1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

আঙ্গেলা ম্যার্কেলের জিডিআর অতীত নিয়ে প্রশ্ন

জার্মান চ্যান্সেলরের নতুন জীবনীর নাম ‘আঙ্গেলা এম.-এর প্রথম জীবন’৷ জীবনীর দুই লেখকের দাবি, তাঁরা ম্যার্কেলের জিডিআর অতীত সম্পর্কে নানা নতুন তথ্য খুঁজে পেয়েছেন৷ বিশেষজ্ঞরা অবশ্য এর মধ্যে বিশেষ নতুন কিছু দেখছেন না৷

গেয়র্গ রয়েথ ও গুইন্থার লাখমান তাঁদের বইতে যে সব ‘চমকে দেওয়ার মতো' তথ্য দিয়েছেন, তার প্রথমটি হলো: আঙ্গেলা ম্যার্কেল তৎকালীন পূর্ব জার্মানির কমিউনিস্ট যুব সংগঠন ‘এফডিইয়ট'-এর হয়ে ‘‘অ্যাজিটেশন ও প্রোপাগান্ডা'' করতেন৷ যা সে আমলে জিডিআর-এর মানুষদের পক্ষে আশ্চর্য কিছু না হলেও, ফেডারাল জার্মান প্রজাতন্ত্রের চ্যান্সেলরের পক্ষে কিছুটা বিব্রতকর বৈকি!

তার ওপর ৩৩৬ পাতার জীবনীটি প্রকাশিত হলো সংসদীয় নির্বাচনের ঠিক চার মাস আগে: সাড়া তোলা না হলেও, কান খাড়া করার সেটাও একটা কারণ৷

Buchcover - Das erste Leben der Angela M.

নতুন বইয়ের কাভার

লেখক লাখমান ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, এ যাবৎ ম্যার্কেলের জীবনীগুলিতে যে ফাঁক থেকে গেছে, সেগুলোই তাঁরা ভরাট করতে চেয়েছেন৷ কিন্তু তাঁরা যে ধরনের তথ্য দিয়ে সেই ফাঁক ভরাট করার চেষ্টা করেছেন, জার্মান সরকার তা-তে চাঞ্চল্যকর কিছুই দেখেন না – সরকারি মুখপাত্রের মাধ্যমে জানানো হয়েছে এ কথা৷

‘আমার পথ'

বলা হয়েছে, ২০০৫ সালে ‘‘মাইন ওয়েগ'' বা ‘আমার পথ' নাম দিয়ে ম্যার্কেলের যে সাক্ষাৎকার ভিত্তিক জীবনী বেরিয়েছিল, তা-তে ম্যার্কেল তাঁর জিডিআর অতীত সম্পর্কে পূর্ণাঙ্গ ও অতি ব্যক্তিগত অবস্থান জানিয়েছিলেন৷ লাখমান কিন্তু বলছেন, ‘‘মাইন ওয়েগ''-এ ম্যার্কেল শুধু বলেছেন, তিনি অ্যাজিটেশন ও প্রোপাগান্ডার কাজ করেছেন কিনা, সেটা তাঁর মনে নেই৷

অথচ তার দু'জন সাক্ষী আছে, বলেছেন লাখমান৷ দু'জনেই ম্যার্কেল সে সময় যেখানে ছিলেন, সেই বিজ্ঞান অ্যাকাডেমিতে এফডিইয়ট-এর সেক্রেটারি ছিলেন৷ তাঁরা ম্যার্কেলের বন্ধু ছিলেন এবং ম্যার্কেল সে আমলে তাঁদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে সহযোগিতা করেছেন৷ এছাড়া রয়েথ ও লাখমানের বইতে আরো একটি নতুন তথ্য আছে, বলে লাখমান দাবি করেন: ম্যার্কেল সে আমলে প্রতিষ্ঠানের সরকারি শ্রমিক সংগঠনের নেতৃপর্যায়ে সংশ্লিষ্ট ছিলেন৷

Angela Merkel DDR

দেখুনতো ম্যার্কেলকে খুঁজে পাওয়া যায় কী না...স্কুলে পড়ার সময়কার ছবি

ভাষান্তর

জিডিআর-এর প্রণালীটা ছিল তৎকালীন পশ্চিম জার্মানি কিংবা হালের ফেডারাল জার্মানির থেকে অনেক ক্ষেত্রে আলাদা৷ কাজেই এই সব তথ্যের সঠিক মূল্যায়ন করা প্রয়োজন৷ বার্লিনের ফ্রি ইউনিভার্সিটির জিডিআর সংক্রান্ত গবেষণা সমিতির এক পরিচালক ক্লাউস শ্র্যোডার ডয়চে ভেলেকে বলেন: ‘‘যুব সংগঠনের সদস্য হওয়া, এমনকি কোনো একটা পদ নেওয়ার বিশেষ কোনো তাৎপর্য নেই৷'' যুব সংগঠনের হয়ে কাজ করাটা একটা সামাজিক দায়িত্ব ছিল৷ আর ‘‘অ্যাজিটেশন ও প্রোপাগান্ডা'' বলতে নাৎসি আমলে গ্যোবেলস-এর প্রচারণার কথা ভাবলে চলবে না৷ তার অর্থ এ-ও হতে পারে যে, এফডিইয়ট-এর সিদ্ধান্তগুলো ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে বিজ্ঞপিত করা, কিংবা সভা-সমাবেশের আয়োজন করা৷ প্রতিষ্ঠানের সরকারি শ্রমিক সংগঠনের নেতৃপদও বিশেষ কিছু ছিল না: জিডিআর-এর লক্ষ লক্ষ মানুষ তা করেছেন৷

Angela Merkel als junges Mädchen

১৯৭৩ সালে ক্যাম্পিং করতে গিয়ে রান্না করছেন ম্যার্কেল

আসল কথা হলো, ম্যার্কেল কমিউনিস্ট এসইডি দলের সদস্য ছিলেন না – জিডিআর-এর বিশ লাখ মানুষ যে এসইডি-র সদস্য হয়েছিলেন৷ শ্র্যোডারের মতে, জিডিআর-এ কোনো না কোনো সংগঠনের সদস্য না হয়ে উপায় ছিল না৷ কিন্তু অদৃশ্য সীমারেখাটা ছিল এসইডি কিংবা ব্লকের অন্য কোনো দলের সদস্যতা৷ সেটা গ্রহণ করার অর্থ ছিল, তাঁদের একজন হয়ে যাওয়া৷

ম্যার্কেলের এফডিইয়ট সংগঠনের সদস্যতার চেয়ে বেশি খবর রয়েথ ও লাখমানের বইতে নেই৷ ম্যার্কেল কতদূর জিডিআর মতাদর্শে প্রভাবিত ছিলেন, সে সম্বন্ধে কোনো তথ্য তাঁদের কাছে নেই৷ চ্যান্সেলরের দপ্তরে বিভিন্ন প্রশ্নের একটা তালিকা পাঠিয়েও কোনো উত্তর পাননি তাঁরা, বলেছেন লাখমান৷ তবে তার অর্থ এই নয় যে, এই দুই লেখক হঠাৎ আঙ্গেলা ম্যার্কেলের অতীত সম্পর্কে নতুন কিছু আবিষ্কার করে বসে আছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন