1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

কোরিয়া

‘অ্যামেরিকার জন্য আরও উপহার পাঠানো হবে'

প্রথম দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার জন্য মার্কিন স্বাধীনতা দিবসের দিনটি বেছে নিয়েছিলেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন৷ তিনি বলেন, অ্যামেরিকানদের জন্য এটা স্বাধীনতা দিবসের উপহার৷

উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম বুধবারের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা সম্পর্কে উচ্ছ্বসিত৷ তাদের দাবি, বড় আকারের পরমাণু বোমা বহন করতে সক্ষম ‘হোয়াসং-১৪' নামের এই ক্ষেপণাস্ত্র৷ ২,৮০২ কিলোমিটার ‘ক্রুজিং' উচ্চতায় পৌঁছতে পারে সেটি৷ ৯৩৩ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে জাপান সাগরে ফেলা হয়েছে সেটিকে৷ অর্থাৎ মার্কিন ভূখণ্ডেও আঘাত হানতে পারে এই ক্ষেপণাস্ত্র৷ উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন অত্যন্ত কটু ভাষায় এই পরীক্ষাকে অ্যামেরিকানদের জন্য স্বাধীনতা দিবসের উপহার হিসেবে বর্ণনা করেন৷ তাদের ‘একঘেয়েমি' দূর করতে মাঝে মধ্যে আরও এমন উপহার পাঠানোর কথা বলেন তিনি৷

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন পরোক্ষভাবে স্বীকার করেছেন, উত্তর কোরিয়ার এই দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা সফল হয়েছে৷ মার্কিন সেনাবাহিনী ২৭ মিনিট ধরে সেই ক্ষেপণাস্ত্রের যাত্রাপথ পর্যবেক্ষণ করেছে৷ দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রীর ধারণা, এই ক্ষেপণাস্ত্র ৭,০০০ থেকে ৮,০০০ কিলোমিটার দূরত্ব পাড়ি দিতে সক্ষম৷ কিছু মার্কিন বিশেষজ্ঞের মতে, বছর দুয়েকের মধ্যে উত্তর কোরিয়া এই ক্ষেপণাস্ত্র প্রয়োগ করতে পারবে

টিলারসন আন্তর্জাতিক সমাজের উদ্দেশ্যে উত্তর কোরিয়ার উপর আরও চাপ সৃষ্টি করার ডাক দিয়েছেন৷ তিনি বলেন, যেসব দেশে উত্তর কোরিয়ার অতিথি শ্রমিক কর্মরত রয়েছে, যারা সে দেশকে অর্থনৈতিক ও সামরিক সুবিধা দেয় অথবা নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব পুরোপুরি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে, তারা এক বিপজ্জনক প্রশাসনকে মদত দিচ্ছে৷

টিলারসন নাম উল্লেখ না করেও চীন ও রাশিয়ার উদ্দেশ্যে এই বার্তা পাঠালেন বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷ মস্কোয় এই দুই দেশের শীর্ষ নেতারা সব পক্ষের উদ্দেশ্যে সংযমের ডাক দিয়েছেন৷ জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদেও বিষয়টি উত্থাপন করতে চলেছে ওয়াশিংটন৷

এমন হুমকির মুখে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়াও হাত গুটিয়ে বসে নেই৷ দুই দেশ এক যৌথ সামরিক মহড়া চালিয়েছে৷ পূর্ব সাগরে একাধিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে তারা পিয়ং ইয়ং সরকারের উদ্দেশ্যে কড়া বার্তা পাঠিয়েছে৷ উল্লেখ্য, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গত সপ্তাহেই উত্তর কোরিয়ার প্রশ্নে বলেছেলিন যে, তাঁর প্রশাসনের ‘কৌশলগত ধৈর্য' শেষ হয়ে গেছে৷ চীন এই সমস্যার চূড়ান্ত সমাধান করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন৷ চলতি সপ্তাহে জার্মানিতে জি-টোয়েন্টি শীর্ষ সম্মেলনে বিষয়টি গুরুত্ব পাবে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷

এসবি/এসিবি (ডিপিএ, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়