1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

আকাশের ক্লাসরুম

আখেন ফলিত বিজ্ঞান বিশ্ববিদ্যালয়ের এয়ারোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্রদের গ্লাইডিং শিখতে হয়, তা জানেন? মানে শিখলে ভালো, কেননা, ভবিষ্যতে যারা বিমান তৈরি করবেন, তাদের বিমান চালনা সম্পর্কে একটা ধারণা থাকা ভালো৷

আখেন ফলিত বিজ্ঞান বিশ্ববিদ্যালয়ের এয়ারোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্রদের গ্লাইডিং শিখতে হয়, তা জানেন? মানে শিখলে ভালো, কেননা, ভবিষ্যতে যারা বিমান তৈরি করবেন, তাদের বিমান চালনা সম্পর্কে একটা ধারণা থাকা ভালো৷ আর মজাটা হলো, উপরি রোজগার...৷

ক্লাসরুম কিংবা লেকচার হলের পড়া নয় – এ হলো মাটি ছেড়ে আকাশে ওঠা! নিঃশব্দে ভেসে যাওয়া...

আবার ল্যাবরেটরিতে একটি জেট ইঞ্জিনের ধোঁয়া বেরোনোর উপর নজর রাখা৷ অথবা একটি স্যাটেলাইট তৈরি করে সেটিকে কক্ষপথে পাঠানো৷ আখেনের ফলিত বিজ্ঞান বিশ্ববিদ্যালয়ে এ সবই সম্ভব৷

ভোরবেলা৷ যারা ভবিষ্যতে বিমানপোত তৈরি করবেন, তাদের জন্য একটি বিশেষ অধিবেশন৷ আগামী দু'সপ্তাহ ধরে গ্লাইডিং হবে একমাত্র পাঠ্য বিষয়৷ এয়ারোস্পেস ইঞ্জনিয়ারিংয়ের ছাত্রদের পক্ষে এক নতুন অভিজ্ঞতা৷ এই উড়ন্ত পাঠশালার মাস্টারমশাই হচ্ছেন পেটার ডামান৷ পাইলট ও ফ্লাইং ইনস্ট্রাকটর হিসেবে তিনি এত স্বেচ্ছাসেবী পেয়ে খুব খুশি৷ তবুও কাজটা পুরো মনোযোগের সঙ্গে করতে হবে৷ আখেনের ফলিত বিজ্ঞান বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক পেটার ডামান জানালেন, ‘‘আকাশে ওঠার আগে প্রত্যেকটি বিমানের খুঁটিনাটি দিকগুলোও ঠিক আছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখা হয়৷''

প্রযুক্তি যেমন গুরুত্বপূর্ণ, টিমওয়ার্কও সেইরকম গুরুত্বপূর্ণ৷ এই ‘সামার স্কুল'-এর লক্ষ্য হলো তথাকথিত ‘সফ্ট স্কিল'গুলোর বিকাশ ঘটানো,তা যেমন প্রযুক্তির ক্ষেত্রে, তেমনই সামাজিক ক্ষেত্রে৷ ডামান বললেন, ‘‘ফ্লাইট মেকানিকস সম্পর্কে তত্ত্বগতভাবে যা শেখানো হয়েছে, তার বাস্তবিক-ব্যবহারিক দিকটাকে চেনায় এই সামার স্কুল৷ ছাত্ররা নিজেরাই অভিজ্ঞতা লাভ করেন, একটি বিমানকে ত্রিমাত্রিক ব্যাপ্তিতে নিয়ন্ত্রণ করতে কেমন লাগে – এ কাজে গ্লাইডার বিমান খুবই উপযোগী৷''

একজন শিক্ষানবিশ আর একজন প্রশিক্ষক, ৪০০ কিলোগ্রাম ওজনের হালকা গ্লাইডারটিতে উঠলেন দু'জনে৷ গ্লাইডারে চড়ে ওড়ার সময় ছাত্রদের যে অভিজ্ঞতা হবে, লেকচার থিয়েটারে তা সম্ভব নয়৷ যেমন ইওহানেস ইয়ানকে শোনালেন, ‘‘টেক-অফের আগে আমি চেকলিস্ট অনুযায়ী সব কিছু দেখে নিই৷ আগামী কয়েক মিনিটে যা ঘটতে চলেছে,তার উপর মনঃসংযোগ করা প্রয়োজন৷ গ্লাইডারটা স্টার্ট করার সময় একটু ঝাঁকুনি হয়, তারপর হঠাৎ মাটি ছেড়ে আকাশে ওঠে৷''

কন্ট্রোল টাওয়ার থেকে এয়ার ট্র্যাফিক কন্ট্রোলার এয়ারস্পেস সুপারভাইজ করছেন আর পাইলটদের সঙ্গে বেতারে যোগাযোগ রাখছেন৷ একসঙ্গে তিনটি বিমান আকাশে থাকবে৷ প্রপেলার যুক্ত যে টাওপ্লেন গ্লাইডারটিকে টেনে ৬০০ মিটার উচ্চতায় নিয়ে যাবে, সেটি চালানোর দায়িত্ব পেটার ডাহমানের৷ বিমানগুলি প্রতি দশ মিনিট অন্তর স্টার্ট করবে৷ ভালো থার্মাল পেলে একটি গ্লাইডার চার ঘণ্টা অবধি আকাশে থাকতে পারে৷

গণিতের ফর্মুলা নয়, বাস্তব অভিজ্ঞতা৷ মাধ্যাকর্ষণের দ্বিগুণ বা তিনগুণ শক্তি এখানে নিজের শরীরেই অনুভব করা যায়৷ নিকো হোক উচ্ছ্বসিত, ‘‘কোনো সীমানা নেই, ত্রিমাত্রিক উড়াল৷ বিমান যে কোনো দিকে চালানো যায়৷ এ অভিজ্ঞতার কোনো তুলনা নেই৷''

ছাত্ররা এ থেকে দু'ভাবে লাভবান হন: প্রথমত বিমানচালনা সম্পর্কে একটা ধারণা করতে পেরে; দ্বিতীয়ত, এয়ারোস্পেস ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে বিমানচালনার বাস্তব অভিজ্ঞতা থাকলে চাকরি পেতেও সুবিধা হয়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক