1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

আগ্নেয়গিরি থেকে অনেক কিছু শেখার আছে

আগ্নেয়গিরি বলতেই অধিকাংশ মানুষের চোখে ভেসে ওঠে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ছবি৷ অথচ জিওফিজিসিস্টরা জানেন, এই ভলক্যানিজম-এর ফলেই ভূত্বকের ‘রিসাইক্লিং’ চলে৷

ভলক্যানিজম বা আগ্নেয়গিরি সংক্রান্ত গতিবিধির ফলে ভূত্বকের পরিবর্তন ঘটে; বিভিন্ন মহাদেশের আকার বদলে যায় ও পৃথিবীর উত্তপ্ত অভ্যন্তরের সম্প্রসারণ ঘটে৷ বিজ্ঞানীরা ধীরে ধীরে ভলক্যানিজমের গুরুত্ব উপলব্ধি করতে শিখেছেন৷

আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণে ভারি পদার্থ পৃথিবীর ‘ইনার কোর'-এর দিকে নেমে যায় এবং অপেক্ষাকৃত হালকা পদার্থ উপরে উঠে আসে বলে বিজ্ঞানীদের বিশ্বাস

জার্মান রিসার্চ সেন্টার ফর জিও-সায়েন্সেস-এর ডক্টর ব্রিগার ল্যুয়র বলেন, ‘‘পৃথিবীর ‘ইনার কোর' বা মর্মবস্তু বেড়ে চলেছে, ভূগোলকের ঘূর্ণনের উপর যার প্রভাব পড়ছে৷ একদিকে পৃথিবীর আবর্তনের উপর চন্দ্রসূর্যের প্রভাব – জোয়ারভাটার মতো৷ ‘ইনার কোর'-এর গঠন পৃথিবীর আবর্তনের গতিবেগ বৃদ্ধি করছে; অপরদিকে চন্দ্রসূর্যের মাধ্যাকর্ষণ শক্তি সেই গতিবেগ রুখছে৷''

পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্র

৫,০০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস-এর বেশি তাপমাত্রায় পৃথিবীর অভ্যন্তরে সব কিছু গলে যায়, যার ফলে একটি ডায়নামো এফেক্ট সৃষ্টি হয়৷ এই এফেক্ট পৃথিবীর চারপাশে ম্যাগনেটিক ফিল্ড সৃষ্টি করে বিশ্বকে সূর্যের বিকিরণ থেকে বাঁচিয়ে রাখে৷ কালে কালে এই ম্যাগনেটিক ফিল্ডগুলি পারস্পরিকভাবে দিক পরিবর্তন করে৷ বর্তমানে উত্তরমেরু বছরে পঞ্চাশ কিলোমিটার গতিতে দক্ষিণ দিকে চলেছে৷

পটসডাম-এর জিএফজেড-এর প্রফেসর ডক্টর হ্যারমান ল্যুয়র বলেন, ‘‘আমরা আজও ঠিক বুঝতে পারি না, এই ডায়নামো কী ভাবে কাজ করছে৷ অতীতে আমরা দেখেছি, কখনো-সখনো ম্যাগনেটিক ফিল্ডের পরিবর্তন ঘটেছে: উত্তর মেরু দক্ষিণে চলে গেছে, দক্ষিণ মেরু উত্তরে এসেছে৷

কিন্তু পৃথিবীর চৌম্বক মেরু শেষবার এইভাবে বদলেছে আজ থেকে ৭৮০ বছর আগে৷ কাজেই সেটা আবার ঘটার সময় বস্তুত পার হয়ে গেছে৷''

গোল নয়, গোলালু

চ্যাম্প এবং সোয়ার্ম, এই দু'টি সর্বাধুনিক স্যাটেলাইট দেখিয়েছে যে, আমাদের গ্রহটি আকারে ঠিক গোলাকৃতি নয়, বরং একটা আলুর মতো৷ আবার তার আকারও বদলায় প্রতিদিন৷ কিন্তু কেন? জিএফজেড, পটসডাম-এর ড. ক্রিস্টফ ফ্যোয়রস্টে বলেন, ‘‘ভূত্বক, অর্থাৎ পৃথিবীর মাটি প্রতিদিন চল্লিশ সেন্টিমিটার ওঠে-নামে, তাও আবার দিনে দু'বার৷ এটা হল চন্দ্রসূর্যের মাধ্যাকর্ষণগত প্রভাবের ফলে, যেমন জোয়ারভাটা৷''

আধুনিক বিজ্ঞান ও যন্ত্রপাতি আমাদের দৃষ্টি খুলে দিয়েছে৷ স্যাটেলাইটের কল্যাণে আমরা আজ জানি, এই সব বিপজ্জনক আগ্নেয়গিরি আছে বলেই পৃথিবীতে জীবনও আছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক