1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

অ্যামনেস্টির বিরুদ্ধে মামলা কতটা সংগত?

অ্যামনেস্টির বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার মামলা প্রসঙ্গে যে প্রশ্ন সামনে আসে সেটা হলো, রাষ্ট্রদ্রোহিতার প্রকৃত সংজ্ঞা কি? বাক-স্বাধীনতা কি তার সমার্থক? অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়া মনে করে, সরকার রাষ্ট্রদ্রোহীতা আইনের অপব্যবহার করছে৷

গত শনিবার ব্যাঙ্গালুরুতে অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়া আয়োজিত ‘কাশ্মীরে মানবাধিকার লংঘন' শীর্ষক এক আলোচনাচক্রে উপস্থিত বক্তাদের মধ্যে মতভেদকে কেন্দ্র করে ‘আজাদ কাশ্মীর' ইত্যাদি ভারত-বিরোধী শ্লোগান দেওয়া হয়৷ তাতে বিজেপির বিক্ষুব্ধ ছাত্র শাখা পুলিশের কাছে এফআইআর দায়ের করে৷

স্বেচ্ছাসেবী মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের ভারতীয় শাখার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহীতার অভিযোগে মামলা দায়ের করায় অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়া তার প্রতিবাদে ভারতের বিভিন্ন শহরে তাদের সবকটি শাখা আপাতত নিরাপত্তার কারণে বন্ধ রেখেছে৷ সংস্থাটির মতে, তাদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ একেবারেই ভিত্তিহীন৷ ব্যাঙ্গালুরুতে অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়া কাশ্মীরে মানবাধিকার সংক্রান্ত এক আলোচনাচক্রের আয়োজকমাত্র৷ সেখানে দেশবিরোধী শ্লোগান তোলার সঙ্গে সংস্থা বা তার কোনো কর্মী জড়িত নয়৷ শান্তিপূর্ণভাবে নিজের রাজনৈতিক মত প্রকাশ করাও বাক-স্বাধীনতার মধ্যেই পড়ে৷ উগ্র জাতীয়তাবাদী সংগঠনগুলির চাপে নিজস্ব মত প্রকাশের পরিসর ক্রমশই সীমিত হচ্ছে৷ গণতন্ত্রিক ভারতে এসব বড়ই বেমানান বলে মনে করে অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়া কর্তৃপক্ষ৷

যেভাবে ঘটনার শুরু

কীভাবে এই ঘটনাক্রমের সূত্রপাত ? কাশ্মীরে নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে যেসব পরিবার মানবাধিকার লংঘনের শিকার হয়েছে, তাদের ন্যায়বিচার নিয়ে এক আলোচনা চক্রের আয়োজন করে অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়া৷ ২০১৫ সালে প্রকাশিত একটি রিপোর্টকে ভিত্তি করেই এই আলোচনাচক্র৷ তাতে কাশ্মীরে মানবাধিকার লংঘন সংক্রান্ত পুলিশ রিপোর্টের পাশাপাশি ছিল, ‘তথ্য জানার অধিকার' আইনে পাওয়া তথ্যাদি এবং কাশ্মীরের বিভিন্ন পরিবারের সাক্ষাত্কার৷ উপস্থিত বক্তাদের মধ্যে দুভাগ৷ একপক্ষ কাশ্মীরের স্বায়ত্ত্বশাসনের দিকে, অপরপক্ষ কাশ্মীরের হিন্দু পন্ডিত সম্প্রদায়, যাঁরা কাশ্মীরে তাঁদের ভিটে মাটি থেকে বিতাড়িত হয়েছে৷

