1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

আগামীতে বন্যার প্রকোপ বাড়বে ভারতে

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ভারতের একটা বিশাল অংশ আরও বেশি বন্যায় কবলিত হওয়ার আশংকা রয়েছে৷ সরকার বলছে, ২০৩০’এর দশকে ভারতে বন্যার প্রকোপ বাড়বে ১০ থেকে ৩০ শতাংশ৷

default

সাহায্যের প্রত্যাশায় বন্যা দুর্গতরা

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ভারতের কৃষি, পানি, স্বাস্থ্য, প্রাকৃতিক ইকো সিস্টেম ও জীববৈচিত্র্যে কী ধরণের প্রভাব পড়ছে তার উপর গবেষাণামূলক সমীক্ষা চালায় পরিবেশ এবং বন মন্ত্রণালয়৷ সেই সমীক্ষারই ফল প্রকাশ করল সরকার৷ সেখানে বলা হয়েছে, হিমালয় অঞ্চলে তাপমাত্রা বৃ্দ্ধির সঙ্গে বৃদ্ধি পাবে প্লাবন এবং বাড়বে খরা৷ এবং তার প্রভাব গিয়ে পড়বে ফসল এবং গবাদি পশুর উপর৷

সমীক্ষার রিপোর্টটি প্রকাশ করার সময় পরিবেশ মন্ত্রী জয়রাম রমেশ বলেছেন, ‘‘পৃথিবীর আর কোনো দেশ নেই যে দেশটি জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ভারতের মতো এতদিক থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হবে৷''

হিমালয় অঞ্চল, পশ্চিম ঘাট এলাকা, উপকূলীয় এলাকা এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চল এই চারটি এলাকায় ১৯৭০'এর দশকের সঙ্গে তুলনা করলে বৃষ্টিপাত পাঁচ থেকে দশ দিনের মত বাড়তে পারে বলে উল্লেখ করা হয়েছে৷ এই অঞ্চলগুলোতে ধান উৎপাদন কিছুটা বাড়ার সম্ভাবনা থাকলেও ভুট্টা ও জোয়ারের মতো অন্যান্য ফসল উৎপাদন কমে যাবে৷

বলা হচ্ছে, তাপমাত্রা ১ দশমিক ৭ থেকে ২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বৃদ্ধি পাবে বিশেষ করে গ্রীষ্মকালে৷ যার প্রভাব পড়বে গবাদি পশুর উপর৷ এতে করে গরু-ছাগল কম দুধ দেবে৷ একদিকে হিমালয় অঞ্চলে খরা দেখা দেবে, অন্যদিকে অন্য এলাকাগুলোতে বন্যার প্রকোপ বাড়তে পারে ১০ থেকে ৩০ শতাংশ৷৷ যার ফলে রাস্তা-ঘাট ও সেতু ভেঙে যাবে৷ ক্ষতিগ্রস্ত হবে অবকাঠামো৷

এই রিপোর্ট তৈরি করার জন্য ‘দ্য ইন্ডিয়ান নেটওয়ার্ক ফর ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যাসেসমেন্ট ' সারা দেশের ২শ ২০ জন বিজ্ঞানীকে একত্রিত করেছিল৷ পরিবেশ মন্ত্রী বলেছেন, ‘‘ সমীক্ষাটি ২০৩০'এর দশকে জলবায়ু পরিবর্তনের সম্ভাব্য প্রভাব নিয়ে প্রথম সমন্বিত এবং দীর্ঘমেয়াদী এক মূল্যায়ন৷''

প্রতিবেদন: জান্নাতুল ফেরদৌস

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়