1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

অ্যালকোহলে নারীরা আর পিছিয়ে নেই

পশ্চিমা দেশগুলিতে তরুণীরা পুরুষদের মতোই ড্রিঙ্ক, অর্থাৎ অ্যালকোহল পান করতে শুরু করেছেন৷একটি জরিপে তা জানা গেছে৷ বিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি মদ্যপানে নারী-পুরুষের যে ব্যবধান ছিল, তা ধীরে ধীরে মুছে যাচ্ছে৷

১৮ থেকে ২৭ বছরের নারীরা মদ্যপান সংক্রান্ত তিনটি ক্ষেত্রে সমবয়সি পুরুষদের প্রায় ধরে ফেলেছেন৷ সেই তিনটি ক্ষেত্র হলো, মদ্যপানের সম্ভাবনা, মদ্যপান যখন সমস্যা হয়ে ওঠে এবং মদ্যপান কমানো বা থামানোর জন্য চিকিৎসা৷

গত শতাব্দীর মাঝামাঝিতে পুরুষরা মহিলাদের চেয়ে গড়ে প্রায় দ্বিগুণ মদ্যপান করতেন৷ কিন্তু মহিলারা প্রতি দশকে ছয় শতাংশ করে এগিয়ে পুরুষদের প্রায় ধরে ফেলেছেন, এমনকি কোনো কোনো ক্ষেত্রে মদ্যপানে পুরুষদের পিছনে ফেলে দিয়েছেন৷

সম্প্রতি বিএমজে ওপেন জার্নালে এই জরিপের ফলাফল প্রকাশিত হয়৷ জরিপের তথ্য এসেছে ৬৮টি সমীক্ষা থেকে৷ সমীক্ষাগুলির অধিকাংশই সম্পন্ন হয় ইউরোপ ও উত্তর অ্যামেরিকায়৷ ১৯৪৮ থেকে ২০১৪ সাল অবধি এই এলাকার প্রায় ৪০ লাখ মানুষের মদ্যপানের অভ্যাস নিয়ে সমীক্ষা৷ ১৬টি সমীক্ষা চলেছে বিশ বছর কিংবা তার বেশি সময় ধরে; পাঁচটি সমীক্ষা চলেছে অন্তত ত্রিশ বছর ধরে৷

গবেষকদের নেতৃত্ব দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েল্স ইউনিভার্সিটির ন্যাশনাল ড্রাগ অ্যান্ড অ্যালকোহল রিসার্চ সেন্টারের টিম স্লেড৷ স্লেড বলেন, ‘‘মদ্যপান ও মদ্যপান সংক্রান্ত অসুখবিসুখ চিরকাল পুরুষদের বিষয় বলে গণ্য হয়ে এসেছে৷'' কিন্তু  সর্বাধুনিক সমীক্ষা থেকে দেখা যাচ্ছে যে, কমবয়সি মহিলারাই মদ্যপান কমানো অভিযানের লক্ষ্য হওয়া উচিৎ৷

‘সেক্স গ্যাপ' - অর্থাৎ পুরুষরা যে মহিলাদের চেয়ে কম মদ্যপান করে থাকেন - সেই ব্যবধান যে এখন কমে আসছে, তার কারণ এই নয় যে, পুরুষরা কম মদ্যপান করছেন৷ বরং মহিলাদের বেশি মদ্যপান করাই এই ব্যবধান কমে আসার কারণ৷

সামগ্রিক পরিসংখ্যান থেকে বিভিন্ন দেশ, এমনকি মহাদেশের মধ্যে পার্থক্য বিশেষ স্পষ্ট হয় না৷ কিন্তু এশিয়ার মতো মহাদেশ, যেখানে মদ্যপান সাধারণভাবেই অপেক্ষাকৃত কম, সেখানে কিন্তু মদ্যপানে স্ত্রী-পুরুষের মধ্যে ব্যবধান আজও বর্তমান৷ অন্যদিকে সারা বিশ্বে অ্যালকোহল সেবন বিস্তার ও পরিমাণ, উভয় বিচারেই বেড়ে চলেছে৷

এসি/এসিবি (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন