সাবেক স্বামীকে দায়ী করেছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

উইলফ্রেড ডাব্লিউ অবশ্য সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷

মূল অভিযোগ অবশ্য আঙ্গেলিকার কাছ থেকে আসেনি৷ দু'জন নারী হ্যোক্সটারের ওই বাড়ি থেকে পালিয়ে এসে আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন৷ তাঁদের অভিযোগ, উইলফ্রেড ও আঙ্গেলিকার অত্যাচারে কমপক্ষে দু'জন নারী মারা গেছেন৷

জার্মান সংবাদমাধ্যম হ্যোক্সটারের ওই বাড়ির নাম দিয়েছে ‘হরর হাউস অফ হ্যোক্সটার'৷ সেই বাড়ির সাবেক কর্তা-কর্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা চলছে পাডারবর্ন শহরের আদালতে৷

জেরার মুখে উইলফ্রেড ডাব্লিউ সব অভিযোগ অস্বীকার করে দাবি করেন, শৈশব থেকেই প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে তাকে৷ মদ্যপ বাবা প্রায়ই তাঁকে পেটাতেন৷ বাবা-মায়ের ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়৷ নতুন জীবনসঙ্গী বেছে নেন মা৷ মায়ের নতুন সঙ্গীকেও বাবা হিসেবেই দেখতেন উইলফ্রেড৷ কিন্তু তিনি অল্প সময়ের মধ্যেই উইলফ্রেড এবং তাঁর বোনের ওপর যৌন নিপীড়ন শুরু করেন৷

এসিবি/ডিজি (ডিপিএ)

জার্মানিতে যে এমন ঘটনা ঘটতে পারে, তা বিশ্বেস করতে পেরেছিলেন? লিখুন মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন