1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘আওয়ামী লীগের প্রেস্টিজ, বিএনপির ইস্যু’

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন ‘জাতীয় সংসদ নির্বাচনে’-র রূপ নিয়েছে৷ আগামী শনিবার (৬ জুলাই) অনুষ্ঠিত হবে এই নির্বাচন৷ প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নিজেদের প্রার্থী জেতাতে সব চেষ্টাই করছে৷

বলা বাহুল্য, সদ্য শেষ হওয়া চারটি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নিজেদের প্রার্থী পরাজিত হওয়ায় আওয়ামী লীগ এই নির্বাচনকে ‘প্রেস্টিজ ইস্যু' হিসেবে নিয়েছে৷ এর প্রধান কারণ, সামনে জাতীয় সংসদ নির্বাচন৷ তাই ৬ জুলাইয়ের নির্বাচনেও হেরে গেলে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এর ভয়াবহ প্রভাব পড়বে৷ তাই যত কেন্দ্রীয় নেতা আর সংসদ সদস্য সবাইকেই নামিয়ে দেয়া হয়েছে এই নির্বাচনে৷ অন্তত ১০০ জন সংসদ সদস্য প্রতিদিনই আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছেন৷

এদিকে, চারটি সিটি কর্পোরেশনে জিতে দারুণ উত্‍ফুল্ল বিএনপি৷ গাজীপুরেও তারা সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছে নিজেদের প্রার্থী জেতাতে৷ এই নির্বাচনে তারা পাশে পেয়েছে জামায়াত, জাতীয় পার্টি (এরশাদ), হেফাজতে ইসলামসহ সরকার বিরোধী সব দল ও মতের মানুষকে৷ তবে কোনো কারণে তারা হেরে গেলে তৈরি হবে নতুন ইস্যু, যা সামনের সময়ে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে গড়ে উঠা আন্দোলন আরো চাঙ্গা করবে৷ তাই এই নির্বাচনে বিএনপি জিতলেও লাভ, হারলেও লাভ৷

Bildcombo Sheikh Hasina und Khaleda Zia

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়া (ডানে)

প্রধান নির্বাচন কমিশনার রাকীব উদ্দিন আহমদ সোমবার বলেছেন, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হবে৷ এ পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি৷ নির্বাচনের পর ফলাফল মেনে নিয়ে বিজয় মিছিল না করে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে তিনি প্রার্থী, ভোটার ও সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহ্বান জানান৷ সোমবার দুপুরে গাজীপুরে এক মত বিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন৷ বলেন, ‘‘নবগঠিত গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচনে এ পর্যন্ত সবাই সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ বজায় রেখেছেন৷ এ জন্য নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাই৷'' 

এছাড়া, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠান হবে বলেও অঙ্গীকার করেন তিনি৷ কোনো আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটলে তাত্‍ক্ষণিক প্রার্থীদের রিটার্নিং অফিসারের কাছে অভিযোগ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘আমি রিটার্নিং অফিসারকে নির্দেশ দিয়ে যাচ্ছি৷ অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তিনি যেন তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেন৷''

ওদিকে, আওয়ামী লীগের সঙ্গে মহাজোটে থাকা জাতীয় পার্টির ভাঙন এখন সময়ের ব্যাপার৷ ইতিমধ্যে এই নির্বাচনে জাতীয় পার্টি সমর্থন দিয়েছে বিএনপির সমর্থিত প্রার্থীকে৷ জাতীয় পার্টির স্থানীয় নেতারা বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে মাঠেও নেমেছেন৷ তারপরও জাতীয় পার্টির সমর্থন আদায়ে সর্বাত্মক চেষ্টা করে যাচ্ছে সরকারি দল আওয়ামী লীগ৷ সোমবার সকালে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদের সাথে দেখা করেছেন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দল সমর্থিত প্রার্থী আজমত উল্লা খান৷

জানা যায়, এরশাদের গুলশানের ‘প্রেসিডেন্ট পার্কে'-র বাসায় যান আজমত উল্লা৷ এ সময় তিনি প্রায় ২০ মিনিট সেখানে অবস্থান করেন৷ বৈঠকের ব্যাপারে এরশাদের প্রেস সচিব সুনীল শুভ রায় ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আজমত উল্লা সমর্থন প্রত্যাশায় স্যারের সাথে দেখা করেছেন৷ স্যার বলেছেন, এটা স্থানীয় নির্বাচন৷ এ নির্বাচনে আমি সমর্থন দিলে নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন হবে৷ তাই আমি আপনাকে সমর্থন দিতে পারছি না৷'' তবে আজমত উল্লাকে এরশাদ দোয়া করেছেন বলেও জানান তিনি৷ এ বিষয়ে আজমত উল্লা বলেন, ‘‘এরশাদ সাহেবের সাথে দেখা করে দোয়া নিতে এসেছিলাম৷ তিনি দোয়া করে দিয়েছেন৷ অবশ্য সমর্থনের ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করেননি তিনি৷''

Narayanganj City Corporation Wahlen Flash-Galerie

২০১১ সালের নভেম্বরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শামীম ওসমানকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নারায়ণগঞ্জের প্রথম মেয়র নির্বাচিত হন সেলিনা হায়াত্‍ আইভী (ফাইল ফটো)

এই নির্বাচনে অনেকটা কোণঠাসা হয়ে পড়া আওয়ামী লীগ নিজেদের মধ্যে বিভেদ ভুলে সব ধরনের চেষ্টাই করে যাচ্ছে নিজেদের প্রার্থী জেতাতে৷ শেষ পর্যন্ত নারায়নগঞ্জের আলোচিত নির্বাচনে জয়ী হওয়া মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত্‍ আইভীকে মাঠে নামিয়েছে তারা৷ ১৪ দলীয় জোট সমর্থিত প্রার্থী আজমত উল্লার পক্ষে প্রচারণায় যোগ দিয়েছেন তিনি ইতিমধ্যেই৷ সোমবার বিকেলে তিনি গাজীপুরে পৌঁছে আজমতের পক্ষে প্রচারণা শুরু করেন৷ আগামী তিন দিন আইভী গাজীপুরে আজমতের পক্ষে গণসংযোগ করবেন বলে ডয়চে ভেলেকে নিশ্চিত করেছেন৷ সেলিনা হায়াত্‍ আইভীর জনপ্রিয়তাকে গাজীপুরে কাজে লাগাতে চায় আওয়ামী লীগ৷ এজন্য আওয়ামী লীগের উচ্চ পর্যায়ের অনুরোধে তিনি ১৪ দলের পক্ষে প্রচারে অংশ নিচ্ছেন৷ প্রসঙ্গত, ২০১১ সালের নভেম্বরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শামীম ওসমানকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নারায়ণগঞ্জের প্রথম মেয়র নির্বাচিত হন সেলিনা হায়াত্‍ আইভী৷

অন্যদিকে, গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৩৯২ জন দলীয় প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর৷ তিনি এ ঘটনার তদন্ত দাবি করেছেন৷ নিজেদের নিরপেক্ষতা প্রমাণে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে সেনা মোতায়ন করতে নির্বাচন কমিশনের প্রতি আবারও আহ্বান জানান তিনি৷ মির্জা ফখরুল দাবি করেন, এর আগে চারটি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে সরকার ফলাফল নিজেদের পক্ষে নেয়ার চেষ্টা করলেও জনগণ ঐক্যবদ্ধভাবে তা প্রতিহত করেছে৷ চার সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নিজেদের সমর্থিত প্রার্থী জয়ী হলেও, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া বিএনপি জাতীয় নির্বাচনে যাবে না বলে আবারও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন ফখরুল৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন