1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

আজ জার্মান পুনরেকত্রীকরণ দিবস

দুই জার্মানি এক হওয়ার ২৬ বছর পরও পূর্ব আর পশ্চিমের মানুষের মধ্যে দ্বিধা, সন্দেহের ‘বার্লিন প্রাকার' কিন্তু রয়েই গিয়েছে৷ পুবের মানুষ আর পশ্চিমের মানুষেরা নিজেদের একই জার্মান জাতি হিসেবে দেখতে শেখেনি আজও৷

বার্লিন প্রাকার খাড়া ছিল ১৯৬১ সাল থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সোভিয়েত অধিকৃত এলাকা থেকে যে ‘জার্মান গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র' বা জিডিআর নামধারী সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রটির সৃষ্টি হয়, তার বাসিন্দারা বার্লিন প্রাকার তথা ‘লৌহ যবনিকার' আড়ালে একরকম বন্দিই ছিল৷

১৯৮৯ সালে সীমানা খুলে যাওয়ার পর সাবেক পূর্ব জার্মানির হাজার হাজার বাসিন্দা পশ্চিমে পাড়ি দেন৷ তাঁরা চেয়েছিলেন স্বাধীনতার স্বাদ পেতে, যথেচ্ছ যাওয়া-আসা করতে, জিডিআর-এ যে সব ভোগ্যপণ্য পাওয়া যেত না, সেগুলো একবার কিনতে৷ যার ফলে জিডিআর-এর মানুষদের সেই সুপরিচিত সেলেটরঙা জুতো, কৃত্রিম চামড়ার জ্যাকেট আর প্যারাশুটের কাপড় থেকে তৈরি জগিং স্যুট কিছুদিনের মধ্যেই উধাও হলো৷ মাথার চুলের ফ্যাশন পাল্টে গেল৷ তথাকথিত ‘‘অসি'', মানে পুবের মানুষ, আর ‘‘ওয়েসি'', মানে পশ্চিমের মানুষদের মধ্যে যাবতীয় ফারাক যেন মুছে গেল৷ অন্তত চেহারায়৷

প্রাইড অ্যান্ড প্রেজুডিস

যা পড়ে রইল, তা হলো এক ধরনের নতুন বৈরিতা এবং নাক কুঁচকোনো৷ পুবের জার্মানরা আজও পশ্চিমের জার্মানদের ‘‘উদ্ধত, অর্থসর্বস্ব, আমলাতন্ত্রী, কৃত্রিম'' বলে ভাবে – আলেন্সবাখ জনমত সমীক্ষা প্রতিষ্ঠানের জরিপে যেমন প্রকাশ পেয়েছে৷ ২০১২ সালের জরিপটিতে দেখা যায় যে, পুবের মানুষদের পশ্চিমের মানুষদের সম্পর্কে যত পূর্বনিহিত ধারণা থাকে এবং আছে, পশ্চিমের মানুষদের পুবের মানুষদের সম্পর্কে কিন্তু তা নয়৷

ফরসা জনমত সমীক্ষা প্রতিষ্ঠানের জরিপে এমনকি ধরা পড়েছে যে, পূর্ব আর পশ্চিমের জার্মানরা আজও নিজেদের একই দেশ, একই জাতি হিসেবে ভাবতে পারেন না৷ জার্মানির পূর্বাঞ্চলের মানুষরা নাকি আজও নিজেদের ‘‘দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক'' বলে বোধ করেন৷ পুব এলাকার জীবনযাত্রার মান তাদের কাছে বৈষম্যমূলক বলে মনে হয়৷ পূর্বাঞ্চলের রাস্তাঘাট, বাড়িঘর, অবকাঠামোর আধুনিকীকরণ করে সর্বাধুনিক পর্যায়ে আনা হয়েছে বটে, কিন্তু সেখানকার বেতন-পারিশ্রমিকের মান আজও পশ্চিমের চেয়ে ২০ শতাংশ কম৷ অবসরভাতাও পশ্চিমের চেয়ে দশ শতাংশ কম৷

অর্থনীতিবিদরা বলেন, এই বৈষম্যের একটি মূল কারণ হলো, পুবে যে সব সংস্থা কারখানা খুলেছে এবং ব্যবসা ফেঁদেছে, তারা সবই পশ্চিমের বড় কোম্পানিগুলিকে রসদ কিংবা পার্টস সরবরাহ করে থাকে৷ পুবের সে সব সংস্থার মুখ্য কার্যালয় আবার হয় পশ্চিমে৷ আবার পশ্চিমের দিকে চোখ ফেরালে দেখা যাবে, সেখানকার মানুষজনও তথাকথিত ‘‘অসি'' বা পুবের মানুষদের সম্পর্কে নানা ধরনের অপ্রীতিকর ধারণা পোষণ করে থাকেন৷

এঁরাও কম যান না

‘‘ওয়েসি''-দের মতে ‘‘অসি''-রা সর্বদাই অসন্তুষ্ট, অতৃপ্ত; তাদের সন্দেহ বাতিক, তাদের সব কিছুতেই ভয়৷ পশ্চিমের জার্মানদের মাত্র ৪৩ শতাংশ মনে করেন পুবের মানুষরা কাজ করতে ইচ্ছুক কিংবা কাজের বিভিন্ন পরিবেশ ও শর্তের সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে নিতে প্রস্তুত৷ ‘‘সংহতি অনুদান'' নাম দিয়ে জার্মানির সব মানুষের কাছ থেকে কর আদায় করা হয় পূর্বাঞ্চলের পুনর্নির্মাণের জন্য৷ পশ্চিমের অধিকাংশ মানুষ সেই ‘‘সংহতি অনুদান'' যত তাড়াতাড়ি সম্ভব খতম করে দেওয়ার পক্ষে৷ তাদের অনেকেই এখনো খেয়াল করে উঠতে পারেননি যে, এই অনুদান পুবের মানুষদেরও দিতে হয়৷

সমাজতত্ত্ববিদদের মতে ‘‘অসি'' আর ‘‘ওয়েসি''-দের মধ্যে ব্যক্তিগত পর্যায়ে যথেষ্ট সম্পর্ক, যথেষ্ট যোগাযোগ গড়ে ওঠেনি৷ এছাড়া একটি ভৌগোলিক সত্য হলো, জার্মানির পশ্চিমাঞ্চল জার্মানির পূর্বাঞ্চলের চেয়ে আকারে চারগুণ বেশি৷ কাজেই পারস্পরিক চেনাজানাটা অংশত একটা দূরত্বের সমস্যা হতে পারে৷ কিন্তু বিগত কয়েক বছরে সেই ‘‘দূরত্ব'' ক্রমেই কমে এসেছে৷

তাছাড়া তথাকথিত ‘‘মাওয়ারফাল'' বা বার্লিন প্রাকারের পতনের পর একটা গোটা প্রজন্ম জন্ম নিয়েছে, যারা অসি-ওয়িসে ভেদাভেদ সম্পর্কে জানে হয়ত – কিন্তু পরোয়া করে না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন