1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আজই বিমান হামলা শুরু হতে পারে লিবিয়ার ওপর

লিবিয়ায় গাদ্দাফি-বিরোধী বিদ্রোহীদের মদত করতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ ‘নো ফ্লাই জোন' সহ অন্যান্য কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে বটে, কিন্তু শুক্রবার গাদ্দাফি সারা দিন ধরে সেই পরিকল্পনা বানচাল করার চেষ্টা চালিয়ে গেলেন৷

default

এখনো চালাকির পথ খুঁজছেন গাদ্দাফি

গাদ্দাফির পররাষ্ট্রমন্ত্রী যখন জাতিসংঘের রায় মেনে নেওয়ার ও অস্ত্রবিরতির কথা বলছিলেন, ঠিক সেই মুহূর্তেই মিসুরাটা সহ অন্যান্য শহরে গাদ্দাফির বাহিনী বিদ্রোহীদের সঙ্গে সংঘর্ষ চালিয়ে যাচ্ছিলো৷ ফলে গদ্দাফির কথা ও কাজের মধ্যে ফারাক আবার স্পষ্ট হয়ে গেল৷ বেনগাজি শহরে বিদ্রোহীরাও গাদ্দাফিকে বিশ্বাস করছে না৷ শুক্রবার রাতে গুজব ছড়িয়ে পড়ে, যে গাদ্দাফি বাহিনী শহরের কাছাকাছি এসে পড়েছে৷ মরিয়া হয়ে গাদ্দাফি এখন নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাবকে ‘নগ্ন উপনিবেশবাদ' হিসেবে বর্ণনা করছেন৷

সামরিক অভিযানের প্রস্তুতি

গাদ্দাফির সামনে অন্য কোনো পথ আর খোলা নেই৷ অবিশ্বাস্য দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে ঘটনাপ্রবাহ৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা কড়া ভাষায় লিবিয়াকে সাবধান করে দিয়েছেন৷ তিনি বলেছেন, নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব আলোচনার উর্দ্ধে৷ আজ শনিবার ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে এক বৈঠকে মিলিত হচ্ছেন ফ্রান্স, ব্রিটেন, জার্মানি সহ একাধিক দেশের শীর্ষ নেতারা৷ উপস্থিত থাকবেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিন্টন ও আরব দেশগুলির প্রতিনিধিরাও৷ নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব কার্যকর করার জন্য প্রয়োজনীয় সামরিক কাঠামো ও সমন্বয় নিশ্চিত করবেন তাঁরা৷ জাতিসংঘে ফ্রান্সের দূত জেরার এমনকি বলেছেন, বৈঠকের কয়েক ঘন্টার মধ্যেই লিবিয়ার উপর সামরিক হস্তক্ষেপ শুরু হয়ে যেতে পারে৷ অর্থাৎ আজই লিবিয়ার উপর বিমান হামলার সম্ভাবনা রয়েছে৷ ন্যাটোর সঙ্গে কাতার ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিমানও এই অভিযানে যোগ দিতে চলেছে৷

Krieg in Libyen

কড়া ভাষায় লিবিয়াকে সতর্ক করে দিলেন ওবামা

জার্মানির ভূমিকা

জার্মান সংসদে বিরোধী সামাজিক গণতন্ত্রী ও সবুজ দল সরকারের কড়া সমালোচনা করেছে৷ তাদের মতে, লিবিয়ার মানুষের প্রতি ভুল সংকেত পাঠানো হয়েছে৷ সরকার অবশ্য বলছে, নীতিগতভাবে তারা প্রস্তাবের পক্ষে হলেও অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ এই অভিযানে অংশ নিতে চায় না৷ তবে ন্যাটোর বাকি দেশগুলির অংশগ্রহণ সহজ করতে জার্মানি আফগানিস্তানের আকাশসীমায় নজরদারির কাজ বাড়িয়ে দিতে প্রস্তুত৷ এর মধ্যে গাদ্দাফি জার্মানির উদ্দেশ্যে পর্যবেক্ষক পাঠানোর যে প্রস্তাব দিয়েছিলেন, বার্লিন তা নাকচ করে দিয়েছে৷

প্রতিবেদন: সঞ্জীব বর্মন
সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়