1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘আওয়ামী লীগেও জামায়াতের লোক আছে’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সরকারমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম জামায়াত নিষিদ্ধের প্রশ্নে বলেছেন, এই মুহূর্তে কোনো রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধের পরিকল্পনা নেই সরকারের৷

এর প্রতিক্রিয়ায় ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির নির্বাহী সভাপতি শাহরিয়ার কবির ডয়চে ভেলেকে বলেছেন সরকার জামায়াতকে নিষিদ্ধ না করলে তাদের অপকর্মের দায়ও নিতে হবে৷

বৃহস্পতিবার হাইকোর্ট জামায়াতের নিবন্ধন অবৈধ ঘোষণার পর শনিবার প্রকাশ্য প্রতিক্রিয়ায় সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করতে সরকারের আপাতত কোনো পরিকল্পনার কথা নাকোচ করে দেন৷ সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন জামায়াত যদি নিবন্ধনের শর্ত পূরণ করে আদালত এবং নির্বাচন কমিশনকে তার অবস্থান স্পষ্ট করতে পারে তাহলে হয়তো তারা নিবন্ধনও ফিরে পেতে পারে৷

তার এই কথার তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির নির্বাহী সভাপতি শাহরিয়ার কবির৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন জামায়াত একটি সন্ত্রাসী এবং যুদ্ধাপরাধী সংগঠন৷

ট্রাইব্যুনাল এবং হাইকোর্টের রায়ে বার বার একথা বলা হয়েছে৷ আর সরকারকে জামায়াতের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতেও বলা হয়েছে৷ তিনি বলেন গত ৫ মে ঢাকা অবরোধ এবং মতিঝিলের শাপলা চত্বরে সমাবেশের নামে হেফাজত এবং জামায়াত ব্যাপক তাণ্ডব চালিয়েছে৷ মাওলানা দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর ফাঁসির রায়ের পর জামায়াত সারাদেশে অভাবনীয় সহিংসতা চালিয়েছে৷ আর ৬ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন জামায়াত- হেফাজতকে আর কোনো ছাড় দেয়া হবেনা৷ এরপরও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফের জামায়াতের প্রতি সহানুভূতি বিস্ময়কর৷ তিনি বলেন নির্বাচন কমিশন জামায়াতের বিন্ধন বাতিল করতে পারে৷ কিন্তু নিষিদ্ধ করতে হবে সরকারকে নির্বাহী আদেশে৷ আর সরকার যদি তা না করে তাহলে জামায়াতের সহিংসতা, সন্ত্রাসের দায় তাদেরই নিতে হবে৷

শাহরিয়ার কবির বলেন, যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে জামায়াত নেতাদের বিচার শুরু হওয়ার পর জামায়াত এই বিচার বন্ধে এবং নিজেদের রক্ষায় কোটি কোটি টাকা বিনিয়োগ করছে৷ এজন্য তারা টাকা দিয়ে তাদের পক্ষে কথা বলতে দেশে বিদেশে লবিষ্ট নিয়োগ করেছে৷ তারা অর্থ ঢেলেছে সংবাদ মাধ্যম এবং রাজনৈতিক দলের সদস্যদের মধ্যে৷ আওয়ামী লীগ বা সরকার এর বাইরে নেই৷ তাই প্রশাসনে যেমন তাদের পক্ষে কাজ করার লোক আছে তেমনি আওয়ামী লীগেও জামায়াতের লোক আছে৷ তার প্রতিফলন মাঝে মধ্যেই দেখা যায়৷ দেশের বর্তমান অবস্থায় সৈয়দ আশরাফ জামায়াতকে নিয়ে যে সহানুভূতিপূর্ণ কথা বলেছেন তা খুবই হতাশাজনক বলে মন্তব্য করেন শাহরিয়ার কবির৷

তিনি বলেন জামায়াত নিষিদ্ধ হলে ভোটের হিসেবে কার লাভ-ক্ষতি হবে তা বিবেচনা করলে চলবেনা৷ জামায়াতকে নিষিদ্ধ করতে হবে দেশ ও দেশের মানুষের স্বার্থে৷ তিনি বলেন, যে দলটি দেশের সংবিধান মানেনা, মুক্তিযুদ্ধকে স্বীকার করেনা, সেই দলটির রাজনীতি করার কোনো অধিকার থাকতে পারেনা৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়