কাশ্মীর ছেড়ে আসতে বাধ্য হওয়া হিন্দু পণ্ডিতরা আলোচনাচক্রে বিপরীত মত প্রকাশ করেন৷ উত্তেজনার পারদ তুঙ্গে ওঠে যখন সেনাবাহিনীর বিশেষ অধিকার আইনের বলে নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে নিরীহ পরিবারগুলি কিভাবে মানবাধিকার লংঘনের বলি হয় তার কাহিনী তোলা হয়৷ কাশ্মীরি পন্ডিত সমাজ তা খন্ডন করে বলেন, ‘‘ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী জঙ্গি দমনে অনেক সংযত এবং অনেক শৃংখলাপরায়ন৷'' তখন তুমুল হৈ হট্টগোলের মধ্যে কিছু লোক ‘আজাদ কাশ্মীর' ইত্যাদি ভারত বিরোধী শ্লোগান তোলে৷

বিজেপির ছাত্র ও যুব সংগঠন এবিভিপি ‘ভারত মাতা কী জয়' বলে পাল্টা শ্লোগান দেয় এবং পুলিশের কাছে অভিযোগ জানালে পুলিশ তার ভিত্তিতেই অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে৷ কংগ্রেস শাসিত কর্নাটকের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মনে করেন, বিষয়টি নিয়ে আরও তদন্তের প্রয়োজন আছে৷

রাষ্ট্রদ্রোহিতার সংজ্ঞা নিয়ে রাজনৈতিক দল এবং নাগরিক সমাজ দ্বিধাবিভক্ত৷ কংগ্রেস মনে করে, দেশবিরোধী শ্লোগান দিলেই তা রাষ্ট্রদ্রোহিতা আইনের এক্তিয়ারে পড়ে না৷ বিজেপি মনে করে, দেশের অখণ্ডতার দিকে আঙ্গুল তোলাটাও রাষ্ট্রদ্রোহিতা আইনের মধ্যেই পড়ে৷ উল্লেখ্য, দিল্লির জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের এক অনুষ্ঠানে অনুরুপ শ্লোগান তোলার ঘটনায় পুলিশ জেএনইউ-এর ছাত্র নেতা কানাইয়া কুমার এবং অন্য কয়েকজনকে একই অভিযোগে গ্রেপ্তার করেছিল৷ সত্যিই তাঁরা রাষ্ট্রদ্রোহিতার অপরাধে দোষী কিনা তার চূড়ান্ত রায় আদালত এখনও দেননি৷ সুশীল সমাজের একাংশ মনে করেন, রাষ্ট্রদ্রোহিতা আইনের ১২৪-এ ধারা ইচ্ছামত প্রয়োগ করে মানুষকে হয়রানি করা হচ্ছে, এক নৈরাজ্যের বাতাবরণ তৈরি হচ্ছে৷ বাক-স্বাধীনতা আর রাষ্ট্রদ্রোহিতার মধ্যে যে ফারাক আছে আদালতকেই তা স্থির করতে হবে৷

অন্যদিকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অ্যামনেস্টির ভারতীয় শাখার বিদেশি অনুদান সম্পর্কে কিছু সন্দেহ দেখা দেওয়ায় সে বিষয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে৷ সরকারের সন্দেহ, বিদেশি ডোনেশনের অপব্যবহার করা হচ্ছে৷ ভারতের সম্প্রীতি নষ্ট করে বিদেশে ভারতের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করা হচ্ছে৷

এই প্রসঙ্গে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের প্রাক্তন ভারতীয় শীর্ষব্যক্তির মন্তব্যেও তার অনুরণন পাওয়া যায়৷ এই এনজিও নাকি মতাদর্শের দিক থেকে দেউলিয়া হয়ে গেছে৷ মানবাধিকারের চেয়ে জেহাদিদেরকেই বেশি গুরুত্ব দিতে শুরু করেছে৷ অ্যামনেস্টির ইতিহাস বলছে, প্যালেস্টাইনে মানবাধিকার রক্ষার চেয়ে জেহাদি হামাসকেই সমর্থন করা হয়েছে বেশি, এমনটাই মনে করেন তিনি৷ মতাদর্শগত কারণেই তিনি ঐ সংস্থা থেকে পদত্যাগ করেছিলেন বলেও জানিয়েছেন তিনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন