1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

আকাশে পালতোলা নৌকো ওড়াচ্ছেন উদ্ভাবক

আকাশে বা পানির নীচে সাইকেল চালাবার অভিজ্ঞতা হয়েছে কি? এক ফরাসি উদ্ভাবক এমন সব প্রচেষ্টা চালিয়ে থাকেন৷ আপাতত তিনি আকাশে পালতোলা নৌকা ওড়াতেব্যস্ত৷ লক্ষ্য পর্যন্ত পৌঁছাতে না পারলেও তাঁর প্রযুক্তি কাজ করছে৷

সম্প্রতি ফ্রান্সের দক্ষিণে কোৎ দাজুর উপকূলে নিজের তৈরি বিমানে নীরবে উড়ে বেড়িয়েছেন স্টেফান রুসঁ৷ তিনি একাধারে অ্যাডভেঞ্চারার ও উদ্ভাবক৷ এই প্রথম নিজের তৈরি বিমান আকাশে উড়িয়েছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘এটা অবিশ্বাস্য৷ আমরা অনেক কিছু পরীক্ষা করতে পারি৷ যেমন নৌকার উপর সেপেলিন ফোলানো, আরও অনেক কিছু৷ বেশ স্ট্রেস-এর ব্যাপার৷''

একদিন ভোর পাঁচটা নাগাদ নিস শহরের কাছে ভিলফ্রঁশ-সুয়র-ম্যার-এর বন্দরে যাত্রা শুরু হয়েছিলো৷ এক হাইড্রোফয়েল বোট থেকে শুরু হলো ‘এয়ারোসেল' নামের অভিযান, যার অর্থ আকাশের পালতোলা নৌকা৷ নৌকোয় রাখা হয়েছিলো সেপেলিন উড়োজাহাজের জন্য ১৯টি হিলিয়াম সিলিন্ডার৷ ছিলেন রুসঁ-এর সহকর্মী ডেনিস ডেক্ল্যার্ক৷ অভিযানের উদ্দেশ্য, নিজেদের তৈরি উড়োজাহাজ নিয়ে আকাশপথে প্রায় ২০০ কিলোমিটার দূরে কর্সিকা দ্বীপে পৌঁছানো৷

এই উদ্বোধনী যাত্রার সময় ধরা হয়েছিলো প্রায় ৫ ঘণ্টা৷ কিন্তু প্রস্তুতি পর্বেই সমস্যা দেখা যাচ্ছিল৷ স্টেফান রুসঁ বলেন, ‘‘এই প্রকল্পের পেছনে প্রায় ১০ বছরের পরিশ্রম রয়েছে৷ আইডিয়াটা হলো, আমরা সেপেলিন-টিকে পালতোলা নৌকার মতো এগিয়ে নিয়ে যাবো৷ কিন্তু তাতে সমস্যা হলো, সেপেলিন ফোলানোর জন্য প্ল্যাটফর্ম, বন্দর বা বিমানবন্দরের মতো শান্ত পরিবেশ প্রয়োজন৷ কিন্তু আমাকে তার অনুমতি দেওয়া হয়নি৷ ফলে শেষ পর্যন্ত আমাকে সমুদ্রের বুকে প্রকল্পটি চালাতে হয়েছে৷''

সমুদ্রের একটি খাঁড়িতে বাতাসের ধাক্কা বাঁচিয়ে পাইলট ১৮ মিটার লম্বা সেপেলিন-এ হিলিয়াম ভরছেন৷ এই বেলুন খুবই নাজুক, এই অবস্থায় কোনো ধাক্কা লাগালে চলবে না৷ সেটি ফেটে গেলে অভিযানের দফারফা৷ কিন্তু স্টেফান ছাড়ার পাত্র নয় – তিনি এই প্রচেষ্টা চালিয়ে ইতিহাস গড়তে চান৷ স্টেফান রুসঁ বলেন, ‘‘এটি গত শতাব্দীর শুরুর দিকের দারুণ এক আইডিয়া৷ ১৯৯২ সালে প্রথম প্রচেষ্টা চালিয়েছিলেন জেরার ফেল্ডজার ও নিকোলা উলো৷''

স্টেফান রেকর্ডের পিছনে দৌড়াতে অভ্যস্ত৷ ২০০৮ সালে তিনি নিজেরই তৈরি প্যাডেল-চালিত সেপেলিন তৈরি করে ইংলিশ চ্যানেল পেরোনোর চেষ্টা করেছিলেন৷ কিন্তু সে বার তীরে এসে তরি ডুবেছিল৷ বছর তিনেক পর তিনি ‘স্কুবস্টার' নামের এক সাবমেরিন ডিজাইন করেন, যা একই ভাবে জলের নীচে চলতে পারবে৷ এর জন্য তিনি মার্কিন মেরিন-এর উদ্ভাবনী পুরস্কার পেয়েছেন৷

আকাশের পালতোলা নৌকা সেই প্রথম দুটি প্রচেষ্টারই বিবর্তনের ফল৷ স্টেফান বায়ুশক্তির উপর জোর দিয়েছেন৷ সেপেলিন-এর দিক পরিবর্তনের জন্য তৈরি করেছেন এক বৈঠা৷ সেটি জলে ডুবে থাকছে এবং দড়ির সাহায্যে বেলুনের সঙ্গে যুক্ত৷ স্টেফান রুসঁ বলেন, ‘‘এভাবে বাতাস বেলুনের সংস্পর্শে আসছে৷ আমি এই দড়ি টানলে সেপেলিন বাতাসের ধাক্কা খাচ্ছে৷ কিন্তু দড়িটি অন্যভাবে টানলে সেপেলিন অন্য দিকে ঘুরে যাচ্ছে৷''

ওড়ার ঠিক আগে শেষবারের মতো পরীক্ষা হয়৷ স্টেফান রুসঁ বলেন, ‘‘আমি সমুদ্রের উপর থাকলে এবং আমাকে ফিরিয়ে আনতে হলে তোমরা জলে বৈঠাটি অথবা দড়িটি ধরার চেষ্টা কোরো৷''

তারপর আকাশে ওড়ার পালা৷ বিনা সমস্যায় যাত্রা শুরু হলো৷ দীর্ঘমেয়াদি এই প্রকল্পে প্রায় ২০ লক্ষ ইউরো বিনিয়োগ করা হয়েছে৷ ১৫ মিটার উচ্চতায় পাইলট প্রথম বার কনট্রোল পরীক্ষা করে দেখেছেন৷ স্টেফান রুসঁ বলেন, ‘‘আমি প্রায় ৯০ শতাংশ সন্তুষ্ট৷ কিন্তু পূর্বাভাষ সত্ত্বেও বাতাস বড় কম৷ ঘণ্টায় ১০ কিলোমিটার বেগে বাতাস বইলে আমাদের ভালো হতো৷''

বাতাসের অভাবে স্টেফান-কে ঘণ্টাখানেক পরেই যাত্রা শেষ করতে হয়৷ তা সত্ত্বেও ‘এয়ারোসেল' যানের প্রথম যাত্রাকে আংশিক সাফল্য হিসেবে দেখছেন তিনি৷ প্রযুক্তি কাজ করেছে৷ আগামী বছর তিনি আবার চেষ্টা করবেন৷ যথেষ্ট বাতাস বইলে তিনি কর্সিকা পর্যন্ত উড়তে চান৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক