1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

অ্যামেরিকায় ‘ট্রাভেল ব্যান' শুরু, বিভ্রান্তি কাটছে না

আদালতের রায়ের পর বৃহস্পতিবার থেকে ট্রাম্প প্রশাসনের ‘ট্রাভেল ব্যান' চালু হচ্ছে৷ কিন্তু ৬টি মুসলিম প্রধান দেশ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের নতুন নিয়ম সম্পর্কে এখনো অনেক বিভ্রান্তি রয়ে গেছে৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ঠিক যেমনটা চেয়েছিলেন, সুপ্রিম কোর্ট তা পুরোপুরি মেনে নেয়নি, তাঁর নির্বাহী আদেশের অংশবিশেষ কার্যকর করতে সম্মতি দিয়েছে মাত্র৷ সিরিয়া, সুদান, ইরান, সোমালিয়া, লিবিয়া ও ইয়েমেন – ঢালাওভাবে এই ৬টি দেশের সব নাগরিকের অ্যামেরিকায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতা করেছে আদালত৷ রায়ে বলা হয়েছে, এই দেশগুলির যেসব নাগরিকের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বৈধ সম্পর্ক রয়েছে, তাদের ক্ষেত্রে এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে না৷ অর্থাৎ শুধু আত্মীয়স্বজন থাকার প্রয়োজন নেই, মার্কিন প্রতিষ্ঠানের কর্মী অথবা মার্কিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রী হিসেবেও এই ৬টি দেশের নাগরিক অ্যামেরিকায় প্রবেশ করতে পারবেন৷ তবে শুধু অ্যামেরিকায় প্রবেশের উদ্দেশ্যে এমন সম্পর্ক গড়ে তোলার প্রচেষ্টা চালালে চলবে না৷

সুপ্রিম কোর্টের এই রায় নিয়মের ব্যতিক্রম স্থির করে দিলেও অনেক খুঁটিনাটি বিষয় নিয়ে বিভ্রান্তি থেকে যাচ্ছে৷ ফলে বাস্তবে সেই নিয়ম কীভাবে প্রয়োগ হবে, তা এখনো স্পষ্ট নয়৷ যেমন অ্যামেরিকায় আত্মীয়স্বজন থাকলে সে দেশে প্রবেশে বাধা না থাকলেও ঠিক কত দূর সম্পর্কের আত্মীয় থাকলে চলবে, সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলা হয়নি৷ অথবা যারা এই নির্বাহী আদেশ জারির আগেই বিশ্ববিদ্যালয় অথবা চাকুরির আবেদন করেছেন, তাদের অধিকারও স্পষ্ট নয়৷

ট্রাম্প অবশ্য এই রায়কে নিজের জয় বলেই তুলে ধরছেন৷ সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের পরেই তিনি তাঁর নির্বাহী আদেশ কার্যকর করার নির্দেশ দিয়েছেন৷ তবে মার্কিন প্রশাসনের মধ্যেও বিভ্রান্তি থেকে গেছে৷ পররাষ্ট্র ও অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা মন্ত্রণালয় বিচার মন্ত্রণালয়ের কাছে এ বিষয়ে স্পষ্ট নির্দেশ চেয়েছে, যাতে মার্কিন দূতাবাস ও বিমানবন্দর সহ অন্যান্য সীমান্ত-পোস্টে এ বিষয়ে বিভ্রান্তি এড়ানো যায়৷ অভিবাসনে সহায়তা করেন, এমন অনেক আইনজীবী বিমানবন্দরে উপস্থিত থেকে প্রয়োজনে যাত্রীদের সহায়তা করবেন বলে জানিয়েছেন৷

উল্লেখ্য, ৬টি দেশের নাগরিকের জন্য ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ ৯০ দিন৷ অন্যদিকে শরণার্থীদের প্রবেশের উপর ১২০ দিনের নিষেধাজ্ঞাও কার্যকর হয়েছে৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়