1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আটক ফরাসি নাগরিক জামিনে মুক্ত

জামিনে মুক্তি পেলেন ফরাসি নাগরিক মুসা ইবনে ইয়াকুব৷ কক্সবাজার থেকে টেকনাফ যাওয়ার পথে বিজিবি-র চেকপোস্টে ভুল নাম বলা আর রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে ‘সন্দেহজনক' কাজ করার অভিযোগে পুলিশ তাঁকে আটক করে৷

অডিও শুনুন 02:06

‘অভিযোগটি ফ্রান্সের আইনে কোনো অপরাধ নয়’

পাসপোর্ট অনুযায়ী মুসার আসল নাম পুয়েমো চঁচুয়্যাঁ৷ কিন্তু বর্জার গার্ড বাংলাদেশ বা বিজিবি-র চেকপোষ্টে তিনি বলেছিলেন যে তাঁর নাম মুসা ইবনে ইয়াকুব এবং তিনি মুসলমান৷ তাঁর বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ না থাকলেও, মুসার দেয়া তথ্যের সঙ্গে তাঁর পাসপোর্টের মিল না থাকায় বিজিবি তাকে বাংলাদেশের দণ্ডবিধির ৫৪ ধারায় আটক করে৷ পরে প্রতারণার একটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে তাঁকে রিমান্ডে নেয় পুলিশ৷ কিন্তু রিমান্ডেও তাঁর কাছ থেকে তেমন তথ্য বের করতে পারেনি পুলিশ৷ তাই পুরো বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে উচ্চ আদালত মুসাকে জামিন দেয়৷ মঙ্গলবার কক্সবাজার কারাগার থেকে মুক্তি পান মুসা৷

মুসার আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. রাশেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘যে অভিযোগে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল, সেটা ফ্রান্সের আইনে কোনো অপরাধ নয়৷ বাংলাদেশে নিযুক্ত ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত একটি এফিডেফিডের মাধ্যমে নিশ্চিত করেন যে, সেদেশের কোনো নাগরিক ধর্ম পরিবর্তন করলে পাসপোর্টে নাম পরিবর্তন বাধ্যতামূলক নয়৷ উচ্চ আদালতে এই বিষয়টি দেখানোর পর আদালত রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীদের কাছ থেকে নিশ্চিত হয়ে জামিন দেয়৷''

মো. রাশেদ আরো বলেন, ‘‘আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) কক্ষবাজারের আদালতে হাজিরা দেবেন মুসা৷'' জানা যায়, উচ্চ আদালত এ মুহূর্তে তাঁর দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে৷ ফলে বর্তমানে মুসা কক্সবাজারেই একটি হোটেলে অবস্থান করছেন৷''

টেকনাফ থানার সদ্য বিদায়ী ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বা ওসি আতাউর রহমান খান এর আগে ডয়চে ভেলেকে বলেন যে, আটক এই ফরাসি নাগরিক টেকনাফে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ফ্রান্স ভিত্তিক এনজিও বারাকা সিটি-র হয়ে কাজ করতেন৷ সেখানেও আসল নামের পরিবর্তে মুসা ইবনে ইয়াকুব হিসেবেই নিজের পরিচয় দিতেন তিনি৷ সেই নামেই তিনি ঐ এলাকায় পরিচিত ছিলেন৷

ওসি জানান, ‘‘গত ২২শে ডিসেম্বর আটক হন মুসা৷ টেকনাফ রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্প এলাকায় সন্দেহজনক আচরণ এবং কাজকর্মের জন্যই তাঁকে আইনের আওতায় নেয়া হয়৷''

মুসার বিরুদ্ধে কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আছে কিনা জানতে চাইলে ওসি দাবি করেন, ‘‘ফরাসি এই নাগরিক টুরিস্ট ভিসায় বাংলাদেশে এসে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নানা ধরণের তৎপরতা চালাচ্ছিলেন৷ এছাড়া তিনি মুসলিম না হয়েও মুসলিম পরিচয় এবং নাম ধারণ করেন৷'' কিন্তু মুসলমান নাম নেয়া কোনো অপরাধ নয়! তাই মুসা ঠিক কী ধরনের অপরাধ করেছেন জানতে চাইলে ওসি বলেন, ‘‘এ নিয়ে এখন তদন্ত হচ্ছে৷ তদন্তে অপরাধের ধরন জানা গেলে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা হবে৷''

মুসার মুক্তির বিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজারের জেল সুপার সাঈদ হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘উচ্চ আদালতের নির্দেশনা আসার পর আমরা যাচাই-বাছাই করেছি৷ অ্যাটর্নি জেনারেল, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলের সঙ্গেও কথা বলেছি৷

রাষ্ট্রপক্ষের কোনো অভিযোগ না থাকায় তাঁর আইনজীবী মো. রাশেদের জিম্মাতেই তাঁকে মুক্তি দেয়া হয়েছে৷''

এদিকে ফ্রান্স দূতাবাসের প্রেস অ্যাটাচে সাখাওয়াত হোসেন বার্তা সংস্থা এএফপিকে জামিনের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘‘আদালতের অনুমতি ছাড়া দেশত্যাগ করা যাবে না – এই শর্তে ৭০ দিন পর জামিনে মুক্তি পেয়েছেন মুসা৷''

ওদিকে এই ফরাসি নাগরিকের মুক্তির জন্য সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক পর্যায়ের ক্যাম্পেইন কাজে লেগেছে বলে মনে করেন তাঁর আইনজীবী মো. রাশেদ৷ টুইটারে #FreeMoussa বা #ফ্রিমুসা নামে একটি হ্যাশট্যাগ চালু হয়৷ ফেসবুকেও প্রায় এক লাখ ফেসবুক ব্যবহারকারী মুসার মুক্তির জন্য একটি আবেদনে সই করেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়