1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্লগওয়াচ

‘‘অ্যামেরিকা নারী নেতৃত্ব মেনে নেওয়ার মতো উদার হতে পারেনি''

যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হতে যাচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ অধিকাংশ মিডিয়ার পূর্বাভাস পাল্টে দিয়ে তাঁর এই জয়ে অবাক বিশ্ববাসী৷ বাংলাদেশের সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ব্যবহারকারীরাও নির্বাচনের ফল নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন৷

ট্রাম্পকে অভিনন্দন জানিয়ে তাঁকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন এসএমডি আহমেদ৷

রনি লিখেছেন, ট্রাম্প আবারও বাংলাদেশকে গর্বিত করলেন৷ তাঁর এই মন্তব্যের প্রমাণ হিসেবে তিনি টুইটারে একটি শার্টের ছবি শেয়ার করেছেন যেখানে লেখা আছে ‘মেড ইন বাংলাদেশ'৷ আর শার্টটির ব্র্যান্ড হচ্ছে ‘ডোনাল্ড জে. ট্রাম্প সিগনেচার কালেকশন'৷

আলভি আজম লিখেছেন, মার্কিন জনগণের প্রতি তাঁর আস্থা ছিল যে তাঁরা ট্রাম্পকেই বিজয়ী করবেন৷

তবে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন নিয়ে বাংলাদেশিদের মধ্যে এত আলোচনার বিষয়ে কিছুটা আপত্তি দেখা গেল নিয়াজ পারভেজের ফেসবুক স্ট্যাটাসে৷ এ সব না করে নিজেদের অভ্যন্তরীণ নানান সমস্যা নিয়ে মাথা ঘামানোর পরামর্শ দিয়েছেন তিনি৷ পারভেজ লিখেছেন, ‘‘আম্রিকার নির্বাচনের ঝড় আমার দেয়াল জুড়ে৷ ক্লিয়ার কাট একটা কথা কই – অতি ক্ষুদ্র মাথাতে এইটুকু বুঝি – আম্রিকায় কে প্রেসিডেন্ট হইলো তাতে উহার বেসিক নীতির তেমন কোনো ফারাক হয় না৷ যাহা বাহান্ন, তাহাই ট্রাম্প৷ শুধুমাত্র একজন প্রেসিডেন্ট আম্রিকা চালায় না; বরং আম্রিকা যারা চালায়, তারা পিছনে থাকে; আর তাগো এইসব চালাচালির জন্যে প্রেসিডেন্ট হওয়োন লাগে না রে অবুঝ! ....ভাইগো, এইসব ছাইড়ে ছুইড়ে নিজগো দিকে তাকা!....এক দৌড়ে গোবিন্দগঞ্জ ঘুরে আয়; সাঁওতালগো সাথে একটু নাচানাচি করে আয়, নাইলে ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া যা৷'' পারভেজের এই স্ট্যাটাসটি ফেসবুকের ‘শাহবাগে সাইবার যুদ্ধ' পাতা থেকে শেয়ার করা হয়েছে

ট্রাম্পের বিজয় থেকে আন্তর্জাতিক বিশ্ব কী আশা করতে পারে তার একটি ধারণা দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির রাজনীতি ও সরকার বিভাগের অধ্যাপক আলী রীয়াজ৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘বিশ্ব এমন এক নেতার নেতৃত্বাধীন যুক্তরাষ্ট্রের মুখোমুখি হবে যিনি আন্তর্জাতিক আইন ও নিয়মনীতি নিয়ে বেশি ভাবেন না৷ যুক্তরাষ্ট্র তার বন্ধুরাষ্ট্রদের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করবে৷ ইসলাম যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত, এমন ধারণার ভিত্তিতে মুসলিম বিশ্বের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক নির্ধারিত হতে পারে৷''

যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত গোধুলী খান লিখেছেন, ‘‘আমেরিকা নারী নেতৃত্ব মেনে নেওয়ার মতো উদার হতে পারেনি৷ ওরা বাংলাদেশিদের থেকে হাজার মাইল পিছনে৷'' প্রায় একই রকম মন্তব্য করেছেন ভুইয়া মুহাম্মদ ইনাম লেনিন৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘গতকালই বলছিলাম, এবারের অ্যামেরিকার নির্বাচনে ট্রাম্প জিতবে৷ কারণ অ্যামেরিকানরা মনে মনে ‘নারী' নেতৃত্ব পছন্দ করে না! অভিনন্দন ট্রাম্প!'' জসিম আহমেদ লিখেছেন, ‘‘ডোনাল্ড ট্রাম্প একজন মন্দ লোক হওয়া সত্ত্বেও সে নির্বাচনে জিতেছে৷ এতেই বোঝা যায় যে, অ্যামেরিকার জনগণ নারী নেতৃত্ব চায় না৷ অথচ সেই অ্যামেরিকানরাই বাংলাদেশ সহ বিভিন্ন মুসলিম দেশগুলোতে নারী অধিকার নিয়ে বড় বড় কথা বলে৷''

আবু জাফর মনে করছেন ট্রাম্পের নেতৃত্বাধীন যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে বসবাসের জন্য বাংলাদেশ ভালো হবে৷

এদিকে, ডয়চে ভেলে বাংলার ফেসবুক পাতায় জলিলুর রহমান লিখেছেন, ‘‘ট্রামের বিজয় থেকে এটাই বোঝা যায় যে, আমেরিকানদের মনের কোনো এক জায়গায় সেই উগ্রবাদী আর বর্ণবাদী মনোভাব রয়েই গেছে৷'' হেলাল হোসেন লিখেছেন, ‘‘আমি আগে থেকেই বলে আসছি ট্রাম্প জিতব কারণ তাঁর প্রতিদন্দ্বী নারী মার্কিনিরা নারীদের ক্ষমতায় বিশ্বাসী নয়৷'' আর মাহফুজ রহমান লিখেছেন, ‘‘আমেরিকানরা যে প্রকৃত সন্ত্রাসী তা বুঝিয়ে দিলো৷''

নভেম্বরের ৯ তারিখে ট্রাম্পের বিজয়ের সঙ্গে ২০০১ সালের সেপ্টেম্বরের ১১ তারিখ টুইন টাওয়ারে হামলার ঘটনা দু'টি একসঙ্গে মিলিয়ে সৈয়দ ফায়েজ আহমেদ লিখেছেন, ‘‘৯/১১-এর পরে এবার ১১/৯৷ গেট রেডি গাইস অ্যান্ড ফাস্টেন ইউর সিট বেল্ট৷''

ট্রাম্পের বিজয়ে বাংলাদেশের নোবেলজয়ী মুহাম্মদ ইউনূস ও খালেদা জিয়ার স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে বলে মনে করেন রেদোয়ান মাসুদ৷ মো. জাকির হোসেন লিখেছেন, ‘‘গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি ক্লিনটন ফাউন্ডেশনের অন্যতম ডোনার মি. ইউনূসকে৷''

সংকলন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন