1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

আইসিস দমনে ঐক্যের আহ্বান ওবামার

বারাক ওবামা গোটা বিশ্বের উদ্দেশ্যে ইরাক ও সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদের বিরুদ্ধে সংগ্রামে যোগ দেবার ডাক দিয়েছেন৷ জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেওয়া ভাষণে অন্যান্য সংকটের ক্ষেত্রেও ঐক্যের আহ্বান জানান তিনি৷

ওবামার মতে, হিংসাত্মক জঙ্গিবাদের ক্যানসার মুসলিম বিশ্বের অনেক অংশে ধ্বংসলীলা চালিয়ে আসছে, যা মানবজাতির ভবিষ্যতের জন্য বড় হুমকি৷ এর ফলে একের পর এক সংকট সৃষ্টি হতে পারে বলে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন৷ ইসলামিক স্টেট (আইসিস বা আইএস) জঙ্গি সংগঠনকে ধ্বংস করতে অ্যামেরিকা তাই এক আন্তর্জাতিক জোট গড়ে তুলছে৷ বিশেষ করে আইএস যাতে বিভিন্ন দেশ থেকে সদস্য জোগাড় করতে না পারে, সে বিষয়ে সব সরকারকে সতর্ক করে দিচ্ছে মার্কিন প্রশাসন৷ সেই সঙ্গে বৃহত্তর মুসলিম সমাজকেও আইএস ও আল-কায়েদার মতবাদ প্রত্যাখ্যান করার ডাক দেওয়া হচ্ছে৷

আইএস-এর বিরুদ্ধে সামরিক অভিযানে অ্যামেরিকার পাশে এসে দাঁড়িয়েছে ফ্রান্স ও ব্রিটেন সহ পাঁচটি আরব রাষ্ট্রও৷ ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন এ প্রসঙ্গে মনে করিয়ে দিয়েছেন, যে ইরাক সরাসরি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের কাছে আইএস-বিরোধী অভিযানে সমর্থনের অনুরোধ করেছে৷

UN Sicherheitsrat 24.09.2014

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ওবামা বলেন, জঙ্গিবাদের ক্যানসার মানবজাতির ভবিষ্যতের জন্য বড় হুমকি

ফলে এই অভিযানের ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক আইনের ভিত্তি সৃষ্টি হয়েছে বলে তিনি মনে করেন৷ নিরাপত্তা পরিষদ এরই মধ্যে ঐক্যবদ্ধভাবে আইএস জঙ্গিদের ‘রিক্রুটমেন্ট'-এর বিরুদ্ধে একটি প্রস্তাব অনুমোদন করেছে৷ তাতে সব দেশের উদ্দেশ্যে এটা বন্ধ করার ডাক দেওয়া হয়েছে৷

জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি-মুন নিউ ইয়র্কে উপস্থিত বিশ্ব নেতাদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে গোটা বিশ্ব এমন মাত্রার হিংসা ও এতগুলি সমান্তরাল সংকট দেখেনি, যেমনটা এই মুহূর্তে দেখা যাচ্ছে৷ ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদের কার্যকলাপের পাশাপাশি এবোলা ভাইরাসের প্রসার নিয়েও তিনি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন৷ ইউক্রেন, গাজা, দক্ষিণ সুদান ও সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকের সংকট সমাধানের লক্ষ্যেও তিনি ঐক্যের আহ্বান জানান৷

এদিকে আইএস-এর বিরুদ্ধে মার্কিন অভিযান সম্পর্কে আরও খবর পাওয়া যাচ্ছে৷ সিরিয়ায় আইসিস নিয়ন্ত্রিত তৈলকূপের বিরুদ্ধে বিমান হামলা চালিয়েছে কোয়ালিশন বাহিনী৷ তবে ক্ষয়ক্ষতি ও হতাহতদের সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানা যায়নি৷

এসবি/ডিজি (ডিপিএ, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়