1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

আই ওয়েইওয়েই এখনও নিরুদ্দেশ, বিশ্বজুড়ে ক্ষোভ

চীনের গণতন্ত্রপন্থী, মুক্তমনা শিল্পী আই ওয়েইওয়েই-এর গ্রেপ্তার নিয়ে বিভিন্ন দেশে উদ্বেগ বাড়ছে৷ আর চীনে পুলিশ হেফাজত থেকে তাঁর নিরুদ্দেশ হওয়া নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে পশ্চিমা শক্তি ও মানবাধিকার সংগঠনগুলো৷

default

চীনের বিখ্যাত শিল্পী আই ওয়েইওয়েই

অস্ট্রেলিয়া মঙ্গলবার জানায়, অধুনা চীনের বিখ্যাত শিল্পী আই ওয়েইওয়েই-এর গ্রেপ্তারকে কেন্দ্র করে দেশটির ওপর মানবাধিকার রক্ষার ইস্যুটি নিয়ে চাপ প্রয়োগ করতে, বেইজিং-এ কূটনীতিক পর্যায়ে একটি জরুরি বৈঠকের আহ্বান জানানো হয়েছে৷ চীনের চতুর্থ ইন কম্যান্ড জিয়া কুইংলিং-এর অস্ট্রেলিয়া সফরের প্রাক্কালে অস্ট্রেলিয়া এই মন্তব্য করলো৷ অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী জুলিয়া গিলার্ডের প্রথম চীন সফরের কয়েক সপ্তাহ আগে কুইংলিং-এর এই সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে৷

শুধু তাই নয়, আই ওয়েইওয়েই-কে মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স এবং অন্যান্য মানবাধিকার গোষ্ঠিগুলোর সঙ্গে যোগ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, জার্মানি এবং ব্রিটেনও৷

দৃশ্যত, তাইওয়ান-এর উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার সময়, গত রবিবার, বেইজিং বিমানবন্দর থেকে শিল্পী আই ওয়েইওয়েই-কে গ্রেপ্তার করা হয়৷ তাঁর স্ত্রী এবং আইনজীবি মঙ্গলবার এএফপি’কে বলেন যে, নিরুদ্দেশ এই শিল্পী সম্পর্কে এখনও কোন খবর তাঁরা পাননি৷ আই ওয়েইওয়েই-এর এভাবে অদৃশ্য হওয়ার কারণ জানতে চেয়ে চীনা কর্তৃপক্ষের কাছে জবাবদিহি চান জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী গিডো ভেস্টারভেলেও৷ আগামী ২৯শে এপ্রিল রাজধানী বার্লিনে একটি নতুন স্টুডিও খোলার কথা ছিল মুক্তমনা এই শিল্পীর৷

Haus der Kunst in München Flash-Galerie

জার্মানির মিউনিখ শহরে শিল্পী আই ওয়েইওয়েই-এর একটি প্রদর্শনী

প্রসঙ্গত, চীনের শাসকগোষ্ঠী তথা কম্যুনিস্ট পার্টি সম্পর্কে খোলাখুলি সমালোচনা করার জন্য অতীতেও বিপদ পড়তে হয় আই ওয়েইওয়েই-কে৷

এদিকে, বেইজিং-এর পুলিশ এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ৫৩ বছর বয়স্ক এই শিল্পীর নিরুদ্দেশ হবার বিষয়টি নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছে৷ গণতন্ত্রপন্থী সমাজ সমালোচক, মুক্তমনা এই মানুষটি ডয়চে ভেলের সেরা ব্লগ প্রতিযোগিতায় এক সময়ে চীনা ভাষার বিচারক ছিলেন৷

আরব বিশ্বজুড়ে যখন প্রচণ্ড বিক্ষোভ প্রতিবাদের মুখে ক্ষমতাবদল চলছে, তখন প্রতি রবিবার চীন জুড়ে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ অনুষ্ঠানের জন্য অজ্ঞাতপরিচয়রা জনগনকে অনলাইনে আহ্বান জানাতে শুরু করে৷ আর এইসব ঘটনার পরপরই এই শিল্পীকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ উল্লেখ্য, ঐ আহ্বানের প্রেক্ষিতে সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে শতশত ভিন্নমতাবলম্বী, আইনজীবি এবং মানবাধিকার কর্মী বিভিন্ন জায়গায় জমায়েত হন৷ তাঁদের মধ্যে বহু মানুষকে গৃহবন্দী করা হয়৷ আর অন্যদের অনেকেই আই ওয়েইওয়েই-এর মতো পুলিশ হেফাজতে থাকা অবস্থায় নিরুদ্দেশ হন৷

ওদিকে, আই ওয়েইওয়েই-এর নিরুদ্দেশ হওয়ার ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার চীনে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দূত বলেন, ‘‘স্বৈরাচারী নির্দেশের মাধ্যমে চীনে আটক হওয়ার ঘটনা বেড়ে চলেছে’’৷ ইইউ’র দূত মার্কুস এডেরার তাঁর বিবৃতিতে বলেছেন, ‘‘যে কোন অবস্থাতে এ ধরণের স্বেচ্ছাচারী আটকাদেশ দেওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য আমরা চীন কর্তৃপক্ষকে আহ্বান জানাচ্ছি৷’’

অপরদিকে আই ওয়েইওয়েই-এর বন্ধুরা জানান যে, বিখ্যাত এই শিল্পীর নিরুদ্দেশ হওয়া নিয়ে ইতিমধ্যেই তদন্তের কাজ ত্বরান্বিত করেছে পুলিশ৷

প্রতিবেদন: ফাহমিদা সুলতানা

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